• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:২০ অপরাহ্ন |

১০ ট্রাক অস্ত্র মামলায় নিজামী ও বাবরসহ ১৪ জনের ফাঁসি

image11সিসি ডেস্কঃ আলোচিত ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার রায়ে নিজামী ও বাবরসহ১৪ জনের ফাঁসি দিয়েছে আদালত। ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত অন্য আসামিরা হচ্ছে, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের তৎকালীন মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুর রহিম, সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআইয়ের তৎকালীন পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, এনএসআইয়ের সাবেক পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত উইং কমান্ডার সাহাবুদ্দিন, উপ-পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর লিয়াকত হোসেন, ফিল্ড অফিসার আকবর হোসেন খান, রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানা সিইউএফএলের সাবেক এমডি মোহসীন তালুকদার, সাবেক মহাব্যবস্থাপক এনামুল হক, ট্রলার মালিক দীন মোহাম্মদ ও চোরাচালানি হিসেবে অভিযুক্ত হাফিজুর রহমান,ভারতের উলফার সামরিক কমাণ্ডার নেতা পরেশ বড়ুয়া, সাবেক সচিব নুরুল আমিন ও  অস্ত্রবহনকারী বোর্ট মালিক আব্দুস সোবহান।

রায়ের পর পরই ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত ১৪ জনকে অন্য আসামিদের থেকে আলাদা করা হয়। রায়ের পর বিচারক এজলাস থেকে নেমে যান।ফাঁসির আসামিদেরকে আদালত কক্ষ থেকে কারাগারের নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বেলা সোয়া ১২ টা থেকে রায় পড়া শুরু হয় এবং বেলা ১২ টা ৫০ মিনিটে রায় পড়া শেষ করেন আদালত । এর আগে সকাল সাড়ে ১১টায় সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াতের নেতা মতিউর রহমান নিজামীসহ ১১ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। তাদেরকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে আদালতে আনা হয়। চট্টগ্রাম বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এস এম মজিবুর রহমান এই চাঞ্চল্যকর মামলার রায় পড়ছেন।

রায়কে ঘিরে আদালত চত্বরে নেয়া হয়েছে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পুলিশের পাশাপাশি অন্যান্য বাহিনীর সদস্যদেরকেও নিরাপত্তার কাজে নিয়োজিত করা হয়েছে। চোরাচালান মামলায় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদ- এবং অস্ত্র আইনে সর্বোচ্চ যাবজ্জীবন সাজার বিধান রয়েছে। আদালত ভবন ও তার আশে পাশ এলাকায় সাধারণ জনগণের চলাচল সীমিত করা হয়। আদালতে যারা আসছেন, তাদের ঢুকতে দেয়া হয় তল্লাশি করা হচ্ছে।

নিজামী, বাবর এবং রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইর সাবেক দুই প্রধানসহ মোট ৫২ জন অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় দায়ের দুই মামলার আসামি। তাদের মধ্যে ২৯ জন জামিনে আছেন, পলাতক রয়েছেন ১২ জন।

এরআগে, বুধবার মামলার আসামি সাবেক শিল্পমন্ত্রী ও জামায়াতের নেতা মতিউর রহমান নিজামী এবং সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবরকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে নেয়া হয। সন্ধ্যা ৭টা ৫ মিনিটে তাদের বহনকারী দুইটি মাইক্রোবাস কড়া নিরাপত্তায় চট্টগ্রাম কারাগারে পৌঁছায়।

এদিকে রায়কে ঘিরে আদালত ভবন, কারাগার ও বিচারকের বাসভবনসহ নগরের গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে প্রায় ছয়শ’ পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে বলে পুলিশ জানায়।

রায়কে কেন্দ্র করে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ (সিএমপি)। সংশ্লিষ্ট মামলার বিচারক মহানগর দায়রা জজ এস এম মুজিবুর রহমানের আদালত ও বাসভবনে নেয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা।

পুলিশ জানিয়েছে, রাত-দিন ২৪ ঘণ্টার এ নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত বহাল থাকবে। মঙ্গলবার মামলার বিচারক মহানগর দায়রা জজ এস এম মুজিবুর রহমানের বাসভবনের সামনে গিয়ে দেখা গেছে, সেখানে সশস্ত্র ১০ জন পুলিশ সদস্য সতর্ক অবস্থায় দায়িত্ব পালন করছেন।

নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (কোর্ট) মোহাম্মদ রেজাউল মাসুদ জানিয়েছেন, ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার বিচারকের আদালত ও বাসভবনে দুই শিফটে ১০ জন করে ২০ জন পুলিশ সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া বিচারকের চলাচলের সময়ও পুলিশি স্কট বাড়ানো হয়েছে। কড়া পুলিশি নজরদারিতে রয়েছে বিচারকের বাসভবন।

পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার রায়কে কেন্দ্র করে বিচারকের কক্ষ, আশপাশের এলাকা ও পাঁচলাইশ থানা সংলগ্ন বিচারকের বাসভবনে কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিতে কোর্ট পুলিশ ও মহানগর পুলিশের জরুরি সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।বিচারকের বাসভবনে নিরাপত্তার ব্যাপারে জানা গেছে, এই বাসার নিয়মিত সিকিউরিটি গার্ড ও গানম্যানের পাশাপাশি পাঁচলাইশ থানা পুলিশের মোবাইল টিম সার্বক্ষণিক বাসাটি নজরদারিতে রাখছে। বাসার সামনে-পেছনে ১০ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছেন ২৪ ঘণ্টা।

প্রায় ১০ বছর পর সর্বশেষ গত ১৩ জানুয়ারি শুনানি শেষে চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ ও বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক এস এম মজিবুর রহমান আগামী ৩০ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন।

২০০৪ সালের ১ এপ্রিল বিসিআইসির সার কারখানা চিটাগং ইউরিয়া ফার্টিলাইজার লিমিটেড (সিইউএফএল) জেটিঘাটে ১০ ট্রাক অস্ত্রের চালানটি ধরা পড়ে। এ ঘটনায় কর্ণফুলী থানায় অস্ত্র আইনে ও চোরাচালানের অভিযোগে দুইটি মামলা হয়।

মামলা দুইটির সাক্ষ্যগ্রহণ চলাকালে বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে রাষ্ট্রপক্ষের তৎকালীন আইনজীবী মহানগর পিপি আহসানুল হক হেনার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে অধিকতর তদন্তের আদেশ দেন আদালত।

সাড়ে তিন বছর তদন্তের পর ২০১১ সালের ২৬ জুন নতুনভাবে আরো ১১ আসামির নাম অন্তর্ভুক্ত করে আদালতে ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলার সম্পূরক অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন গোয়েন্দা পুলিশের (সিআইডি) চট্টগ্রাম অঞ্চলের তৎকালীন এএসপি মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান চৌধুরী।

একই বছরের ১৫ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগ (চার্জ) গঠন করা হয়। ২০১১ সালের ২৯ নভেম্বর থেকে সাক্ষ্য গ্রহণের মধ্য দিয়ে এ মামলার বিচারকাজ শুরু হয়। এ মামলায় অতিরিক্ত তদন্তকারী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান চৌধুরীসহ ৩০ জন সাক্ষী আদালতে সাক্ষ্য দেন।

মামলার আসামিদের মধ্যে হাজতে থাকা হাইপ্রোফাইল ১১ আসামি হচ্ছেন-জামায়াত নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামী, সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা এনএসআইয়ের তৎকালীন মহাপরিচালক অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুর রহিম, সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা ডিজিএফআইয়ের তৎকালীন পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল রেজ্জাকুল হায়দার চৌধুরী, এনএসআইয়ের সাবেক পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত উইং কমান্ডার সাহাবুদ্দিন, উপ-পরিচালক অবসরপ্রাপ্ত মেজর লিয়াকত হোসেন, ফিল্ড অফিসার আকবর হোসেন খান, রাষ্ট্রায়ত্ত সার কারখানা সিইউএফএলের সাবেক এমডি মোহসীন তালুকদার, সাবেক মহাব্যবস্থাপক এনামুল হক, ট্রলার মালিক দীন মোহাম্মদ ও চোরাচালানি হিসেবে অভিযুক্ত হাফিজুর রহমান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ