• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:২৯ অপরাহ্ন |

নীলফামারীতে মৌসুমি ফসল তুলে নিরাপদ প্রসব কেন্দ্র!

______  ________ _________ _  ______ _____ _______সিসি নিউজ: পাকা রাস্তার পাশে দেখতে প্রায় দ্বিতল ভবন। দূর থেকে দেখে মনে হয় কারো বাড়ি। কিন্তু কাছে যেতেই সাইনবোর্ড দেখে নিশ্চিত হওয়া গেল এটা কমিউনিটি ক্লিনিক। আবারও মনে খটকা লাগলো কেননা সারা দেশের কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোতে যেখানে ছোট ছোট ৪ কক্ষ বিশিষ্ট একতলা ভবন। কিন্তু এটা তো আবার দ্বিতল! আগে একতলাই ছিল। কিন্তু আমরা সকলে মিলে  সবার বাড়ী বাড়ী ঘুরে ধান-চাল ও টাকা তুলে এটাকে গড়ে তুলেছি। গর্বের সাথে জানালেন নীলফামারীর দুহুলি কমিউনিটি গ্রুপের সভাপতি রবিউল ইসলাম। এলাকার জনগণ চাইলে যে অনেক কিছু করা সম্ভব তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ নীলফামারী জেলার কচুকাটা ইউনিয়নের দুহুলিবাসী। কেননা সারাদেশে ১৩ হাজারের অধিক কমিউনিটি ক্লিনিক থাকলেও দুহুলি কমিউনিটি ক্লিনিকের মতো আর দ্বিতীয়টি নেই। তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানে দিন দিন জনবান্ধব হাসপাতালে পরিণত হচ্ছে এ কমিউনিটি ক্লিনিকটি। এ ক্লিনিক বর্তমানে সপ্তাহের ৬ দিনই খোলা থাকে । সেখানে গর্ভকালীন ও প্রসব পরবর্তী চেক-আপ,সকল বয়সীদের সাধারণ রোগের চিকিৎসা, পরিবার পরিকল্পনা পদ্ধতি, টিকাদানসহ পুষ্টি বিসয়ক পরামর্শ প্রদান করনা হয়। প্রয়োজনে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করা হয় উপজেলা বা জেলা হাসপাতালে। দুই বছর আগেও সরকারী ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত এ কমিউনিটি ক্লিনিকটির অবস্থা এমন ছিল না। স্বাস্থ্য কর্মীগণ যেখানে খুব একটা নিয়মিত আসতেন না, কোন কোন দিন সারাদিনই বন্ধ থাকতো যে কমিউনিটি ক্লিনিকের দরজা, তা এখন সেবা গ্রহীতাদের পদভারে মুখরিত। মাত্র দুই বছরের মধ্যে বদলে গেছে দুহুলি কমিউনিটি ক্লিনিকের আগের চিত্র। প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও ল্যাম্বের সহযোগিতায় কচুকাটা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও এলাকার উদ্যোগী লোকজনকে নিয়ে পুনর্গঠন করা হয় কমিউনিটি গ্রুপ। খোলা হয় ক্লিনিকের নামে ব্যাংক হিসাব। ক্লিনিকের সামনে মাটি দিয়ে ভরাট, বিভিন্ন প্রজাতির চারা রোপন, নলকূপ ও ল্যাট্রিন মেরামত এবং সাপোর্ট গ্রুপ গঠন করা হয়। নিয়মিত অনুষ্ঠিত হচ্ছে ক্লিনিকের মাসিক সভা। ক্লিনিকটি ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যদের মাসিক অনুদান, এলাকাবাসীর দেওয়া মৌসুমি ফসল, ফিতরা, কোরবানির দান করা চামড়ার টাকা, স্থানীয় এমপি ও ইউনিয়ন পরিষদের দেওয়া এককালীন অনুদানে পাঁচ লক্ষ উনচল্লিশ  হাজার সাতশ পঁয়ত্রিশ টাকা যোগাড় করে নির্মাণ করা হয়েছে কমিউনিটি ক্লিনিকটি লাগোয়া ৪ কক্ষ বিশিষ্ট নিরাপদ প্রসব কেন্দ্র। এ প্রসঙ্গে কচুকাটা গ্রামের পরেশ চন্দ্র  বলেন, এ হাসপাতালত (হাসপাতালে) প্রসব সুবিধা চালু হওয়ায় হামার (আমাদের) আর কোন চিন্তা নাই। হামার (আমাদের) আর রংপুরত (রংপুরে) যাওয়া নাগবে না (যেতে হবেনা)। দুহুুলির এ কমিউনিটি ক্লিনিকে নিরাপদ প্রসব শুরু করার প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণ কাজ কয়েক মাস আগে শেষ হয়েছে। প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ ও ল্যাম্বের পক্ষ থেকে কমিউনিটি ক্লিনিক গ্রুপের দক্ষতা বৃদ্ধিমূলক বিভিন্ন বিষয়ে প্রশিক্ষণ, ডেলিভারি বেড, অক্সিজেন সিলিন্ডারসহ প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও উপকরণ দেওয়া হয়েছে। নীলফামারীর সিভিল সার্জন ডাঃ শওকত আলীর উদ্যোগে কয়েকদিন আগে রোগী পরিবহণের জন্য দেওয়া হয়েছে একটি ভ্যান। সার্বক্ষণিক নিরাপদ প্রসব সুবিধা সম্পন্ন এ কেন্দ্রটি ২০ জানুয়ারি আনুষ্ঠানিক ভাবে চালু করা হয়েছে। রবিবার এ কমিউনিটি ক্লিনিকে একটি শিশু জন্ম নিয়েছে বলে আনন্দের সাথে জানান কমিউনিটি গ্রুপের অন্যতম সদস্য ও টেংগনমারী স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হাই।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ