• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৪১ পূর্বাহ্ন |

বাণিজ্যমেলায় সেলস গার্ল

girl-salesঢাকা: ১৯তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় ক্রেতা আকৃষ্ট করতে কোম্পনিগুলো নিয়েছে অভিনব সব কৌশল। বাণিজ্যমেলার মূল গেট দিয়ে প্রবেশ করলে ডানেই চোখে পড়ে ইফাদ মাল্টিপ্রোডাক্টসের প্যাভিলিয়ন। সেখানে বসে আছেন পরিপাটি ইউনিফর্ম পরা তরুণীরা।

ক্রেতা প্রবেশের সঙ্গে শুরু হয়ে যায় তাদের তৎপরতা। এরপর কোম্পানির বিভিন্ন প্রোডাক্ট ক্রেতাদের সামনে তুলে ধরেন। প্রোডাক্টের গুণাগুণ বর্ণনা থেকে শুরু করে এর সঙ্গে কি অফার রয়েছে তা ক্রেতাদের জানিয়ে দেন। এভাবে ঢাকা আন্তার্জাতিক বাণিজ্যমেলায় বেচাবিক্রিতে নৈপুণ্য প্রদর্শন করছেন এক ঝাঁক তরুণী। রাজধানীর বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অধ্যয়ন করেন তারা।

তবে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই বেশি। এবারের মেলায় দেশী-বিদেশী বিভিন্ন স্টল ও প্যাভিলিয়নে প্রায় দু’শতাধিক সেলস গার্ল কাজ করছেন। কোন কোন প্যাভিলিয়নে শুধু মেয়েরাই বিক্রি করছেন। ইফাদ, স্টারশিপ, ইগলু, কাজী ফার্মস, সনি, গোল্ডেন হারভেস্ট, প্রভৃতি প্যাভেলিয়নের বেশির ভাগ বিক্রয়কর্মীই তরুণী।

একেক প্রতিষ্ঠানে একেক নামে এসব বিক্রয় প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হয়। বিপি বা বিজনেস প্রোমোটার, প্রোডাক্ট প্রোমোটার, সেলস অফিসার, সেলস গার্লস এরকম নানা নামে পরিচিত তারা। সেলস গার্লদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে কয়েকভাবে। কোন কোন কোম্পানি সরাসরি চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়েছে। এক্ষেত্রে কোম্পানিগুলো বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে দরখাস্ত আহ্বান করে। যাচাই-বাছাই শেষে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়।

নিয়োগের আরেকটি মাধ্যম হচ্ছে ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান। এসব প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাদের প্রতিনিধির মাধ্যমে সেলস গার্লদের রিক্রুট করে থাকে। এ ধরনের প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে নিয়োগকৃত সেলস গার্লরা হচ্ছেন থার্ড পার্টি। সবক্ষেত্রেই চাকরির মেয়াদ হয় ইভেন্ট চলা পর্যন্ত। প্রতিষ্ঠানগুলো বেশ কয়েকটি বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে নিয়োগ দিয়ে থাকে।

সাহসী, বুদ্ধিমান ও আত্মবিশ্বাসী মেয়েরাই এক্ষেত্রে প্রাধান্য পায়। স্মার্টনেস, আকর্ষণীয় চেহারা ও সুন্দর বাচনভঙ্গির দিকটাও বিবেচনা করা হয়ে থাকে। আর শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এইচএসসি পাস হতে হয়। নিয়োগের পর প্রোডাক্টের গুণাগুণ তুলে ধরতে তাদের দেয়া হয়েছে তিন থেকে চারদিনের ট্রেনিং।

বাণিজ্যমেলায় মেয়েদের কাজ করতে হয় সকাল ১০টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত। তবে কোন কোন কোম্পানিতে দুই শিফটে কাজ করতে হয়। সেলস গার্লদের বেতন সাধারণত ১৫-২০ হাজার টাকা। মেলায় প্রতিদিন টার্গেট অনুযায়ী বিক্রি করতে পারলে রয়েছে বিশেষ প্রণোদনা। এছাড়া মেলা শেষে সেরা তিন সেলস গার্ল নির্বাচন করে তাদের পুরস্কৃত করবে কিছু প্রতিষ্ঠান।

বেচাকেনায় পারদর্শিতা প্রদর্শন করতে পারলে রয়েছে ভবিষ্যতে সংশ্লিষ্ট কোম্পানিতে স্থায়ী চাকরির সুুযোগ। যে কোন চাকরিতে অভিজ্ঞতা হিসেবে উল্লেখের সুযোগ তো রয়েছেই। কপালের টিপ থেকে শুরু করে টিভি-ফ্রিজ বিক্রিতে অসধারণ দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছেন বাণিজ্যমেলার সেলস গার্লরা। আশা ইউনিভার্সিটিতে বিবিএ সপ্তম সেমিস্টারে পড়াশোনা করছেন ফারিয়া।

ভার্সিটির ডিপার্টমেন্টের একজন বড় ভাইয়ের মাধ্যমে এবারের বাণিজ্য মেলায় সেলস গার্লের চাকরি নিয়েছেন স্পেল বাউন্ডের প্যাভিলিয়নে। তিনি জানান, জীবনের প্রথমবারের মতো এ ধরনের কাজে এসেছি। খুব ভাল অভিজ্ঞতা হয়েছে।

প্যাভিলিয়নে সবাই খুব আন্তরিক। সবাই সবাইকে সহযোগিতা করেন। মেয়েদের নিরাপত্তা বিষয়ে ইগলু আইসক্রিমের সেলস গার্ল টুম্পা জানান, তিনি পড়াশোনা করেন ইডেন মহিলা কলেজে। এখানে কাজে কোন প্রকার সমস্যাই হয় না।

তিনি বলেন, অনেক ক্ষেত্রে ছেলেদের চেয়ে বিক্রয়কর্মী হিসেবে ভাল করছে মেয়েরা। ধারণাই ছিল না এত সহজে বিক্রয়ের কাজ করা সম্ভব। ব্রান্ড প্রোমোটার হিসেবে মেয়েদের চেয়ে ছেলেদের প্রাধান্য দেয়ার বিষয়ে ইফাদ মাল্টিপ্রোডাক্টসের ব্র্যন্ড এক্সিকিউটিভ সাব্বির বলেন, মেয়েরা অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করে। তারা স্মার্ট, সচেতন। চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায়ও দক্ষ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ