• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:৩৬ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে সংখ্যালঘু পরিবারে শান্তি ও স্বস্তি ফিরে এসেছে

Dinajpurমাহবুবুল হক খান, দিনাজপুর: নির্বাচনী সহিংসতায় ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত দিনাজপুরের সংখ্যালঘু পরিবারে শান্তি ও স্বস্তি ফিরে এসেছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এলাকায় অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে। তারা নিজ নিজ ঘর-বাড়ীতে ফিরে এসেছে। তাদের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘর-বাড়ী তৈরী করে দেয়া হয়েছে।
তবে অনেকের মনে এখনো সেই দিনের ঘটনা পীড়া দেয়। সংখ্যালঘু পরিবারের লোকেরা শান্তিতে বসবাস করতে সকলের সহযোগিতা চেয়েছেন।
গত ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতায় দিনাজপুর সদর উপজেলার কর্ণাই এলাকায়, বীরগঞ্জ উপজেলার সাতোর ইউনিয়নে, ঘোড়াঘাট, ফুলবাড়ী এবং বিরামপুর উপজেলার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের লোকজনের বাসা-বাড়ীতে হামলায় ক্ষতিগ্রস্তদের স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে নগদ অর্থসহ বিভিন্ন ধরনের সহায়তা প্রদান করা হয়। রেডক্রিসেন্ট সোসাইটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ হতে বিতরণ করা হয় কম্বলসহ অন্যান্য শীতবস্ত্র ও বিভিন্ন প্রকার ত্রান সামগ্রী বিতরণ করা হয়। দেয়া হয় পর্যাপ্ত খাদ্য সামগ্রী।
দিনাজপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সদর উপজেলার চেহেলগাজী ইউনিয়নের কর্ণাইসহ অন্যান্য এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারকে ৫ হাজার করে টাকা দেয়া হয়। সদর উপজেলার কর্ণাইয়ে পুনর্বাসন কার্যক্রম হাতে নেয়া হয়েছে। বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ বিজিবি’র সহায়তায় প্রায় তিন শ’ কোটি টাকা ব্যয়ে এসব গ্রামে প্রতিটি পরিবারের জন্য তৈরী করে দেয়া হচ্ছে পাকা ঘর। এ জন্য পরিবার পিছু বরাদ্দ করা হয়েছে দেড় লাখ করে টাকা। তা ছাড়া এসব গ্রামে বসবাসকারী যারা ব্যবসা করতেন তাদেরকে বিনা জামানতে সহজ শর্তে ব্যাংক ঋণ দেয়া হয়েছে।
স্থানীয় প্রশাসনের মাধ্যমে সরকারের এই প্রশংসনীয় উদ্যোগের ফলে সদরের কর্ণাই এলাকার সংখ্যালঘু পরিবারগুলোতে শান্তি ও স্বস্তি ফিরে এসেছে। তবে সেই দিনের নির্যাতনের ঘটনার কথা স্মরন হলে অনেকেই ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। কর্ণাই গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত সন্তোষ চন্দ্র রায়, দেবেন্দ্রনাথ, নুকুল চন্দ্র রায়, সৃজনশীল, ডা. লিটন, শ্যামলসহ আরো কয়েক সংখ্যালঘু জানান, আর যেন এই ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি না ঘটে। তারা আবারো আগের মত হিন্দু-মুসলিম একত্রে মিলে-মিশে সুখে বসবাস করতে চান। এই জন্য এসব পরিবারের লোকেরা সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ