• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:০৬ পূর্বাহ্ন |

গয়েশ্বর-আমানের দ্বন্দ্বের অবসান!

64709_1সিসি নিউজ: বিএনপির দুই প্রভাবশালী নেতা স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমানের মধ্যে চলা দ্বন্দ্বের অবসান ঘটেছে প্রায় এক যুগ পর।
কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে গত ২৮ জানুয়ারি সন্ধ্যায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। ওই সভায় মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি আ. মান্নান ও সাধারণ সম্পাদক আমান উল্লাহ আমানের উপস্থিতিতে দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা বিএনপির আহ্বায়ক মো. নাজিম উদ্দিন মাস্টারকে বিএনপির একক দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়। এর পর থেকে কেরানীগঞ্জের শীর্ষ জাতীয় দুই নেতার মধ্যকার দ্বন্দ্বের অবসান শুরু হয়।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকা-২ ও ঢাকা-৩ নির্বাচনী এলাকার বিএনপির বেশ কয়েকজন নেতা-কর্মী ও সমর্থক জানান, ২০০১ সালের জাতীয় নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আমান ও গয়েশ্বরের মধ্যে দ্বন্দ্ব শুরু হয়। তখন বিএনপি ক্ষমতায় যাওয়ার পর কেরানীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন সভা-সমাবেশ ও দলীয় কর্মকাণ্ডে তাঁরা পৃথকভাবে অংশ নেন। এমনকি পরবর্তী সময় বিরোধী দল হিসেবে বিএনপির সরকারবিরোধী আন্দোলনের কর্মসূচিগুলোতেও তাঁরা পৃথকভাবে সভা-সমাবেশ করে আসছিলেন। এতে দলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে দলীয় কর্মকাণ্ড নিয়ে তেমন উত্সাহ-উদ্দীপনা ছিল না। বিভক্তি দেখা দেয় বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মধ্যে। দলীয় নেতা নির্বাচনে ও কমিটি গঠনের ক্ষেত্রেও কেরানীগঞ্জের প্রভাবশালী দুই নেতার পৃথক ক্ষমতার প্রভাবে থানা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড ও তৃণমূল পর্যায়ে নেতা-কর্মীদের মধ্যে দ্বিমত ও কোন্দল বিরাজ করছিল।
দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আবু সেলিম চৌধুরী বলেন, ‘আমাদের নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ও আমান উল্লাহ আমান উপজেলা নির্বাচনে নাজিম উদ্দিন মাস্টারকে দলীয় একক প্রার্থী মনোনীত করায় আমাদের নেতা-কর্মীদের মাঝে উদ্দীপনার সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে দুই নেতা কেরানীগঞ্জের দলীয় কর্মকাণ্ডসহ সরকারবিরোধী আন্দোলনগুলোতে পৃথকভাবে অংশগ্রহণ করছিলেন। উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাঁরা নিজেরা একত্রে দলের পক্ষে কাজ করার অঙ্গীকার করলে কেরানীগঞ্জের বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের মধ্যে শক্তি সঞ্চার হয়েছে। আগামী দিনে সরকারবিরোধী আন্দোলনগুলোতে আরও শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে পারব।’
কেরানীগঞ্জ মডেল থানা বিএনপির আহ্বায়ক শরীফ মো. মহিউদ্দিন বলেন, আমান ও গয়েশ্বর এক কাতারে দাঁড়ানোয় জাতীয় রাজনীতিতে নতুন মেরুকরণে প্রভাব ফেলবে।
এ ব্যাপারে আমান উল্লাহ আমান বলেন, ‘আমরা একই আদর্শে, একই নীতিতে ও একই নেতৃত্বে বিশ্বাসী। আমাদের মধ্যে আদর্শগত কোনো তফাত নেই এবং কোনো দ্বিমত নেই।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা একসাথে রাজনীতি করেছি, একসাথে মামলা খেয়েছি, আবার একসাথে জেলও খেটেছি। একদলীয় শাসন থেকে দেশকে মুক্ত করতে আগেও একসঙ্গে ছিলাম, এখনো আছি, ভবিষ্যতেও থাকব।’
গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘আমাদের উপজেলা নির্বাচন এলাকাটি দুইটি জাতীয় নির্বাচনী আসনে বিভক্ত। আমরা দুজন একত্রে এই নির্বাচন তদারকি করব। আনুষ্ঠানিকভাবে আমরা কখনোই কোনো জনসভায় একে অপরের বিরুদ্ধে কোনো কথা বলিনি। আমাদের মধ্যে আগেও কোনো কোন্দল ছিল না, এখনো নাই।’ দলের স্বার্থে তাঁরা অতীতে যেমন একসঙ্গে কাজ করেছেন, আগামী দিনেও করবেন বলে তিনি জানান।
উৎসঃ   প্রথমআলো


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ