• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৬:২৮ অপরাহ্ন |

সক্রিয় হয়ে উঠছে হিজবুত তাহরীর

Hijboutসিসি ডেস্ক: আর্ন্তজাতিক অর্থসহায়তা পেতে মরিয়া নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিজবুত তাহরীর। এজন্য রাজধানীসহ দেশজুড়ে আবারও সক্রিয় হয়ে উঠছে সংগঠনটি। বিষয়টি নতুন করে ভাবনায় ফেলেছে গোয়েন্দাদের।
বাংলাদেশ সরকার ২০০৯ সালের ২২ অক্টোবর হিজবুত তাহরীরকে জঙ্গি সংগঠন আখ্যা দিয়ে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। সংগঠনটিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করার পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক তৎপরতায় তাদের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়ে। তবে মাঝে-মধ্যে রাজধানীতে ঝটিকা মিছিল এবং লিফলেট বিতরণকালে পুলিশ, র‌্যাব ও গোয়েন্দাদের হাতে আটক হলেও তাদের কার্যক্রম একেবারে থেমে থাকেনি।
২০১৪ সালের শুরু থেকেই আবারও সক্রিয় হয় সংগঠনটি। তাদের সেই চিরচেনা ঝটিকা মিছিল ও লিফলেট বিতরণ করে আবারও ব্যাপক প্রচার-প্রচারণায় নামে। এ সময় আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সক্রিয় হওয়ার নতুন কারণ জানতে পেরেছে গোয়েন্দারা। সম্প্রতি একাধিক গোয়েন্দা সূত্র ও এই সংগঠনটির বিভিন্ন ধরনের তৎপরতায় এমন তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে।
গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও মধ্যপ্রাচ্যর একাধিক দেশ থেকে সংগঠনটির তহবিল রেমিটেন্সের মাধ্যমে এদেশে আসে। বিশেষ করে বাংলাদেশি বংশদ্ভুত উচ্চবিত্তরা তাদের আয়ের একটি অংশ রেমিটেন্সসহ বিভিন্ন মাধ্যমে দেশে সংগঠনটির তহবিলে পাঠিয়ে থাকেন। এছাড়া কয়েকটি দেশের গোয়েন্দা সংস্থা হিজবুত তাহরীরকে নিয়মিত অর্থ সহায়তা দিয়ে থাকে বলে গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য রয়েছে। বর্তমানে সক্রিয়তা ও কার্যক্রম না থাকায় অর্থের প্রয়োজনীয়তা কম বলে তহবিলে বিদেশি অর্থ জমাও হচ্ছে কম। এজন্য সংগঠনটির নেতৃত্ব পর্যায়ে সদস্য, ঝটিকা মিছিল ও লিফলেট বিতরণ জোরদার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যাতে দেশি-বিদেশি গণমাধ্যমে প্রচার-প্রচারণা বেশি হবে এবং অর্থ সহায়তাও মিলবে।
সূত্র জানায়, এতদিন সমাজের উচ্চশ্রেণী ও শিক্ষিতরা সংগঠনটির আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে জড়িত হলেও এখন বিভিন্ন পর্যায়ে তাদের সদস্য কার্যক্রম বিস্তার করেছে। সম্প্রতি আটক হওয়াদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে এমনটাই জানা গেছে। এতদিন শুধু নামি কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা হিজবুত তাহরীরের আদর্শের সঙ্গে কাজ করলেও এখন স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসাসহ মধ্যবিত্ত-নিন্মবিত্তরাও হিজবুত তাহরীরের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হচ্ছে।
সূত্র আরও জানায়, ধর্মীয় উত্তেজনা ও সাম্প্রদায়িক মতবিরোধ ছড়িয়ে দিতে হিযবুত তাহরীর পুনরায় তাদের কার্যক্রম শুরু করেছে। শুধু জানুয়ারি মাসেই ঝটিকা মিছিল, রাষ্ট্রবিরোধী লিফলেট ও পোস্টার বিতরণের সময় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে পঞ্চাশের বেশি কর্মীকে আটক করেছে র‌্যাব, পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ।
আটককৃতরা গোয়েন্দাদের কাছে স্বীকার করেছে, দেশে চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতাকে কেন্দ্র করে হিযবুত তাহরীর ধর্মীয় উগ্রবাদী মতবাদ প্রচার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যদিও এখন পর্যন্ত সংগঠনটি আত্মপ্রকাশের পর থেকে কোনো ধরনের নাশকতা সৃষ্টি করতে পারেনি। প্রচার-প্রচারণায় তাদের কার্যক্রম সীমাবদ্ধতা থেকেছে।
ঊর্ধ্বতন একজন গোয়েন্দা কর্মকর্তা জানান, হিযবুত তাহরীর মূলত সেনাবাহিনী ও রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপ্রচারে লিপ্ত। জাতির গৌরব সেনাবাহিনীকে এবং রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপতৎপরতায় লিপ্ত থাকায় সরকার সংগঠনটি নিষিদ্ধ করে। তারপরও তাদের কার্যক্রম থেমে নেই। তাদের কঠোরভাবে দমন করতে মরিয়া আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।
২৪ জানুয়ারি রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে হিজবুত তাহরীরের ১০ সদস্যকে আটক করে পুলিশ ও র‌্যাব। এদিন দুপুরে রাজধানীর মিরপুরের শেওড়াপাড়া থেকে মো. আমীর হামজা (২৩) নামে হিজবুত তাহরীরের এক সদস্যকে আটক করে র‌্যাব-৪। এ সময় তার কাছ থেকে বেশকিছু রাষ্ট্রবিরোধী লিফলেট ও পোস্টার উদ্ধার করা হয়।
এ বিষয়ে র‌্যাব-৪ এর ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মেজর রাশেদুর রহমান প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে জানান, শেওড়াপাড়ায় স্থানীয় একটি মসজিদের সামনে সেনাবাহিনীকে উস্কানি দেওয়াসহ রাষ্ট্রবিরোধী লিফলেট বিতরণকালে তিন যুবকের মধ্যে থেকে এক যুবককে আটক করে র‌্যাব-৪ এর একটি টহল দল।
একই দিনে রাজধানীর কলাবাগান থানাধীন বসির উদ্দিন রোডের একটি মসজিদের সামনে থেকে সোহান হাফিজ (৩২) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করে কলাবাগান থানা পুলিশ। জুমার নামায শেষে হিজবুত তাহরীরের লিফলেট বিলি করছিল ওই ব্যক্তি।
এর আগে রাজধানীর খিলক্ষেত এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ লিফলেট, ব্যানার ও জিহাদি বইসহ নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন হিযবুত তাহরীরের আরও আট সদস্যকে আটক করে পুলিশ।
বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সকাল পর্যন্ত খিলক্ষেত থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।
খিলক্ষেত থানা পুলিশের ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা জানায়, তারা হিযবুত তাহরীরের সদস্য। উগ্রপন্থী ধর্মীয় মতবাদ ছড়িয়ে দিতেই তারা লিফলেট বিতরণ করছিলেন।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিবি-ডিসি-দক্ষিণ) মো. জাহাঙ্গীর হোসেন মাতুব্বর প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে জানান, সম্প্রতি রাজনৈতিক পরিস্থিতি ও অস্থিরতার সুযোগ নিয়ে হিযবুত তাহরীর আবারও তৎপর হয়ে উঠেছে। তিনি দাবি করেন বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সহ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজকে কেন্দ্র করে নিষিদ্ধ ঘোষিত এই সংগঠনটি নিয়মিতভাবে সদস্য সংগ্রহ করার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে বলে নজরদারিতে উঠে এসেছে। তাদের আটক করে আইনের আওতায় আনতে নিয়মিত কাজ চলছে।
র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং শাখার পরিচালক উইং কমান্ডার এটিএম হাবিবুর রহমান প্রাইমনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, ‘শুধুমাত্র হিযবুত তাহরীর নয়, নিষিদ্ধ সব জঙ্গি সংগঠনের কার্যক্রম র‌্যাবের কঠোর গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছে। নিয়মিত অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। রাজধানীসহ দেশজুড়ে হিযবুত তাহরীর তাদের কার্যক্রম বাড়িয়েছে। র‌্যাব ও অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও তাদের প্রতিহত করতে যথাযথ পদক্ষেপ নিয়েছে।
আর্ন্তজাতিক পুলিশ সদর দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১২ সালে অর্ধশতাধিক এবং ২০১৩ সালে দেড় শতাধিকের বেশি হিযবুত তাহরীর সদস্যকে আটক করে পুলিশ।
র‌্যাব সদর দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১২ সালে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হিযবুত তাহরীরের ৪৯ জন এবং ২০১৩ সালে বিপুল পরিমাণ রাষ্ট্রবিরোধী লিফলেট ও পোস্টারসহ সাত জনকে আটক করে র‌্যাব।
২০১৩ সালের ২৭ ডিসেম্বর গুলিস্তানের মুক্তাঙ্গনে একটি সমাবেশ করার ঘোষণা দেয় হিযবুত তাহরীর। সমাবেশ সফল করতে প্রচার-প্রচারণাও চলে দেশজুড়ে। ওই দিন জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে নেতকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করলে পুলিশের গুলিতে ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এসময় সংগঠনটির ছয় জন গুলিবিদ্ধ হন এবং ২৬ কর্মী আটক হয়।
উৎসঃ   প্রাইমনিউজ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ