• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৬ পূর্বাহ্ন |

ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী: প্রতারনার ফাঁদে ভিক্ষুক

Badarganj photo 01s, - Copyসারোয়ার আলম সুমন, বদরগঞ্জ (রংপুর): রংপুরের বদরগঞ্জে ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীর এক মাঠকর্মী অসহায় এক পঙ্গু ভিক্ষুককে বীমার ফাঁদে ফেলে ৪ হাজার টাকা আত্মসাত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই ভিক্ষুকের নাম ফেরদৌস আলী (৪০)। ভুক্তভোগী ফেরদৌস আলীর অভিযোগ, মাঠকর্মী দুলুমিয়া ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সে ১ লাখ টাকার বীমা খোলার প্রলোভন দেখিয়ে ওই টাকা আত্মসাত করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে বদরগঞ্জ পৌরশহরের জিতেন দত্ত বিজয় মঞ্চ সংলগ্ন ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সে লিমিটেড।
শুক্রবার সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার পৌরশহরের ফেচকিপাড়া মহল্লার মৃত্যু মফিল উদ্দিনের ছেলে ফেরদৌস আলী তার অভিশপ্ত পঙ্গুত্ব জীবনের হুইল চেয়ার ঠেলে ভিক্ষাবৃত্তী করে কোন রকমে সন্তানদের নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছে। গত কয়েক বছর আগে একই উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নের কালজানি পাইটকা পাড়া গ্রামের মৃত্যু লোকমান আলীর ছেলে দুলুমিয়া ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের মাঠকর্মী পরিচয়ে ভিক্ষুক ফেরদৌসকে বীমা করার প্রলোভন দেখিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে ভিক্ষুক ফেরদৌস তার সন্তানদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে ওই মাঠ কর্মী দুলুমিয়ার কথায় রাজি হয়ে ৪ হাজার টাকা করে ষান্মষিক কিস্তির চুক্তিতে বদরগঞ্জ ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সে ১ লাখ টাকার বীমা খোলেন। ওই মাঠকর্মী ভুক্তভোগী ওই ভিক্ষুেকর প্রথম কিস্তির ৪ হাজার টাকার জমা রশিদ দিলেও দ্বিতীয় কিস্তির ৪ হাজার টাকা ওই প্রতারক সংশ্লিষ্ট অফিসে জমা না দিয়ে নানাভাবে ঘুরাতে থাকে। এর কিছুদিন পর ভুক্তভোগী ভিক্ষুক ফেরদৌস আলী অফিসে খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন ওই মাঠকর্মী দুলুমিয়াকে প্রতারনার দায়ে অফিস কর্তৃপক্ষ তাকে অফিস থেকে বের করে দিয়েছে। পরে ভিক্ষুক ফেরদৌস আলী অফিসকে তার বিষয়টি অবগত করেন। অফিস কর্তৃপক্ষ তার বীমার ব্যাপারে নিশ্চিত করে বলেন তার নামে একটি কিস্তি বাবদ (৪ হাজার) টাকা জমা করেছে ওই প্রতারক দুলুমিয়া। এদিকে ভুক্তভোগী ওই ভিক্ষুক তার ওই আত্মসাত হওয়া টাকা  ফেরত পেতে প্রতারক দুলুমিয়ার বাড়ীতে দিনের পর দিন ধরনা দিলেও এতেও কোন ফল পায়নি ওই ভিক্ষুক। এঘটনায় বীমা গ্রাহকদের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।
এব্যাপারে মাঠকর্মী দুলুমিয়ার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে, দেখা না পাওয়ায়  তার মন্তব্য পাওয়া যায়নি। পঙ্গু ওই ভিক্ষুক ও তার পরিবারের লোকজনরা সিসি নিউজ’র এ প্রতিবেদককে বলেন, বাবা খায়া না খায়া বড় আশা করি ছইলের ঘরের (সন্তানদের) জন্যে টাকা যোগাড় করছুনু(করেছিলাম) বীমা খুললে হামার ভাগ্য খুলি যাইবে। বীমা খুলবার যায়া হামরা আরো মইনো(মরলাম)। হামার গরীবের বিচার আল্লা ছাড়া ক্যাও করবেন ন্যায়। এই কথাগুলো বলতে ভিক্ষুক ফেরদৌস কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে।
বদরগঞ্জ ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের অফিস ইনচার্জ হাছিনুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। ঘটনাটি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ