• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩১ অপরাহ্ন |

আওয়ামী লীগের নেতা ও মন্ত্রীদের বাক-সংযম দরকার

আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী:

Gaffar Chuduriবর্তমান সরকারের যাত্রা শুরুতেই একটা ব্যাপারে তাদের সমালোচনা করতে হওয়ায় আমি দুঃখিত। না করে উপায় নেই। এই সরকারের সাফল্য ও জনপ্রিয়তার ওপর এবং আরও কিছুকাল ক্ষমতায় থাকার ওপর বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। সুতরাং কথায় ও কাজে এই সরকারের অত্যন্ত সতর্ক হওয়া উচিত। গত পাঁচ বছরের ভুলত্র“টিগুলো থেকে শিক্ষা নিয়ে তাদের পারফরমেন্স যেমন উন্নত করা দরকার, তেমনি দরকার বাক-সংযমের।

শেখ হাসিনার গত মন্ত্রিসভা এত ভালো কাজ করেও যে জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পারেননি তার অনেক কারণের মধ্যে একটা বড় কারণ হল, একশ্রেণীর মন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর পরস্পরবিরোধী লাগামহীন কথাবার্তা। এমনকি বয়সে ও অভিজ্ঞতায় প্রবীণ অর্থমন্ত্রী মুহিত পর্যন্ত এই লাগামহীন কথা বলার কুঅভ্যাস থেকে নিজেকে মুক্ত রাখতে পারেননি। তাতে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে, তার নিজেরও জনপ্রিয়তা প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছিল। এবারের নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় তরী পার না হলে তারও অবস্থা কী হতো আমি জানি না।

শেখ হাসিনার গত মন্ত্রিসভার কিছু প্রবীণ ও নবীন সদস্য, এমনকি কোনো কোনো প্রতিমন্ত্রী পর্যন্ত এমন সব অবান্তর, অসংলগ্ন ও পরস্পরবিরোধী কথাবার্তা বলেছেন যে, তার ফিরিস্তি দিতে গেলে একটা মহাভারত লিখতে হবে। তা আর লিখতে চাই না। কিন্তু বর্তমান মন্ত্রিসভার নতুন-পুরনো সব সদস্যকে এই বলে সতর্ক করতে চাই যে, তারা যেন গত সরকারের একশ্রেণীর সদস্যের ভুলভ্রান্তি থেকে শিক্ষা নিয়ে নিজেরা বাক-সংযম করেন- অর্থাৎ বেশি করে কাজ করেন এবং কথা কম বলেন। তারা মনে রাখবেন তাদের বর্তমান সরকার একটি প্রশ্নবিদ্ধ সরকার। নিজেদের যোগ্যতা, সততা ও অভিজ্ঞতা দ্বারা এই প্রশ্নবিদ্ধতা থেকে তাদের মুক্তি পেতে হবে এবং সংশয়াতীত জনসমর্থন ধরে রাখতে হবে। এ কথা সরকারের বাইরে থাকা আওয়ামী লীগের নবীন-প্রবীণ শীর্ষ নেতাদের জন্যও প্রযোজ্য।
সম্প্রতি বর্তমান সরকারের দু’জন সিনিয়র মন্ত্রী এবং একজন দলনেতার (সাবেক মন্ত্রী) প্রকাশ্য মন্তব্য শুনে আমি বিস্মিত ও মর্মাহত দুই-ই হয়েছি। দু’জন সিনিয়র মন্ত্রীই আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় প্রবীণ নেতা এবং ‘সংস্কারপন্থী’ হিসেবে চিহ্নিত হয়ে গত মন্ত্রিসভায় স্থান না পেলেও বর্তমান মন্ত্রিসভায় ফিরে এসেছেন এবং তাতে দেশের মানুষ খুশি। মানুষ ভাবছে এই দুই অভিজ্ঞ নেতা মন্ত্রিসভায় ফিরে আসায় এই সরকারের যোগ্যতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি পাবে। তারা আগের মন্ত্রিসভার একশ্রেণীর অনভিজ্ঞ ও অদক্ষ মন্ত্রীর মতো বেসামাল কথাবার্তা বলবেন না। কিন্তু এত শিগগিরই আমাদের এই আশা ভঙ্গ হবে তা মনে করিনি।

আসল কথায় আসি। দেশে শিগগিরই উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এটা হাসিনা সরকারের জন্য একটা বড় প্লাস পয়েন্ট। একটি সাধারণ নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক শেষ না হতেই তারা উপজেলা নির্বাচন দিতে সাহস ও গণতান্ত্রিক মনোভাবের প্রমাণ দেখিয়েছেন। অনুরূপ শুভ খবর কানে এসেছে, বিরোধী দল বিএনপি এই নির্বাচনে অংশ নেবে। হাসিনা সরকারের আওতায় কোনো নির্বাচনে তারা অংশগ্রহণ করবেন না (সাধারণ নির্বাচনে নেননি) বলে তারা যে ধনুর্ভঙ্গপণ করেছিলেন মনে হয় সেই পণ থেকে সরে আসার শুভ বুদ্ধি তাদের ফিরেছে।

সত্যিই এটা একটা বড় শুভ খবর। দেশের জন্য, সরকারের জন্য এবং গণতন্ত্রের জন্যও। বিএনপির উপজেলা নির্বাচনে যোগ দেয়ার সিদ্ধান্ত সঠিক হলে সরকারের উচিত এই সিদ্ধান্তকে অভিনন্দন জানানো এবং বিএনপি তথা তাদের ১৮ দলীয় জোটকে নির্বাচনে টেনে আনার কাজে উৎসাহ জোগানো। তা না করে এ সম্পর্কে একজন শীর্ষ আওয়ামী লীগ নেতা এবং সিনিয়র মন্ত্রী এবং একজন সাবেক মন্ত্রী যা বলেছেন তা দুঃখজনক। প্রথমে সাবেক মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের তরুণ প্রজন্মের এক নেতার কথাই বলি। তিনি ড. হাছান মাহমুদ। বিএনপির উপজেলা নির্বাচনে যোগ দেয়া সম্পর্কে তিনি ঠাট্টা করে বলেছেন, ‘এক্সপ্রেস ট্রেন ফেল করে বিএনপি এখন লোকাল ট্রেনে চড়তে যাচ্ছে।’

ক্ষমতাসীন দলের নেতা হয়ে এই বিদ্রুপ সাবেক মন্ত্রীর মুখে মানায় না। তার উচিত দেশের বৃহত্তর গণতন্ত্রের স্বার্থেই এবং বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতেই দ্বিতীয় বৃহত্তম রাজনৈতিক দলটিকে নির্বাচনে আসার ব্যাপারে উৎসাহ জোগানো। হাছান মাহমুদ আওয়ামী লীগের একজন প্রতিশ্র“তিশীল নেতা। প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রী হিসেবেও তিনি যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেন। বর্তমান মন্ত্রিসভায় তার অন্তর্ভুক্তি না দেখে বিস্মিত হয়েছি এবং ভেবেছি আমার কোনো এক লেখায় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ জানাব ড. আবদুর রাজ্জাক, ড. হাছান মাহমুদের মতো গত সরকারের সফল ও যোগ্য মন্ত্রীদের এই সরকারেও অন্তর্ভুক্ত করতে। এখন উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির যোগদান সম্পর্কে তার অহেতুক বিদ্রুপ উক্তিতে মর্মাহত হয়েছি। তাকে অনুরোধ জানাব বাক-সংযমের চর্চা করার।

তবে এই সাবেক তরুণ মন্ত্রীর উক্তির চেয়েও আমাকে বেশি বিস্মিত ও ক্ষুব্ধ করেছে আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা এবং বর্তমানে সিনিয়র মন্ত্রী আমির হোসেন আমুর মন্তব্য। তিনি যা বলেছেন, তার সারমর্ম হল, যে দল হাসিনা সরকারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে আসেনি, তারা এখন উপজেলা নির্বাচনে আসবে কেন? নির্বাচনে আসতে হলে তাদের নাকে খত দিয়ে আসা উচিত।

বিএনপিকে সাধারণ নির্বাচনে আনার জন্য স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে সংবিধানে ব্যবস্থা না থাকা সত্ত্বেও বিএনপির সহযোগে নির্বাচনকালীন বহুদলীয় সরকার গঠন করতে চেয়েছেন, বিএনপিকে তাদের ইচ্ছামতো মন্ত্রী দফতর দিতে চেয়েছেন, সেখানে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচনী বৈতরণী পার হওয়ার সুযোগ পেয়ে আমির হোসেন আমু বলছেন, উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি আসবে কেন? দেশে গণতান্ত্রিক সরকার ও রাজনীতির ধারাবাহিকতা চাইলে তো তার সবার আগে উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণের জন্য বিএনপিকে অভিনন্দন জানানো উচিত। প্রতিপক্ষকে নাকে খত দিয়ে আসতে বলা কি একজন বালকের মুখেও মানায়? আমির হোসেন আমু তো বালক নন।
এ তো গেল একজন সাবেক মন্ত্রী ও বর্তমান মন্ত্রীর কথা। আমি সবচেয়ে বেশি ক্ষুব্ধ হয়েছি এবং আঘাত পেয়েছি যে সিনিয়র মন্ত্রীর কথায় তিনি এ দেশের একজন অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ান, দলের প্রবীণ নেতা এবং সরকারের সিনিয়র মন্ত্রী। শেখ হাসিনার গত মন্ত্রিসভায় তিনি ছিলেন না। কিন্তু বর্তমান মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় শুধু আমি নই, দেশের মানুষের একটা বড় অংশও খুশি হয়েছে বলে জেনেছি। তিনি ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের তখনকার অন্যতম যুবনেতা এবং বর্তমান আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতা ও মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

ঢাকার কাগজেই দেখলাম, তিনি বলেছেন, ‘এই সরকার পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকবে।’ ক্ষমতায় বসেই বা বসার সুযোগ পেয়েই এ ধরনের দম্ভোক্তি করা একজন শীর্ষ ও অভিজ্ঞ রাজনৈতিক নেতার পক্ষে সাজে কি? সবাই জানেন ৫ জানুয়ারির নির্বাচন ও বর্তমান সরকারকে নিয়ে দেশে এক ধরনের বিতর্ক আছে। এই বিতর্ক কাটিয়ে ওঠা নির্ভর করে সরকারের গুড পারফরমেন্স ও গুড গভর্নেন্সের ওপর। অতীতের সব ভুলভ্রান্তি কাটিয়ে উঠে বর্তমান সরকার যদি দ্রুত জনজীবনের ছোট-বড় কিছু জরুরি সমস্যা মিটিয়ে জনআস্থা ধরে রাখতে পারে, তাহলেও তাদের জন্য উচিত হবে দুই কী আড়াই বছর পর মধ্যবর্তীকালীন নির্বাচন দিয়ে গণম্যান্ডেট নতুন করে যাচাই করে নেয়া। সেই মধ্যবর্তী নির্বাচনে গণম্যান্ডেটের নবায়ন হলে সরকার পাঁচ বছর কেন তার বেশিও ক্ষমতায় থাকতে পারবে। এটাই হবে সরকারের জন্য গণতন্ত্রসম্মত পথ।

তোফায়েল আহমেদের মতো একজন প্রবীণ গণতান্ত্রিক নেতা এ সত্যটি অনুধাবন না করে কীভাবে বলতে পারলেন এই সরকার পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকতে পারবে? এই ম্যান্ডেট কারা তাকে দিয়েছে? সাম্প্রতিক নির্বাচন দিয়েছে কি? এটা দেশের অস্বাভাবিক সময়ের একটি অস্বাভাবিক নির্বাচন, তা কি তিনি জানেন না?
এ ধরনের বাক-সংযমহীনতার পরিচয় তিনি আরেকবারও দিয়েছেন। শেখ হাসিনার প্রথম মন্ত্রিসভার আমলে (তিনি তখনও মন্ত্রী)। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মদিনায় অবস্থানকালে সে সময়ের নির্বাচনের তারিখ এগিয়ে এনে সে বছর জুন কী জুলাই মাসে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ঘোষণা দিয়েছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণাকে অগ্রাহ্য করে তোফায়েল আহমেদ নারায়ণগঞ্জের এক সভায় বক্তৃতায় সদম্ভে বলেন, ‘মেয়াদ শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা আগেও ক্ষমতা ছাড়ব না।’ তার এই উক্তি শুধু প্রধানমন্ত্রীর মর্যাদাই ক্ষুণ্ন করেনি, জনসাধারণের কাছে সরকারের ভাবমূর্তিও নষ্ট করেছে। সে বছর জুলাই মাসে যে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগের জেতার সম্ভাবনা ছিল, মেয়াদ শেষ করে অক্টোবরে সে নির্বাচন করতে গিয়ে আওয়ামী লীগের ভরাডুবি ঘটে।
বর্তমান সরকারও কত দিন ক্ষমতায় থাকবে তা নির্ভর করে জনসাধারণের ইচ্ছার ওপর। বর্তমান সরকারের কোনো মন্ত্রীর ইচ্ছার ওপর নয়। তারা যদি কথা কম বলেন এবং কাজ বেশি করে জনগণকে খুশি রাখতে পারেন, তাহলে একটি মধ্যবর্তী নির্বাচন হলেও জনগণ হয়তো ভোট দিয়ে এই সরকারের ক্ষমতায় থাকার মেয়াদ বাড়াবে। অন্যথায় অনাবশ্যক বাগাড়ম্বর এবং ক্ষমতা আঁকড়ে থাকার অতি আগ্রহ প্রকাশ করলে তার পরিণতি হবে অপ্রত্যাশিত বিপর্যয়।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমার সনির্বন্ধ অনুরোধ, তিনি তার মন্ত্রীদের বাক-সংযমের কড়া নির্দেশ দিন। এই সরকারের সাফল্য ও স্থায়িত্বের ওপর দেশের ভবিষ্যৎ নির্ভর করছে। আওয়ামী লীগের সব নেতা ও মন্ত্রীর এ সত্যটি অনুধাবন করা উচিত এবং তদানুযায়ী তাদের কথা ও কাজ নিয়ন্ত্রণ করা উচিত।
(jugantor, 27/01/2014)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ