• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১২:১১ পূর্বাহ্ন |

রানের পাহাড়ে চাপা পড়েছে বাংলাদেশ

mahela-jayawardeneখেলাধুলা ডেস্ক: মাহেলা জয়াবর্ধনের ডাবল সেঞ্চুরিতে ভর করে মিরপুর টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৪৯৮ রানে লিড নিয়েছে সফরকারীরা। বুধবার তৃতীয় দিন শেষে ৭৩০ রানে ইনিংস ঘোষণা করেছে লঙ্কানরা।

জবাবে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে সহ অধিনায়ক তামিম ইকবালকে হারিয়ে বসে বাংলাদেশ। ১ উইকেটে ৩৫ রান নিয়ে তৃতীয় দিন শেষ করে স্বাগতিকরা।

মাহেলা-ম্যাথিউস আর ভিথানাগির ব্যাটে চড়ে লঙ্কা প্রায় দিনটাই পার করে দিয়েছে। ২৩২ রানের জবাবে প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সাফল্য বলতে ১টি উইকেট। মাহেলা ছিলেন অটল। করলেন বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম এবং ক্যারিয়ারে ৬ষ্ঠ ডাবল সেঞ্চুরি। ৫ উইকেটে লঙ্কানদের সংগ্রহ ৭৩০ রান। বৃহস্পতিবার ম্যাচের ৪র্থ দিন।

যে উইকেটে মুশফিকরা ২৩২ রানে অলআউট সেই উইকেট করুনারত্নে ৫৩, সিলভা ১৩৯, সাঙ্গাকারা ৭৫, জয়াবর্ধনে অপরাজিত ২০৩, চান্দিমাল ৪২ ও লাকমাল অপরাজিত ০, ম্যাথিউস ৮৬ আর ভিথানাগি অপরাজিত ১০৩ রান করেছেন। দ্বিতীয় ইনিংসে মুশফিকরা কী করতে পারে এখন সেটাই দেখার বিষয়।

১৯৯৭ সালে প্রথম টেস্ট খেলতে নেমেছেন আর ২০১৪ সালে এসে এখনও সেই আগের মতো প্রখর তার ব্যাটিং। প্রমাণ দিলেন মিরপুরে চলতি সিরিজের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ২০৩ রানে অপরাজিত থেকে। ২০০৮ সালের পর ২০১৪ সাল-পাঁচ বছর মিরপুরে আবারও সফল মাহেলা। মিরপুরে ২০০৮ সালে প্রথম বার ব্যাট করতে নেমে সেঞ্চুরি হাঁকান। পাঁচ বছর পর মিরপুরের উইকেটে আবারও মাহেলা সেঞ্চুরি হাঁকালেন।

দ্বিতীয় দিনে দলের ৩০২ রানের মাথায় ব্যাট করতে নামেন মাহেলা। সঙ্গী ছিলেন চান্দিমাল পরে লাকমাল। দুই জনেই ফেরত গেলে লম্বা সময়ের জন্য জুটি বাঁধেন অধিনায়ক ম্যাথিউসের সঙ্গে। বাংলাদেশকে হতাশায় ডুবিয়ে দলীয় সংগ্রহ ৬ উইকেটে ৭৩০ পর্যন্ত টেনে নিলেন। ম্যাথিউস টেস্ট ক্যারিয়ারে ১৪তম টেস্ট ফিফটি পূর্ণ করার সময় মাহেলা ছিলেন ৯২ রানে। অপেক্ষা সেঞ্চুরির।

এরপর ৩৩তম টেস্ট সেঞ্চুরির জন্য মাহেলা বেশি সময় অপেক্ষা করলেন না। যা বাংলাদেশের বিপক্ষে তার ৫ম সেঞ্চুরি। ১৭৯ রানের জুটি গড়লেন ম্যাথিউসের সঙ্গে। ৮৬ রান করা ম্যাথিউসকে ফেতর পাঠালেন সোহাগ গাজী। এরপর ৭ম জুটিতে মাহেলার সঙ্গী ভিথানাগি। মাহেলা যখন ১৮৯ রানে ডাবল সেঞ্চুরির পথে তখন সঙ্গী ভিথানাগি প্রথম টেস্ট সেঞ্চুরির স্বাদ গ্রহণ করে ফেলেছেন। ১৭৬ রানের পার্টনারশিপ লঙ্কাকে মুলত সাতশ রানের কোটা পার করিয়ে দেয়।

১৭ বছরে ১৪২টি টেস্টের মধ্যে বাংলাদেশের বিপক্ষে ১২টি। ২০০১ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে প্রথম টেস্ট খেলেছেন কলম্বোতে। করেছেন ১৫০ রানের ইনিংস। এরপর ২০০২ সালে কলম্বো টেস্টে ফিফটি (৬৩)। তারপর বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সেঞ্চুরির দেখা পেতে অপেক্ষা করতে হলো ৫টি বছর।

২০০৭ সালে নিজ মাটি কলম্বোতে ১২৭ রানের ইনিংস হাঁকালেন। আর একই সিরিজে ২০০৭ সালে ক্যান্ডির উইকেটে করলেন ১৬৫ রান। ২০০৮ সালে সফরে এসে মিরপুরেই গড়েছিলেন ১৬৬ রানের সেঞ্চুরি। ২০০৮-০৯ সালের ওই সিরিজে মিরপুর টেস্টের দ্বিতীয় ইনিংস আর চট্টগ্রাম টেস্টে রান পাননি মাহেলা জয়াবর্ধনে। ২০১৪ সালে মিরপুরে গড়লেন ডাবল সেঞ্চুরি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ