• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৪:৩৭ অপরাহ্ন |

তরমুজ ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক

Tormusনিউজ ডেস্ক: পটুয়াখালীর কলাপাড়ায় তরমুজ চাষ বেড়েছে। এখন চাষিরা ব্যস্ত সময় পার করছেন তরমুজ ক্ষেত পরিচর্যায়। উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় মিঠা পনির সংকট থাকায় তরমুজ ক্ষেতে সেচ দিতে কৃষকদের সমস্যা হচ্ছে। অনেক কৃষক মাটি কিংবা বালু খুড়ে কূপ খনন করে কঠোর পরিশ্রমের মধ্যে সকাল-বিকেল তাদের তরমুজ ক্ষেতে  সেচ দিচ্ছেন।

এদিকে এককালীন তরমুজ চাষ লাভজনক হওয়ায়  কৃষকরা তরমুজ আবাদে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর ৪১৯ হেক্টর জমিতে তরমুজ চাষ হয়েছে। গত বছর কলাপাড়ায় কৃষকরা তরমুজের বাম্পার ফলন পেয়েছিলেন। এবারও তরমুজের বাম্পার ফলন পাবেন বলে আশা করছেন। এবার কুয়াকাটায় তরমুজ  চাষ সম্প্রসারণ হয়েছে। নতুন করে কুয়াকাটার সৈকতের লেবুরবন এলাকা জুড়ে তরমুজ আবাদ হয়েছে।

কুয়াকাটার সৈকতের তরমুজ চাষি আলাআমিন হাওলাদার জানান, গত বছর ৫০ হাজার টাকা খরচ করে দুই লাখ ৬০ হাজার টাকা লাভ হয়েছে। এ বছর বীজসহ ক্ষেত তৈরি করে এ পর্যন্ত ২০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। তবে তরমুজ ওঠা পর্যন্ত আরও ৭০/৮০ হাজার টাকা খরচ হতে পারে। এছাড়া সাগরপাড়ে মিঠা পানির সংকট রয়েছে। এজন্য সৈকতের বালু খুড়ে কূপ খনন করে কঠোর পরিশ্রমের মধ্যে সকাল-বিকেল ক্ষেতে পানি দিতে হচ্ছে।

উপজেলার ধানখালি ইউনিয়নের কৃষক বসির আকন জানান, এ বছর তিনি ২১ একর ২৮ শতাংশ জমিতে তরমুজ চাষাবাদ করেছেন। এ গ্রামের হানিফ আকন ১০ একর ৬৪ শতাংশ, রাজ্জাক আকন ১৩ একর ৩০ শতাংশ, হিরন হাওলাদার ১৩ একর ৩০ শতাংশ, সালাম সন্নামত ৭ একর ৫৮ শতাংশ, মোকলেছ সন্নামত ৭ একর জমিতে তরমুজ চাষ করেছেন। এছাড়া উপজেলার ধানখালী, লতাচাপলী, ধুলাসার ও খাপড়াভাঙ্গা ইউনিয়নের কৃষকরা এ বছর হাজার হাজার একর জমিতে তরমুজের চাষ করেছেন।

ওই কৃষকরা তাদের ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত রয়েছেন। তবে পশ্চিম ধানখালীর স্লুইজ গেট থেকে লবণ পানি প্রবেশ করার ফলে মিঠা পানির জন্য কিছুটা সমস্যা হচ্ছে বলে তিনি জানান।

তরমুজ চাষিরা জানিয়েছেন, গত বছরের তরমুজের বাম্পার ফলন পেয়েছে। এ বছর প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে তারা গড়ে ২-৩ লাখ টাকার ফলন বেশি পাবেন বলে আশা করেন।

তারা জানান, সাগর কিংবা নদীর পানিতে ফসলি জমি বার বার প্লাবিত হওয়ায় নিম্নাঞ্চলের মাটিতে লবণাক্ততা বেড়ে গেছে। এতে চাষে সমস্যা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে কলাপাড়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মশিউর রহমান জানান, তরমুজ ক্ষেতে মিঠা পানি দেয়ার জন্য কৃষি জমি সংলগ্ন খালগুলো পুনঃখননসহ পুরানো খালগুলো বাঁধ দিয়ে মিঠাপানি সংগ্রহ করা হয়েছে। এ কারণে এবছর তরমুজ ক্ষেতে পানি সেচের কোনো অসুবিধা হবে না। এছাড়া ওই চাষিদের ক্ষেতের যে কোনো সমস্যা দেখার জন্য আমাদের মাঠকর্মীরা কাজ করছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ