• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:১৪ অপরাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে সরগরম গ্রামগঞ্জের রাজনীতি

ECসিসি নিউজ: উপজেলা নির্বাচনকে ঘিরে দেশের তৃণমূল পর্যায়ের রাজনীতি সরগরম হয়ে উঠছে। স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলীয় পরিচয় মূখ্য না হওয়ায় উপজেলা নির্বাচনে দেশের প্রধান সব রাজনৈতিক দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতারা অংশ নিচ্ছেন। গতকাল শনিবার প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনের মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে দেশের কোথাও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। ১৯৮২ সালে উপজেলা পরিষদ গঠনের পর মাত্র দুবার নির্বাচন হয়েছে। মাঝখানে ১৮ বছর নির্বাচন হয়নি। তারপর ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার গঠনের পর ২২ জানুয়ারি উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পাঁচ বছর পর আবারও নির্বাচন হতে যাচ্ছে। উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান ও দুই ভাইস চেয়ারম্যান—এ তিনটি পদে সরাসরি ভোট গ্রহণ হয়ে থাকে। এর বাইরে সংশ্লিষ্ট উপজেলার আওতাধীন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও পৌরসভার মেয়র এবং সংরক্ষিত নারী প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে উপজেলা পরিষদ গঠিত হয়।

গত ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির নেতৃত্বে ১৮ দল অংশ না নিলেও উপজেলা নির্বাচনে কেন্দ্রীয় পর্যায় থেকে আনুষ্ঠানিক কোন ঘোষণা দেওয়া হয়নি। ফলে বিএনপি,জামায়াতসহ বর্তমান ১৯ দলের নেতারা উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। গতকাল শনিবার শেষদিনে প্রথম ধাপের ৯৮ উপজেলায় মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন আওয়ামী লীগের পাশাপাশি বিএনপি নেতারাও। প্রথম ধাপে ১৯ ফেব্রুয়ারি দেশের ৪০টি জেলার ৯৮টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ হবে।১৯ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণের পর ২৭ ফেব্রুয়ারি আরও ১১৭ উপজেলায় ভোট অনুষ্ঠিত হবে।দেশে বর্তমানে ৪৮৭টি উপজেলা পরিষদ রয়েছে।

দেশের প্রধান দুটি দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপির উপজেলা পর্যায়ের নেতারা নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় ৯৮টি উপজেলার ইউনিয়ন,ওয়ার্ড ও এর আশেপাশের পৌরসভা এবং জেলার নেতারা ভোটযুদ্ধে নামছেন।তৃণমূল পর্যায়ে মাঠ দখলে রাখতে উপজেলা নির্বাচনকে দলের অস্তিত্ব রক্ষায় লড়াই হিসেবেই বিবেচনা করেছেন বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। দলের কর্মী ও সমর্থকদের চাঙ্গা করে তুলতে বিএনপির জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের নেতারা উৎসবমুখর পরিবেশে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। দলটির চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীরা র্যা লী, শোডাউন করে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। একইভাবে আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরাও মাঠ দখলে রাখতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

৯৮ উপজেলায় নির্বাচন কমিশনের প্রাথমিক হিসাব মতে গতকাল শেষদিন পর্যন্ত মোট প্রার্থীর সংখ্যা এক হাজার ৭২৬ জন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৬৯০, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬৫৬ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী হয়েছেন ৩৮০ জন। এরমধ্যে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ২৫২, বিএনপির ২৩৫, জাপা ২৯, জামায়াতের ৩৩ ও ওয়ার্কার্স পার্টিসহ অন্যান্য ১৪১ জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি সমর্থিত উল্লেখযোগ্য সংখ্যক প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

ইসি সচিবালয় জানিয়েছে, ১৯ জানুয়ারি ১০২টি উপজেলা পরিষদের তফসিল ঘোষণা হলেও সীমানা জটিলতার কারণে রংপুরের সদর উপজেলা, পীরগাছা, গঙ্গাচড়া ও কাউনিয়া উপজেলা নির্বাচন স্থগিত করা হয়। রংপুর সিটি করপোরেশন গঠনের কারণে এ চারটি উপজেলার সীমানা নতুন করে বিন্যাসের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। ২৩ জানুয়ারি দ্বিতীয় ধাপে আরও ১১৭টি উপজেলার তফসিল ঘোষণা করেছে ইসি। যার ভোটগ্রহণ হবে ২৭ ফেব্রুয়ারি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ