• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:২১ পূর্বাহ্ন |

বুধবার বসছে দশম সংসদের প্রথম অধিবেশন

Parlamentসিসি ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন বসছে আগামী ২৯ জানুয়ারি বুধবার সন্ধ্যা ৬টায়। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সংবিধানের ৭২ অনুচ্ছেদের (১) দফা অনুযায়ী গত ১৩ জানুয়ারি এ অধিবেশন আহ্বান করেন।
এদিকে সংসদ সচিবালয় দশম জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন নিখুঁত করতে নিরাপত্তাসহ ব্যাপক পদক্ষেপ নিয়েছে। সম্প্রতি সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব আশরাফুল মকবুলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এসব পদক্ষেপ নেয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।
এসব পদক্ষেপের মধ্যে উল্লেখ্যযোগ্য হচ্ছে, সংসদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের একটির বেশি মোবাইল নিয়ে ভবনে ঢুকতে না দেওয়া। বর্তমানে চারটি বুলেট ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন মোবাইল গান আবিস্কৃত হওয়ায় এই সতর্ক পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। এ কারণে প্রত্যেকটি মোবাইল পরীক্ষা করার জন্যও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
সংসদ কক্ষের সব চেয়ার ঠিক আছে কি না, তা পরীক্ষা ও অধিবেশন চলাকালীন সব লিফট ত্রুটিমুক্ত রাখা হবে। সংসদ ভবনে ফুলসহ সজিব গাছ স্থাপন করা হয়েছে। আর সংসদ ভবনের ড্রাইভওয়েতে শুধু প্রধানমন্ত্রীর গাড়ি রাখা যাবে। এ ছাড়া স্পিকার, বিরোধীদলীয় নেতার গাড়িও সেখানে রাখা যাবে না।
অধিবেশন চলাকালে অক্সিজেন সুবিধাসহ সার্বক্ষণিক একটি অ্যাম্বুলেন্স থাকবে। সংসদ লবিতে একজন ডাক্তারসহ প্রয়োজনীয় সামগ্রী থাকবে। এ ছাড়া রাষ্ট্রপতি ভাষণ দেওয়ার আগে বিউগল বাজানোর আয়োজন করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি অধিবেশন কক্ষে প্রবেশের সময় বিউগল বাজানো হবে।
এ ছাড়া দশম সংসদে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের জন্য এমপি হোস্টেলে কক্ষ বরাদ্দ নিশ্চিত করারও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ জন্য সংসদ সদস্য নির্বাচিত হননি বা নির্বাচনে অংশ নেননি নবম সংসদের এমন সদস্যদের ফ্ল্যাট ছাড়ার নোটিশ দেওয়া হয়েছে।
সংসদের নোটিশ পেয়ে গত বৃহস্পতিবার সরকারি বাসা ছেড়ে দিয়েছেন নবম সংসদের বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক।তিনি ওই দিন বিকেলে তাঁর নামে বরাদ্দ ফ্ল্যাটের মালামালসহ কেয়ারটেকারের কাছে চাবি দিয়েছেন। আর সাবেক এমপিরাও সংসদের বাসা ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
এদিকে নবম সংসদের যেসব সদস্য দশম সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হননি বা পরাজিত হয়েছেন, তারা আগামী ৩০ জানুয়ারির মধ্যে সংসদ থেকে বরাদ্দ দেওয়া ফ্ল্যাট ছাড়ার নোটিশ পেয়েছেন। সংসদ সচিবালয় থেকে গত ১৪ জানুয়ারি ন্যাম ভবন ও নাখালপাড়ার বসবাসরত এসব সাবেক এমপিকে বাসা ছাড়ার নোটিশ দেওয়া হয়।
এ ছাড়া এলডিপির সভাপতি ড. অলি আহমেদ কয়েক দিন আগেই বাসা ছেড়ে দিয়েছেন।
নবম জাতীয় সংসদে বিএনপি-জামায়াত জোটের এমপি ৩৭ জন। এদের বেশির ভাগই ন্যাম ভবনে রয়েছেন। ৩০ জানুয়ারির মধ্যে তাঁদের ফ্ল্যাট ছেড়ে দিতে হবে। একই সঙ্গে মহাজোটের অনেক সংসদ সদস্যকেও ওই সময়ের মধ্যে ফ্ল্যাট ছেড়ে দিতে হবে। তাঁরা দশম সংসদ নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন কিংবা দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় নির্বাচনে অংশ নেননি। সব মিলিয়ে মোট ১৫০ জন সংসদ সদস্যকে ফ্ল্যাট ছাড়তে হবে। তবে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত মহিলা এমপিদের এখনো চিঠি দেওয়া হয়নি। দশম সংসদের সংরক্ষিত আসনের নির্বাচন হওয়ার পর যাঁরা পুনির্নর্বাচিত হবেন না তাঁদের চিঠি দেওয়া হবে।
এদিকে সংবিধান অনুযায়ী গত ২৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ঘটনাবহুল নবম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হয়েছে।
ঘটনাবহুল নবম জাতীয় সংসদে মোট কার্যদিবস ছিল ৪১৮টি, যা দেশের সংসদীয় ইতিহাসে রেকর্ড।
ওই সংসদে মোট ২৭১টি বিল পাস করেও রেকর্ড করেছে। আর বিরোধী দল বিএনপি সংসদ বর্জন করে রেকর্ড করেছে। এ সংসদে বিরোধী দল অনুপস্থিত ছিল ৩৪২ কার্যদিবস, উপস্থিত ছিল ৭৬ কার্যদিবস। আর বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া উপস্থিত ছিলেন ১০ দিন।
উৎসঃ   কালের কণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ