• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩৬ অপরাহ্ন |

ভাড়ায় মিলবে বাকিংহাম প্যালেস!

raniসিসি ডেস্ক: রানির কারণে এবার মান যাচ্ছে রাজপ্রাসাদের! চাইলে বিয়ের জন্য বাকিংহাম প্যালেস ভাড়াও নেয়া যাবে! এমনটা ঘটলে অবাক হওয়ার কিছু নেই। বেহিসেবি রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের কারণে বেড়ে গেছে রাজপরিবারের খরচ। আর তা সামাল দিতেই গলদঘর্ম ব্রিটিশ সাংসদরা৷ কোনো উপায় না পেয়ে আয় বাড়ানোর দু’টি প্রস্তাব দিচ্ছেন তাঁরা। প্রথম, আরও বেশি সময় ধরে বাকিংহাম প্যালেসের দরজা সাধারণ মানুষের জন্য খুলে রাখা হোক৷ দ্বিতীয়ত, প্রয়োজনে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভাড়ায় দেওয়া হোক বাকিংহামের একাংশ৷ নজিরবিহীন এই প্রস্তাবের নেপথ্যে রয়েছে এমন দু’টি ঘটনা, যা আগে কখনো ব্রিটিশরা প্রত্যক্ষ করেনি৷ রাজপরিবারের পুঁজি কমতে কমতে মাত্র ১০ লক্ষ পাউন্ডে এসে ঠেকেছে৷ অতীতে ব্রিটিশ রাজ-পরিবারের কোষাগার এমন কঙ্কালসার হয়নি৷

অথচ, রানির খরচ বেড়েই চলেছে৷ প্রাপ্ত অনুদানের চেয়ে বেশি খরচ করে ফেলেছেন তিনি। তাই পুঁজি থেকে টাকা নিয়ে বাড়তি খরচ সামাল দিতে হয়েছে৷ শেষমেষ ব্রিটিশ পার্লামেন্ট খরচ নিয়ে রানি এলিজাবেথকে সতর্ক করতে বাধ্য হয়েছে৷ এমন ঘটনাও ব্রিটেনে প্রথম।

কমিটি অফ পাবলিক অ্যাকাউন্টসের রিপোর্টে বলা হয়েছে, অবিলম্বে খরচে কাটছাঁট করে আয় বাড়াতে হবে। রাজপরিবারের নিজস্ব খরচের ভার রয়েছে৷ তার উপর বাকিংহাম, উইন্ডসরের মতো রাজপরিবারের একাধিক সম্পত্তির সংস্কারও প্রয়োজন। নেই নেই করে এর পেছনেও লাগবে ৫ কোটি পাউন্ড!

রিপোর্টে দেখা গেছে, ২০১২-১৩ অর্থবর্ষে বরাদ্দের চেয়ে বেশি খরচ করেছেন এলিজাবেথ৷ তাঁর মোট খরচ ৩.৩৩ কোটি পাউন্ড৷ অথচ, ‘গ্রান্ট’ ৩.১ কোটি পাউন্ড৷ এই বাড়তি ২৩ লক্ষ পাউন্ড তুলতে হয়েছে ‘রিজার্ভ ফান্ড’ থেকে, যেখানে রাখা ছিল ৩৩ লক্ষ পাউন্ড৷ অর্থাত্‍, ৩১ মার্চ, ২০১৩-র হিসেব অনুযায়ী, রিজার্ভ ফান্ডে ছিল মাত্র ১০ লক্ষ পাউন্ড৷

কমিটির বক্তব্য, রানির খরচে রাশ টানতে ব্যর্থ হয়েছে হাউসহোল্ড এবং ট্রেজারি৷ এলিজাবেথের টাকা খরচ এবং ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে রয়েছে এই দুই বিভাগ৷ রাজ-পরিবারের কোষাগারের এমন দশার জন্য মূলত তিনটি কারণ চিহ্নিত করেছে কমিটি৷

বলা হয়েছে, হাউসহোল্ড এবং ট্রেজারির মধ্যে সমন্বয় বাড়াতে হবে৷ হাউসহোল্ড কী করছে, তা আরও খুঁটিয়ে পরীক্ষা করতে হবে ট্রেজারিকে৷ দ্বিতীয়ত, হেরিটেজগুলোর সংরক্ষণের দিকে যথাযথ নজর দিচ্ছে না হাউসহোল্ড৷ বহু সম্পত্তিই এখন ভঙ্গুর হয়ে পড়েছে৷ তৃতীয়ত, ২০১২-১৩ অর্থবর্ষে রয়্যাল হাউসহোল্ডের আয় বাড়লেও, তা আরও বাড়ানো যেত৷

কমিটির চেয়ারপার্সন মার্গারেট হজ বলেছেন, ‘রানি হিসেবে প্রাতিষ্ঠানিক কর্তব্য পালনের জন্য যে সব কর্মসূচি গ্রহণ করতে হয়, সে দিকে নজর রেখেই গ্রান্ট দেওয়া৷ এর ফলে রয়্যাল হাউসহোল্ডের খরচের উপর স্ক্রুটিনির সুযোগ রয়েছে৷ বেড়েছে হাউসহোল্ডের দায়বদ্ধতাও৷’

রাজপরিবারের একাধিক ভবনের দশা রীতিমতো খারাপ৷ এ নিয়ে দুশ্চিন্তা প্রকাশ করে কমিটির রিপোর্টে বলা হয়েছে, ‘জাতীয় হেরিটেজগুলো রক্ষায় হাউসহোল্ডের আরও সক্রিয় হওয়া উচিত৷ ৩১ মার্চ, ২০১২-র হিসেব অনুযায়ী, গ্রহণযোগ্য অবস্থার নীচে রয়েছে রয়্যাল এস্টেটের ৩৯ শতাংশ সম্পত্তি৷ বর্তমানে অবস্থা আরও করুণ, তা ধরেই নেওয়া যায়৷’

গত ৬০ বছরে বাকিংহামে কোনও মেরামতি হয়নি৷ উইন্ডসর বা তার মতো অন্যান্য স্থাবর সম্পত্তিগুলোর অবস্থাও তথৈবচ৷ মেরামতে লাগবে আনুমানিক ৫ কোটি পাউন্ড৷ এই বিশাল টাকার সংস্থান কীভাবে হবে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন ব্রিটিশ পার্লামেন্ট৷

এই অবস্থায় সাংসদরা বলছেন, খরচ কমানোর পাশাপাশি রাজপরিবারের উচিত আয়ের বিভিন্ন উপায় বের করা৷ কমিটি অফ পাবলিক অ্যাকাউন্টস কোনও ভাবেই চায় না, মেরামতির খরচের বোঝা করদাতাদের ঘাড়ে চাপুক৷ তাই যত দ্রুত সম্ভব আয়ের রাস্তা খুলতে হবে রাজপরিবারকে৷ মার্গারেট হজের কথায়, ‘বাস্তব উপেক্ষা করার উপায় নেই৷ বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে বাকিংহামের একাধিক অংশ বেহাল হয়ে রয়েছে৷ জনসাধারণ আতঙ্কিত৷ এই অবস্থায় রাজপরিবারকেই এগিয়ে আসতে হবে৷’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ