• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:১০ অপরাহ্ন |

অপরাধ প্রমাণ হলেই জামায়াত নিষিদ্ধ!

Jamat
সিসি ডেস্ক: অপরাধ প্রমাণ হলেই আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালেই বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধ করা যাবে। আর এ লক্ষ্যেই বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ, জামায়াতের সংবিধান, প্রকাশনা এবং সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদী সম্পর্কে ব্যাপক পড়াশোনা করছেন ট্রাইব্যুনাল প্রসিকিউশন টিমের আইনজীবীরা। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমেই যুদ্ধাপরাধী ধর্মভিত্তিক এ দলটিকে নিষিদ্ধ করা যাবে বলে মনে করছেন তারা।

ইতিমধ্যে উচ্চ আদালত জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ বলে রায় দিয়েছেন। এরপর নির্বাচন কমিশন দলটিকে নির্বাচনে অংশগ্রহণের অযোগ্য ঘোষণা করে। তবে আদালত তার অভিমতে বলেছেন, জামায়াত রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করতে পারবে। ফলে বিষয়টি এখনো আইনি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া সংগঠন হিসেবে জামায়াত একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিল বলে ট্রাইব্যুনালের প্রায় সবগুলো রায়েই উল্লেখ করা হয়।

কেন জামায়াত নিষিদ্ধের দাবি
একাত্তরে মানবতা বিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের সাজা হয়েছে। সাজাপ্রাপ্ত জামায়াতের সাবেক আমির গোলাম আযমসহ ছয়টি রায়ের মধ্যে পাঁচটিতেই জামায়াতকে অপরাধী সংগঠন (ক্রিমিনাল অর্গানাইজেশন) বলা হয়েছে। ছয়টি রায়েই বলা হয়েছে, পাকিস্তান রক্ষার নামে সশস্ত্র সহযোগী বাহিনী গঠন করে নিরস্ত্র বাঙালি, হিন্দু সম্প্রদায়, বুদ্ধিজীবী, আওয়ামী লীগ ও স্বাধীনতার পক্ষের রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মীদের নিশ্চিহ্ন করার জন্য একাত্তরে জামায়াতে ইসলামী বিশেষ ভূমিকা রাখে।

ওই সময় তারা পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সহযোগী বাহিনী হিসেবে রাজাকার, আল বদর, আল শামস, শান্তি কমিটি গঠন করে। দলটির সাবেক রোকন আবুল কালাম আজাদের রায়েও জামায়াতের সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি উঠে আসে। বিশেষ করে সাবেক আমির গোলাম আযম, বর্তমান সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মুজাহিদ ও সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কামারুজ্জামানের মামলার রায়ে জামায়াতে ইসলামীকে অপরাধী সংগঠন বলা হয়েছে।

গত বছরের ২১ জানুয়ারি আবুল কালাম আজাদের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনালের প্রথম রায়ের পর্যবেক্ষণে ট্রাইব্যুনাল-২ বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানি সেনাদের সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে জামায়াত, ছাত্র সংঘ, আল বদর বাহিনী নৃশংস অপরাধ করে। অথচ এসব সংগঠনের বিচার ট্রাইব্যুনাল করতে পারবেন না। কারণ, আইন এখানে ‘নীরব’।

দলটির আধ্যাত্মিক নেতা হিসেবে পরিচিত গোলাম আযমের মামলার রায়ের পর্যবেক্ষণে (১৫ জুলাই) ট্রাইব্যুনাল-১ বলেন, মুক্তিযুদ্ধকালে গোলাম আযমের নেতৃত্বে জামায়াত অপরাধী সংগঠনের ভূমিকা পালন করেছে। রায়ে আরও বলেন, রাষ্ট্রের কোনো শীর্ষ পদে স্বাধীনতাবিরোধীদের থাকা উচিৎ না।

১৭ জুলাই ট্রাইব্যুনাল-২ মুজাহিদের রায়ে বলেন, এটা প্রতিষ্ঠিত সত্য যে, জামায়াতে ইসলামীর ছাত্রসংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের সদস্যদের নিয়ে আলবদর বাহিনী গঠন করা হয়। এছাড়া জামায়াতের সদস্যদের নিয়ে গঠন করা হয় রাজাকার বাহিনী। এসব বাহিনীর মাধ্যমে জামায়াতে ইসলামী ১৯৭১ সালে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ ও দেশান্তরের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে।

কামারুজ্জামানের রায়েও একই ধরনের অভিমত দেয়া হয়।

ট্রাইব্যুনালের প্রতিটি রায়ের পরই জামায়াতের বিচারের দাবি তোলে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষশক্তি, বিশিষ্টজন, সরকার সমর্থক ও সমমনা লোকজন। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই জামায়াতসহ সব সাম্প্রদায়িক দল নিষিদ্ধের দাবি ওঠে। এদিকে ১ আগস্ট হাইকোর্ট এক আদেশে রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতের নিবন্ধন অবৈধ ঘোষণা করেন। গোলাম আযমের সাজার বিরুদ্ধে করা রাষ্ট্রপক্ষের আপিলের সঙ্গে জামায়াত নিষিদ্ধেরও আপিল করা হয়। কিন্তু তারপর আইনি প্রক্রিয়া আর সামনে এগোয়নি।

জামায়াতের বিচার করতে ট্রাইব্যুনাল আইন সংশোধন
গত পাঁচ ফেব্রুয়ারি জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার রায়কে কেন্দ্র করে শাহবাগে গড়ে ওঠে গণজাগরণ মঞ্চ। সেখানে বেশ কয়েকটি দাবি উত্থাপন করে আন্দোলনকারীরা। এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৮ ফেব্রুয়ারি সংসদে সংবিধান সংশোধন করে ট্রাইব্যুনাল আইনে সংশোধনী আনে সরকার। এতে ব্যক্তির পাশাপাশি সংগঠন বা দলের বিচারের বিধান সংযুক্ত করা হয়। ফলে জামায়াতের বিচারে ট্রাইব্যুনালের আইনি বাধা দূর হয়।

দেশের সর্বমহলের দাবির পরিপ্রেক্ষিতেই এখন জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার আইনিভিত্তি খুঁজতে উঠেপড়ে লেগেছেন ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটররা। এ জন্য দলটির সংবিধানের ভুলত্রুটি খুঁজতে প্রতিদিনই জামায়াত নেতাদের সংকলিত বইপুস্তক পড়ছেন তারা। এ নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন ট্রাইব্যুনালের তদন্ত কর্মকর্তারাও।

এ বিষয়ে এক তদন্ত কর্মকর্তা বাংলামেইলকে বলেন, ‘দলটি নামে ইসলামি রাজনীতি করলেও তারা প্রকৃত ইসলাম থেকে অনেক পিছিয়ে আছে। তাদের লিখিত বইয়েই এর প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। তাদের লেখা বই পড়লেই বোঝা যাবে প্রকৃত ইসলাম এবং জামায়াতের দূরত্ব কত।’

জানা যায়, এই রাজনৈতিক দলের ইতিহাস ঘেঁটে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করতে সময় লাগবে। তারা বলছেন, এ মামলায় দলের বিষয়ে যতই ঘাঁটাঘাঁটি করছেন ততোই নিত্য নতুন তথ্য বেরিয়ে আসছে।

উল্লেখ্য, সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদী ১৯৪১ সালের ২৬ আগস্ট লাহোরের ইসলামিয়া পার্কে সামাজিক-রাজনৈতিক ইসলামি আন্দোলনের অংশ হিসেবে ৭৫ সদস্য নিয়ে জামায়াতে ইসলামি হিন্দ নামে একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। জামায়াত ভারতের মোসলমানদের জন্য পৃথক রাষ্ট্র হিসেবে পাকিস্তান সৃষ্টির বিরোধিতা করেছিল। তারা ১৯৪৬ সালের নির্বাচনে সবচেয়ে বড় দল মুসলিম লীগকে সমর্থন করেনি।

স্বাধীনতা ও ভারত-পাকিস্তান বিভক্তির পর মওদূদী ভারত থেকে পাকিস্তান চলে যান। বর্তমান বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী মূলত পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক জাতীয় পার্টির অংশ থেকে সৃষ্টি হয়েছিল।

তদন্ত কর্মকর্তা মতিউর রহমান বাংলামেইলকে বলেন, ‘তদন্তের স্বার্থেই জামায়াতে ইসলামী নিয়ে ব্যাপক স্টাডি করতে হচ্ছে। দেশি-বিদেশি পত্র-পত্রিকা, সরকারি প্রতিবেদন, সমস্ত নথিপত্র পর্যালোচনা করে অপরাধ খুঁজে বের করে প্রিন্ট এবং বাঁধাই কাজ চলছে।’

তবে এ বিষয়ে মামলা করা হলে সাক্ষী কারা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘গুরুত্বপূর্ণ এই মামলার সাক্ষী হিসেবে কারা থাকছেন তা তদন্তের স্বার্থে এখন বলা যাচ্ছে না। তবে যারা একাত্তরে জামায়াতের ভূমিকার ইতিহাস এবং রাজনৈতিক কলাকৌশল নিয়ে বেশি বলতে পারবেন তাদের সঙ্গেই আলাপ আলোচনা করে জবানবন্দি গ্রহণ করছি। তারা কারা সেটা আদালতেই দেখা যাবে।’

তিনি বলেন, ‘জামায়াতের রাজনীতি সর্বত্রই সহিংস এবং দেশবিরোধী ছিল। তাই আইন অনুযায়ী ব্যক্তির পরে সংগঠনের বিচারে তদন্ত করছি।’

২০১৩ সালের ১৮ আগস্ট জামায়াতের বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিক তদন্ত শুরু করেছেন ট্রাইব্যুনাল। মুক্তিযুদ্ধকালীন ২৫ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর এবং ব্রিটিশ থেকে বর্তমানের ক্যাডার ফোর্স তৈরিকারী সংগঠনের অপরাধের তদন্ত চলছে সংস্থায়।

ওই কর্মকর্তা জানান, এটা কোনও রাজনৈতিক সংগঠনের বিরুদ্ধে তদন্ত নয়, এটা ক্রিমিনাল অ্যাক্টিভিটিসের তদন্ত। চারটি বিষয় সামনে রেখে এগোনো হচ্ছে। এসব হলো- মুক্তিযুদ্ধকালীন অপরাধের ষড়যন্ত্র ও পরিকল্পনা; শাস্তির বিরুদ্ধে অপরাধ, যুদ্ধাপরাধ, গণহত্যা।

এছাড়া ওই সময় জামায়াতকর্মীদের দ্বারা সংঘটিত গণহত্যা, হত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগ, লুটপাট, নির্যাতন, ধর্মান্তরিত করাসহ দল হিসেবে জামায়াতের ভূমিকার তদন্তও চলছে বলে জানান তিনি।

এ ব্যাপারে তদন্ত সংস্থার প্রধান আব্দুল হান্নান খান বাংলামেইলকে বলেন, ‘পুরাতন এই রাজনৈতিক দলের ইতিহাস ঘেঁটে বিভিন্ন তথ্য উপাত্ত সংগ্রহ করতে সময় লাগছে। জামায়াত এমন একটি সংগঠন, দলটির তথ্যগত বিষয়ে যতই এগুচ্ছি ততই নতুন নতুন বিষয় বের হয়ে আসছে।’ কবে নাগাদ তদন্ত শেষ হবে তা নিশ্চিত করে বলেননি তিনি।

তদন্তে যেসব গুরুত্ব পাচ্ছে
১৯৫১ সালের আহমদিয়া দাঙ্গা থেকে শুরু করে ১৯৫৩ সাল এবং ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত ঘটনাবলী থাকছে তদন্তের আওতায়। সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা সাইয়েদ আবুল আ’লা মওদূদীর দর্শন ও আদর্শ।

জানা গেছে বিভিন্ন লেখকের বই যেমন- জামায়াতে ইসলামীর ইতিহাস, একটি জীবন একটি ইতিহাস- মাওলানা মওদূদী, মওদূদী জামায়াত ফেৎনা স্বরূপ, মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী আলবদর থেকে মন্ত্রী। পাকিস্তান জামায়াতের প্রকাশিত বই, সৈয়দ ভেলি রেজা নসরের লিখিত বইসহ শত শত বই রয়েছে তথ্য সংগ্রহের তালিকায়।

এ ব্যাপারে ট্রাইব্যুনালের জ্যেষ্ঠ সমন্বয়ক সানাউল হক বলেন, ‘শুধু জামায়াতের বই-পুস্তক আর পত্র-পত্রিকাই নয়, পাকিস্তান জামায়াতের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা আবুল আ’লা মওদূদীর বই থেকে নেয়া উদ্ধৃতিও তদন্তে গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।’

বিচারে জামায়াত দোষী সাব্যস্ত হলে ট্রাইব্যুনালের রায়েই দলটি নিষিদ্ধ হবে বলে মনে করছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী প্যানেলের প্রধান সমন্বয়ক এম কে রহমান।

প্রসিকিউশন সূত্র জানায়, তদন্ত শেষে ট্রাইব্যুনালে অন্য আসামিদের বিরুদ্ধে যেভাবে মামলা করা হয়েছে, সেই একই পদ্ধতিতে জামায়াতের বিরুদ্ধে মামলা হবে। তদন্ত শেষ করে তদন্ত সংস্থা প্রতিবেদন দিলে তার ভিত্তিতে রাষ্ট্রপক্ষ ট্রাইব্যুনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ দাখিল করবে। ট্রাইব্যুনাল অভিযোগ আমলে নিলে বিচারিক কার্যক্রম শুরু হবে।

উৎসঃ   বাংলামেইল২৪


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ