• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন |

সংসদ সদস্যকে কুটুক্তি করায় শিক্ষককে গণধোলাই

gonodoliনওগাঁ প্রতিনিধি: নওগাঁর আত্রাই ও রনীনগরের স্থানীয় এমপি ইসরাফিল আলমকে অবমাননা করে কুটুক্তি ও গালাগাল করায় আত্রাই উপজেলার মিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সফির উদ্দিনকে স্থানীয় বিক্ষুদ্ধ জনতা গণধোলাই দিয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার। এলাকাবাসি সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মিরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আউট সোসিংয়ের মাধ্যমে দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি আহবান করলে গত ১৯জানুয়ারি প্রার্থীদের আবেদনপত্র জমাদানের শেষদিন ধার্য ছিল। সেই মোতাবেক ওই পদে মোট ৬জন নিয়োগ প্রার্থী আবেদন করেন। আবেদনপত্র বাছাইয়ের দিন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সফির উদ্দিন ভূয়া সার্টিফিকেটধারী এক প্রার্থীর পক্ষ নিয়ে নিয়োগ বোর্ডের কাউকে না জানিয়ে নিজ খেয়াল খুশি মত তা বাতিল না করে বহাল রাখে এবং দুই বৈধ কাগজপত্রধারী নিয়োগ প্রার্থীর আবেদনপত্র বাতিল করেন। এ ঘটনায় রোববার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এমপি মনোনিত নিয়োগ বোর্ডের সদস্য শামসুল আলম প্রধান শিক্ষককে উক্ত দুই বৈধপ্রার্থীর আদেনপত্র বাতিলের কারন জানতে চাইলে ওই প্রধান শিক্ষক বাতিলের কারন না জানিয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে এমপিকে কুটুক্তি করে গালাগাল শুরু করে। এতে স্থানীয় জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে কুটুক্তিকারী ওই প্রধান শিক্ষককে গনধোলাই দেয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে স্থানীয় এলাকাবাসি ওই দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষকের অপসারন ও তার বিরুদ্ধে আইনগত বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দাবি করেন। এ বিষয়ে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সহ-সভাপতি আব্দুল মজিদ ও স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এমপিকে কুটুক্তিকারী দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা হওয়া উচিত। বিদ্যালয়ের দপ্তরী কাম প্রহরী নিয়োগ বোর্ডের এমপি মনোনিত সদস্য শামসুল আলম বলেন, আমাকে না জানিয়ে বিনা করনে উক্ত দুই বৈধপ্রার্থীর আবেদনপত্র ওই প্রধান শিক্ষক নিজ খেয়ালখুশি মত বাতিল করে। আমি তার নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে সে কোন সদুত্তর না দিয়ে আমার সাথে খারাপ আচরনসহ স্থানীয় এমপিকে কুটুক্তি করে গালাগাল করে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে স্থানীয় জনতা ওই প্রধান শিক্ষককে গনধোলাই দেয়। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সফির উদ্দিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করলে তিনি মারধরের কথা স্বীকার করেন। তবে দপ্তরী নিয়োগে অনিয়ম ব্যাপারে প্রশ্ন করলে তিনি কোন সদুত্তর না দিয়ে ফোন কেটে দেন। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল গাফফার জানান, আমি ঘটনাটি শুনেছি। এ ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি। আত্রাই থানার ওসি আব্দুল লতিফ খাঁন জানান, প্রধান শিক্ষক শফির উদ্দিন থানায় লিখিত আবেদন করেছেন। বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ