• রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০৩ পূর্বাহ্ন |

নতুন করে জীবন শুরু করতে চান সেই নির্যাতিতা

nirjaton-4সিসি ডেস্ক: মন পড়ে আছে গাঁয়ে৷ তাই প্রশাসন হোমে ঠাঁই দিলেও বাড়িতে ফিরতে চাইছেন ভারতের লাভপুরের সেই গণধর্ষণের শিকার নির্যাতিতা৷ সরকারি আধিকারিকরা তাঁকে হোমে থেকে পড়াশোনা ও হাতের কাজ শিখে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য উত্‍সাহিত করলেও প্রশাসনের গড়ে দেওয়া নতুন বাড়িতে বাবা-মা, দাদা-বৌদিদের নিয়ে বেশি আগ্রহ প্রকাশ করছেন তিনি৷ ফের একবার নতুন করে শুরু করতে চান জীবন৷

শুক্রবারই তাঁকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে সিউড়ি সদর হাসপাতাল থেকে৷ কিন্ত্ত বাড়ি ফেরানোর বদলে প্রশাসনের নজরদারিতে তাঁকে ও তাঁর মাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে স্থানীয় একটি হোমে৷ তাঁকে গণধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে বীরভূমের জেলা বিচারকের রিপোর্ট সন্ত্তষ্ট করতে পারেনি সুপ্রিম কোর্টকে৷ তাই এ দিনই রাজ্যের মুখ্যসচিবের রিপোর্ট তলব করার নির্দেশ দিয়েছে প্রধান বিচারপতি সদাশিবম৷

জেলা বিচারকের রিপোর্টে সুপ্রিম কোর্টের অসন্ত্তষ্টির কারণ, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পুলিশি ব্যবস্থার উল্লেখ না থাকা৷ তাই পুলিশ ওই ঘটনায় কী করেছে, জানতে রাজ্যের মুখ্যসচিবকে ১৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলেছেন প্রধান বিচারপতি৷ তিনি আদালতে বলেন, ‘এই মামলায় অতিরিক্ত সলিসিটার জেনারেল সিদ্ধার্থ লুথরা আদালতকে সাহায্য করবেন৷ তাই জেলা বিচারকের রিপোর্ট তাঁর কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে৷ মুখ্যসচিবের রিপোর্টও তিনি দেখবেন৷’

গত ২৪ জানুয়ারি প্রধান বিচারপতির বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে লাভপুরে আদিবাসী তরুণীর গণধর্ষিতার হওয়ার অভিযোগ খতিয়ে দেখতে বীরভূমের জেলা বিচারককে ঘটনাস্থল ঘুরে রিপোর্ট দিতে বলেছিল৷

প্রধান বিচারপতি সদাশিবম শুক্রবার বলেন, ‘বীরভূমের জেলা বিচারক ও সিজেএম ঘটনাস্থলে গিয়ে তদন্ত করে রিপোর্ট পাঠিয়েছেন৷ কিন্ত্ত সেই রিপোর্টে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে পুলিশ কী ব্যবস্থা নিয়েছে, সে সম্পর্কে কোনও কথা নেই৷ তাই আমরা রেজিস্ট্রারকে বলছি, তিনি যেন মুখ্যসচিবকে এ ব্যাপারে রিপোর্ট দিতে বলেন৷ জেলা বিচারকের রিপোর্টও মুখ্যসচিবের কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে৷’ এই রিপোর্ট আসার পর পরবর্তী সিদ্ধান্ত তিনি নেবেন বলে জানান৷ প্রধান বিচারপতি ছাড়াও ওই বেঞ্চে আছেন বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি এমওয়াই ইকবাল৷

নয় দিন পর শুক্রবার লাভপুরের নির্যাতিতা তরুণীকে সুস্থ বলে ছুটি দিয়েছে সিউড়ি সদর হাসপাতাল৷ বৃহস্পতিবার সন্ধেয় পুলিশ ও প্রশাসনকে তাঁকে ছেড়ে দেওয়ার কথা আগাম জানিয়ে দেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ৷ সেই মতো সিউড়ির চাঁদনিপাড়ার স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা পরিচালিত একটি হোমকে আগে থেকেই প্রস্ত্তত থাকতে বলা হয়েছিল৷ এ দিন সকাল সাড়ে সাতটা নাগাদ কড়া পুলিশ পাহারায় তরুণী এবং তাঁর মাকে হোমে নেওয়া হয়৷

যে ঘরে তরুণীকে রাখা হয়েছে, সেখানে সর্বক্ষণ পাহারায় রয়েছেন দু’জন মহিলা পুলিশ৷ বাইরেও সশস্ত্র পুলিশ পাহারা বসানো হয়েছে৷ সামনের রাস্তায় কাউকে দাঁড়াতে দেওয়া হচ্ছে না৷ হোমে যাওয়ার পর প্রথমেই মা-মেয়েকে প্রাতরাশ করতে দেওয়া হয়৷

হোম সূত্রের খবর, স্নান সেরে প্রশাসনের দেওয়া নতুন জামা-কাপড় পড়ে গঙ্গাজল চান দু’জনে৷ হাসপাতাল থেকে ফিরেছেন৷ গঙ্গাজল ছিটিয়ে শুদ্ধ হতে হবে যে! এর পর রোদ পোহাতে ছাদে যান মা-মেয়ে৷ সেখানেও ছিল কড়া পুলিশ পাহারা৷

হোমে পৌঁছনোর পর কিছুক্ষণ পর থেকে ফোনে দফায় দফায় তরুণীর খোঁজ নেন শিশু ও নারীকল্যাণ মন্ত্রী শশী পাঁজা৷ তাঁর সঙ্গে কথাও বলেন মন্ত্রী৷ হোমকর্তাদের নির্দেশ দেন, তাঁর যত্ন নিতে৷ তাঁর চাহিদার দিকে খেয়াল রাখতে বলা হয়৷ বেলা বাড়তেই প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্তারা হোমে পৌঁছে যান৷ তার পর শুরু হয় তরুণীকে বোঝানোর পালা৷ হোমে থাকার সুযোগ-সুবিধা সম্পর্কে তাঁকে বোঝানো হয়৷

বলা হয়, এখানে থেকে পড়াশোনা করে হাতের কাজ শিখে নিজের পায়ে দাঁড়াতে পারেন তিনি৷ হোম সূত্রে জানা গিয়েছে, কিন্ত্ত তরুণী তাঁদের স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দেন, ‘আমি গ্রামে ফিরতে চাই৷ যেখানে আমাদের বাড়ি হচ্ছে, সেখানেই মা-দাদা-বৌদিদের সঙ্গে থাকতে চাই৷’

সিউড়ি সদর হাসপাতালের সুপার অসিত বিশ্বাস বলেন, ‘মেয়েটি খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠছে৷ মেডিক্যাল বোর্ড সুস্থ ঘোষণা করায়, তাঁকে আমরা ছুটি দিয়েছি৷’ বীরভূমের পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া বলেন, ‘মেয়েটিকে হোমে পাঠানো হয়েছে৷ এর পর ওঁর ইচ্ছা এবং নিরাপত্তার দিকটি খতিয়ে দেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ