• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন |

উপজেলা নির্বাচন নিয়ে মরিয়া আওয়ামীলীগ-বিএনপি

ECসিসি ডেস্ক: বিএনপি উপজেলা নির্বাচন করার ঘোষণা দেয়ায় সরগরম  হয়ে উঠছে সারা দেশ। আর মনোনয়ন দাখিল করা প্রার্থীরা চষে বেড়াচ্ছেন ভোটের মাঠে। আর ভোটযুদ্ধে নামছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের নেতারা।

প্রথম ধাপের ৯৮টি উপজেলায় ৬৯২ প্রার্থীর মধ্যে ২৫২ জন আওয়ামী লীগের, ২৩৫ জন বিএনপির ও জামায়াতের ২৬ জন প্রার্থী হয়েছেন। জাতীয় পার্টির বিভক্ত গ্রুপের নেতারা নির্বাচনে অংশ নিলেও দলীয় সমর্থনের বিষয়ে প্রার্থীরা আছেন বিভ্রান্তিতে।

জাতীয় নির্বাচন বর্জন করলেও উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন বিএনপিসহ প্রধান বিরোধী জোটের প্রার্থীরা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কৌশলে একক প্রার্থী রাখারও চেষ্টা চলছে। বিরোধী জোট এ নির্বাচনে তাদের প্রার্থীদের বিজয়ী করার মাধ্যমে নিজেদের জনসমর্থনের বিষয়টি স্পষ্ট করতে চায়। এজন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সামনে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের নয়া চ্যালেঞ্জ। দলীয় প্রার্থীর জয় নিশ্চিত করতে কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে তৃণমূলে।

প্রত্যেক উপজেলায় দল সমর্থিত একক প্রার্থী ঠিক করতে জেলা নেতাদেরও নির্দেশনা দিয়েছে আওয়ামীলীগ। দলের নির্দেশ না মেনে কেউ প্রার্থী হলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্যও বলা হয়েছে। যদিও মনোনয়নপত্র দাখিল করা নেতারা প্রত্যেকে নির্বাচন করার জন্য মরিয়া। এ ক্ষেত্রে বেশির ভাগ উপজেলায়ই মতাসীন দলের একাধিক প্রার্থী থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।

অন্যদিকে, বিরোধী জোটের একাধিক প্রার্থী থাকলেও অনেকক্ষেত্রে রাখা হয়েছে কৌশল হিসেবে। নির্বাচন কমিশন কোন প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করলেও যাতে বিকল্প প্রার্থী থাকে সে হিসেবে দল বা জোটের ইঙ্গিতেই একাধিক নেতা প্রার্থী হয়েছেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতারাও এ নির্বাচনের
ওপর সার্বণিক নজর রাখছেন।

সূত্র আরো জানায়, প্রার্থী সমর্থন দেয়ার বিষয়ে কেন্দ্র থেকেই আলোচনা হচ্ছে। কেন্দ্রের নির্দেশনায়ই প্রার্থী হয়েছেন নেতারা। এ ক্ষেত্রে কোন উপজেলায় ১৯ দলের একাধিক প্রার্থী থাকলে সেক্ষেত্রে আলোচনার ভিত্তিতে একক প্রার্থী রাখার চেষ্টা করা হবে। জাতীয় নির্বাচনে বিরোধী দল অংশ না নিলে উপজেলা নির্বাচন ঘিরে প্রধান দুই জোট ও দলের জনপ্রিয়তা ভোটের মাধ্যমে
প্রমাণিত হবে বলে মনে করছেন দলগুলোর নেতারা। আর এটি মাথায় রেখেই তারা উপজেলা নির্বাচনে কাজ করছেন।

এদিকে উপজেলা নির্বাচনে জাতীয় পার্টি আলাদাভাবে অংশ নিচ্ছে। দলটির পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানানো হয়েছিল, দলীয় মনোনয়নপত্র বিক্রি করা হবে। কিছু প্রার্থী তা কিনেছেনও। তবে দলীয় বিভক্তি থাকায় প্রার্থীরা আছেন বিভ্রান্তিতে। এ কারণে প্রত্যাশা অনুযায়ী প্রার্থীরা দলীয় মনোনয়নপত্র কিনেননি। যদিও স্থানীয় সরকার নির্বাচন হিসেবে উপজেলায় দলীয় প্রার্থীর মনোনয়ন বিক্রির কোন সুযোগ নেই।

এ বিষয়ে জাতিয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায় বলেন, জাতীয় পার্টি উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। বনানীর কার্যালয় থেকে আবেদনপত্র বিক্রি করা হয়েছে। তবে সময় স্বল্পতার কারণে অনেকে দলীয় আবেদন ফরম কিনতে পারেননি।

যারা দলীয় মনোনয়ন কিনতে পারেননি তাদের বলা হয়েছে, সরকারি মনোনয়ন যথাসময়ে জমা দিতে। পরে সময় বুঝে পছন্দের প্রার্থীকে দলের সমর্থন জানিয়ে দেয়া হবে।

এদিকে, এককভাবে উপজেলা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। এর মাধ্যমে কাটিয়ে উঠতে চায় রাজনৈতিক বিপর্যয়। সংগঠিত করতে চায় ছন্নছাড়া নেতাকর্মী সমর্থকদের। যুদ্ধাপরাধ, সন্ত্রাসবাদসহ নানা অভিযোগে কোণঠাসা জামায়াতে ইসলামী। উচ্চ আদালতে নিবন্ধন বাতিল ঘোষণার পর রাজনৈতিকভাবে নিষিদ্ধ হওয়ার ঝুঁকির মুখে পড়েছে
১৮ দলের শরিক দলটি।

১২ই জানুয়ারি চরম বৈরী নতুন সরকারের যাত্রা শুরুর পর এই ঝুঁকির মাত্রা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায়ের প্রায় সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা আত্মগোপনে ব্যস্ত। এ পর্যায়ে স্থানীয় সরকারের গুরুত্বপূর্ণ স্তর উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলটির নীতিনির্ধারকরা।

ঢাকা মহানগর জামায়াতের নেতাআতাউর রহমান সরকার বলেন, যে কোন পর্যায়ের নির্বাচনে তাৎক্ষণিক প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার মতো প্রস্তুতি আমাদের সব সময় থাকে। নির্বাচন কমিশন দুই দফায় ২১৯টি উপজেলার নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সম্ভাব্য প্রার্থীদের সবুজ সঙ্কেত দেয়া হয়েছে। প্রার্থীরা স্থানীয় পর্যায়ে যার যার অবস্থান বিবেচনা করে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ইতিমধ্যে কমপক্ষে ২৫টি উপজেলায় একক প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন দলের নেতারা। আরও শতাধিক উপজেলায় জামায়াতের গ্রহণযোগ্য প্রার্থী আছেন বলে জানান তিনি ।

উপজেলা নির্বাচনের বিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জে. মাহাবুবুর রহমান বলেন, সরকার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ঘোষণা দিয়ে নতুন একটি কৌশল নিয়েছে৷  তাই বিএনপির  নেতারা নির্বাচনে অংশ  তাদের জনপ্রিয়তা সরকারকে দেখাবে। আওয়ামীলীগকে খালি মাঠে গোল দিতে দিবেনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ