• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৪৮ পূর্বাহ্ন |

খানসামায় প্রাইমারী স্কুলে দপ্তরী পদ ৫ লাখ!

Takaখানসামা (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: সারা দেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিটিতে দাপ্তরিক কাজ সুষ্ঠু ভাবে পরিচলানা করতে আউট সোর্সিংয়ের মাধ্যমে সৃজিত দপ্তরী কাম প্রহরী পদে একজন করে লোক নিয়োগ দিচ্ছে সরকার।
পদটিতে দ্বিতীয় দফায় নিয়োগ চলছে। আর এটিকে খানসামা উপজেলায় নিয়োগ বাণিজ্যের একটি দালাল চক্র নানা  পন্থায় কাজে নেমেছে। ৩০ জানুয়ারি আবেদনের শেষ দিন হওয়ায় পদটির বর্তমান বাজার মূল্য উঠেছে প্রায় ৫ লাখ টাকা। এতে করে, উপজেলার গরিব মেধাবী পরিশ্রমী এমনটি মুক্তিযোদ্ধার সন্তানরা দপ্তরী কাম প্রহরী পদ থেকে বঞ্চিত হলেও লাভবান হচ্ছে এক শ্রেণির সুবিধাভোগী। পদটিতে এবার দ্বিতীয় দফায় ১৭ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগ দেয়া হবে। যার মধ্যে আলোকঝাড়ি ইউনিয়নে ৩টি, ভেড়ভেড়ীতে ২টি, আঙ্গারপাড়ায় ৩টি, খামারপাড়ায় ৩টি, ভাবকীতে ৩টি এবং গোয়ালডিহি ইউনিয়নের ৩টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে।
একাধিক নির্ভরযোগ্য ও গোপন সূত্র জানায়, চক্রটি বিভিন্ন স্তরের সরকারি কর্মকর্তা এবং সুবিধাভোগী রাজনৈতিক ব্যক্তিদের যোগসাজসে দীর্ঘ দিন ধরে নানা ধরণের নিয়োগে বাণিজ্য করে আসছে। তারা গত বছর দপ্তরী কাম প্রহরী পদে নিয়োগের মত এবারও নিয়োগে কাজ করছে। তবে, এবার এড. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী হওয়া চক্রটি অতি সর্তকর্তার সাথে গোপনে কাজ করছে বলেও সূত্রটি জানায়। সূত্র আরও জানায়, গত বছর ওই পদে ১৭ জন নিয়োগপ্রাপ্ত হন। এদের মধ্যে অনেক প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও এসএমসির সভাপতির সততার কারণে বেশি লাভবান হতে পারেনি। বর্তমানে নিয়োগপ্রাপ্তদের মাসিক বেতন ভাতা নিয়মিত ভাবে প্রাপ্তি এবং পদের  স্থায়ীত্ব লাভ করায় এবারের নিয়োগে পদটির দাম উঠেছে প্রায় ৬ লাখ টাকা।
পদটিতে নিয়োগ ব্যাপারে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মো: মোকলেছার রহমানের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, গত নিয়োগ আমাদের বেশ কয়েক সন্তান দরখাস্ত করে উপেক্ষিত হয়েছে। স্কুল কমিটির সভাপতি কিংবা প্রধান শিক্ষকরা আমাদের কোন মূল্যায়নই করেনি, এবারও করবে না। তাই দুঃখ করা ছাড়া আমাদের কিছুই করার নেই।
পরে এ ব্যাপারে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নুরুল আমীনের সাথে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, নিয়োগের যাবতীয় বিষয় সহকারি শিক্ষা অফিসাররা দেখাশোনা করছেন। আর আভ্যন্তরীণ লেনদেনের বিষয়টি আমি শুনিনি। কোন স্কুলে এমনটি হলে আমাকে বলেন। মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের অগ্রাধিকারের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন, তাদের বয়সসীমা বৃদ্ধি করা হয়েছে এবং নিয়োগের বিষয়টি কমিটি দেখবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ