• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন |

নীলফামারীতে আব্দুল হালিম: সহিংসতায় জড়িতদের সনাক্ত করা হবে

nilphamari 2সিসি নিউজ: খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব এ.এস.এম আব্দুল হালিম বলেছেন, বিএনপি চায়না দেশের কোন মানুষ অত্যাচারিত বা নির্যাতিত হোক। সবাই সৌহার্দপূর্ণ পরিবেশে আমরা বসবাস করতে চাই। সহিংসতার ঘটনার জামায়াত-বিএনপি বা আওয়ামী লীগ যে দলেরই মানুষ জড়িত থাকবে তাদের খুজে বের করতে হবে। সোমবার দুপুরে নীলফামারীর রামগঞ্জ ও লক্ষিচাপে রাজনৈতিক  সহিংসতায় নিহত পরিবার ও ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শণ করে তিনি এসব কথা বলেন। প্রথমে আসাদুজ্জামান নুরের গাড়ী বহরে হামলার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামী নিহত বিএনপি নেতা গোলাম রব্বানীর বাড়িতে গিয়ে তার মা, স্ত্রীসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের সাথে কথা বলেন তদন্ত কমিটির সদস্যরা। এরপর কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের পর জামায়াত-শিবিরের সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্থ্য লক্ষীচাপ ইউনিয়নের কাচারী বাজারে গিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ্য ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন তারা। এরপর তারা নুরের গাড়ীবহরে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ চৌধুরী হত্যা মামলার চার নং আসামী আতিকুর রহমান আতিকের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেন। এর আগে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সাথে সাক্ষাত করেন তদন্ত দলের সদস্যরা।
সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শণ শেষে নীলফামারী জেলা বিএনপির সদস্য সচিব শামসুজ্জামান জামানের বাসায় সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে তদন্ত দলের সদস্যরা বলেন, ১২ ডিসেম্বর সদর উপজেলার লক্ষীচাপ ইউনিয়নের কাচারী বাজারে ক্ষতিগ্রস্থ্য ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলা হয়েছে। এছাড়াও সংষ্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুরের গাড়ী বহরে হামলা মামলার প্রধান আসামী লক্ষীচাপ ইউনিয়ন বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম নিহত গোলাম রব্বানী এবং  সেদিনের ঘটনার জের ধরে সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ চৌধুরী হত্যা মামলার আসামী আতিকুর রহমান আতিকের পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলা হয়েছে। এসব সহিংসতা ও হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতরা যে দলেরই হোক না কেন তাদের খুজে বের করে তাদের বিরুদ্ধে তদন্ত রিপোর্ট দেয়া হবে। এসময় তারা বলেন, যদিও এই তদন্ত কমিটি বিএনপি গঠিত তবুও সবার সাথে কথা বলে প্রকৃত দোষীদের সনাক্ত করা হবে। এখানে বিএনপি বা কোন দলের হয়ে কোন কাজ বা তদন্ত রিপোর্ট পেশ করা হবেনা বলে দাবি করেন তদন্ত দলের সদস্যরা।
এ.এস.এম আব্দুল হালিমের নেতৃত্বে কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবদাল আহমেদ এবং কমিটির অন্যান্য সদস্যরা হলেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান কল্যাণ ফ্রন্টের চেয়ারম্যান এবং সাবেক প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তী, সম্মিলিত পেশাজীবি পরিষদের সদস্য সচিব অধ্যাপক এ.জেড.এম জাহিদ হোসেন এবং ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিটিউশনের সাবেক সহ-সভাপতি প্রকৌশলী রিয়াজুল ইসলাম রিজু।
উল্লেখ্য গত ১২ ডিসেম্বর জামায়াত নেতা কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকরের পর নীলফামারীর লক্ষীচাপ ইউনিয়নের কাচারী বাজারে অগ্নিসংযোগ করে জামায়াত-শিবির। দুই দিন পর ১৪ ডিসেম্বর সংষ্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নুর ক্ষতিগ্রস্থ্য এলাকা পরিদর্শণ করে ফেরার পথে রামগঞ্জে ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের হামলার শিকার হন আসাদুজ্জামান নুর। এসময় পুলিশ ও আওয়ামী লীগ কর্মীরা এগিয়ে এলে সংঘর্ষ বাধে। এতে চার আওয়ামী লীগ কর্মীসহ পাঁচজন মারা যান। ঘটনার পর আসাদুজ্জামান নুরের ওপড় হামলা ও আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ চৌধুরীর হত্যার ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা হয়। নুরের গাড়ী বহরে হামলার প্রধান আসামী বিএনপি নেতা গোলাম রব্বানীর লাশ ১৮ জানুয়ারী ও আওয়ামী লীগ নেতা খোরশেদ চৌধুরী হত্যা মামলার চার নং আসামী ছাত্রদল নেতা আতিকুর রহমান আতিকের লাশ ২০ জানুয়ারী উদ্ধার করে পুলিশ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ