• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩৪ অপরাহ্ন |

শীতে লেট ব্রাইট রোগে আক্রান্ত আলুক্ষেত

Aluসিসি নিউজ: নীলফামারীতে শীতের প্রকোপ বৃদ্ধি ও ঘন কুয়াশার কারণে জেলার বেশীরভাগ আলু ক্ষেতে দেখা দিয়েছে লেট ব্রাইট রোগ। গত দুই সপ্তাহের ব্যবধানে জেলার কয়েকশ’ একর জমিতে লেট ব্রাইট রোগ ছড়িয়ে পড়েছে। আলু গাছের পাতায় ফোসকা দেখা দেয়ার পরই সব গাছ পুড়ে যাওয়ার মতো হয়ে মরে যাচ্ছে। এছাড়া হিমাগারগুলোতে প্রচুর আলু থাকায় বাজারে নতুন আলুর দাম অনেক কম। এমনি নানা কারনে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে আলু চাষীরা। আলু গাছ ভালো গজিয়ে উঠলেও কৃষকের মুখের হাসি কেড়ে নিয়েছে লেট ব্রাইট রোগ। উত্তরাঞ্চলের এ জেলায় অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর কোল্ড ইনজুরির প্রকোপ বেশী দেখা দিয়েছে। এতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। কোল্ড ইনজুরি রুখতে কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ অনুসরণ, হলুদ পাতার রঙ স্বাভাবিক করতে রাসায়নিক সার প্রয়োগসহ নানা চেষ্টার পরও শেষ রক্ষা হচ্ছে না। আলু ক্ষেতে লেট ব্রাইট রোগের প্রকোপ প্রকটভাবে দেখা দেয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে আলু চাষীরা। তবে এ অবস্থায় উদ্বিগ্ন নন কৃষি বিভাগের কর্মকর্তারা। তবে মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তারা পর্যাপ্ত সহযোগীতা করছেন না বলে অভিযোগও রয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে এ তথ্য জানা গেছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্র মতে, চলতি মৌসুমে জেলায় ২১ হাজার ৮৯৫ হেক্টর জমিতে আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। আবহাওয়া অফিসের দেয়া তথ্যমতে, জানুয়ারী মাসের প্রথম দেড় সপ্তাহ থেকে নীলফামারীসহ উত্তরাঞ্চলে শৈত্যপ্রবাহ শুরু হয়। সন্ধ্যা থেকেই ঘন কুয়াশায় ঢাকা পড়ছে এ অঞ্চল। সে সব সপ্তাহে সর্বোচ্চ ১৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বনিম্ন ০৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ছিল তাপমাত্রা। জেলার ডোমার উপজেলার আলু চাষী খন্দকার মঞ্জুরুল হক আলমগীর জানান, আলু ক্ষেতে লেট ব্রাইট রোগ দেখা দিয়েছে। ফসল নষ্ট হলেও কৃষি কর্মকর্তারা সহযোগীতা করছেন না এবং শীতে আলু ক্ষেতের ক্ষতি হলেও কৃষি বিভাগের লোকজ দের খুজে পাচ্ছে না কৃষক। তাছাড়া যে সব কীটনাশকে রোগ সারার কথা সেসব কীটনাশক উপরি প্রয়োগেও কোন ফল হচ্ছে না বলে অভিযোগ কৃষকের। কিশোরগঞ্জ উপজেলার আলু চাষী জহির জানান, আলু ক্ষেতে লেট ব্রাইট ও পচন রোগ দেখা দিয়েছে। বার বার ওষুধ দেয়া সত্ত্বেও পচন ঠেকানো যাচ্ছে না। মাঠ পর্যায়ের কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শ অনুযায়ী কীটনাশক দিয়েও আলুর ক্ষেত রক্ষা হচ্ছে না। ফসল রক্ষায় তারা নিয়মিত প্রতিষেধক ব্যবহার করছেন। নীলফামারী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক এসএম সিরাজুল ইসলাম লেট ব্রাইটের জন্য বিরোধী দলের হরতাল অবরোধকে দায়ী করে জানান, ওই সময়ে লোকজন বের হতে না পারায় এ রোগের প্রদুর্ভাব ঘটে তবে এখন কোন রোগ নেই বলে তিনি দাবী করেন। জেলার সকল এলাকায় তাদের লোকজন আছে এবং তারা নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছেন বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ