• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:১৪ অপরাহ্ন |

কুড়িগ্রামে পুলিশের কর্মকর্তার ৫বছরের কারাদন্ড

Policশাহ্ আলম, কুড়িগ্রাম: কুড়িগ্রামে পুলিশের এক এসআইকে ৫বছর ২ মাসের জেল দিয়েছে আদালত। অন্যের জমি অবৈধ দখল, চাঁদা দাবি ও মারপিটের ঘটনায় কুড়িগ্রাম ২য় আদালতের সহকারী দায়রা জজ আশিকুল খবির এই রায় দেন। উক্ত ঘটনায় ঐ এসআইয়ের দুই সঙ্গিকেও জেল দেয় আদালত। বর্তমানে সাজাপ্রাপ্ত আসামী এসআই নজরুল ইসলাম দিনাজপুর পুলিশ সুপার কার্যলয়ে কর্মরত থাকলেও তাকে পলাতক দেখানো হয়েছে। তবে আদালত পুলিশ সদর দপ্তরের সিকিউরিটি শেলের এআইজিকে আসামী এসআই নজরুল ইসলামকে আইনের আওতায় আনার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য রায়ের অনুলিপি পাঠিয়েছে।
আদালত সুত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রামের ভকেশনাল এলাকার আসলাম হোসেন জনৈক মকবুল হোসেনের নিকট সাড়ে ১৮ শতক জমি কবলা মূলে ক্রয় করে ভোগদখল করছিলো। এ অবস্থায় গত ২০০৮ সালের ১৪ এপ্রিল আদালতের রায় পাওয়ার কথা বলে এসআই নজরুল ইসলাম ও তার সঙ্গী দেলদার হোসেন ও ফজলুল হক ঐ জমি আসলামকে ছেড়ে দিতে বলে। অন্যথায় ২ লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করে। পরবর্তীতে ১৯ এপ্রিল ভোরবেলা এসআই নজরুলের নেতৃত্বে একদল লোক ঐজমি দখল করতে জমিতে নামে। তখন আসলাম হোসেন বাধা দিলে তাকে ব্যাপক মারপিট করে। তাকে বাঁচাতে তার স্ত্রী মুক্তা বেগম এগিয়ে আসলে তাকেও লঞ্চিত করে এসআই নজরুল। তখন কুড়িগ্রাম সদর থানায় মামলা করতে গেলে এসআই-এর বিরুদ্ধে মামলার কারণে পুলিশ  মামলা নিতে গড়িমসি করে। পরবর্তিতে ২০ এপ্রিল চীফ জুডিশিয়াল আদালতে নালিশী অভিযোগ দাখিল করে আসলাম হোসেন। আমলী আদালত উক্ত নালিশী অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা যাচাইয়ের জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে নির্দেশ দেন। সে প্রেক্ষিতে আসামীদের সনাক্ত করতে না পারলেও ঘটনা সন্দেহাতিতভাবে ঘটেছে মর্মে একটি প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়া হয়। তবে উক্ত প্রতিবেদনে আসামীদের সনাক্ত করা না হওয়ায় বাদির নারাজির প্রেক্ষিতে বিচার বিভাগীয় অনুসন্ধান প্রতিবেদনের আলোকে ৭ আসামীর বিরুদ্ধে ১৪৩, ৪৪৭,৩২৩, ৩৮৫, ৩৫৪,৩৪ ধারার অপরাধ আমলে নেয়া হয়।
পরবর্তীতে মামলাটি বিচারের জন্য প্রস্তুত হলে গত ২০১১ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি দ্রুত বিচার নিস্পত্তির উদ্দেশ্যে কুড়িগ্রাম দায়রা জজ মামলাটি কুড়িগ্রাম ২য় আদালতের সহকারী দায়রা জজ আদালতে প্রেরণ করেন। পরে উভয় পক্ষের কৌশুলীর শুনানি শেষে ২০১১ সালের ১২ জুন আসামী এসআই নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৪৪৭, ৩৫৪,৩৮৫ ধারায়; আসামী মো: দেলদার হোসেনের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৪৪৭, ৩৮৫ ধারায় এবং আসামী ফজলুল হকের বিরুদ্ধে পেনাল কোডের ৩৪৭, ৩৮৫ ধারায় অভিযোগ গঠন করা হয়। বাকি আসামীদের অব্যহতি দেয়া হয়।
দীর্ঘ শুনানি শেষে আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আদালত এসআই নজরুল ইসলামকে প্রথম অভিযোগের জন্য ৫ বছর সশ্রম কারাদন্ড ও ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরো ৩মাস বিনাশ্রম কারাদন্ড, ২য় ও ৩য় অপরাধের জন্য ১মাস করে ২মাস বিনাশ্রম করাদন্ড প্রদান করে। এছাড়াও তার সহযোগি আসামী দেলদার হোসেনকে ১ম ও ২য় অপরাধের জন্য ১মাস করে ২মাস বিনাশ্রম কারাদন্ড এবং আসামী ফজলুল হককে ১মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ডের আদেশ করে আদালত।
আসামী দেলদার ও ফজলুল হককে জেলা কারাগারে প্রেরণ করলেও আদালতে এসআই নজরুল ইসলাম উপস্থিত না থাকায় তাকে পালাতক ঘোষনা করে দ্রুত গ্রেফতার করে জেলা কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত।
আসামী পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এডভোকেট রেহানা খানম বিউটি অপর পক্ষে বাদী পক্ষে মামলা পরিচালনা করে এপিপি এডভোকেট আয়নুল হক তালুকদার।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ