• বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৫২ অপরাহ্ন |

পাঁচ বছরে কোনো বড় প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়নি

1111সিসি ডেস্ক: সরকারের গত মেয়াদে নেয়া বড় বড় প্রকল্পের একটিও বাস্তবায়িত হয়নি। তবে দ্বিতীয় মেয়াদে দায়িত্ব নেয়ার পর পরই জনগণের আস্থা অর্জনে ওইসব প্রকল্প বাস্তবায়নে নড়েচড়ে বসেছে সরকার। এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে কৌশল নির্ধারণে ইতিমধ্যেই সরকারের উচ্চ পর্যায়ে বৈঠকও সম্পন্ন হয়েছে। বৈঠক থেকে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নেয়া পদ্মা বহুমুখী সেতু, মেট্রো রেল, এশিয়ান হাইওয়েসহ অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের নেয়া আরও কয়েকটি প্রকল্প অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দ্রুত বাস্তবায়নের নির্দেশ দেয়া হয়।
সূত্র জানায়, গত মেয়াদে নেয়া এসব বড় প্রকল্প বর্তমান মেয়াদে দ্রুত শেষ করাই সরকারের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। সরকারের ইমেজ বাড়াতে এবং জনগণের আস্থা অর্জনে এসব প্রকল্প দ্রুত শেষ করার পক্ষে একমত প্রধানমন্ত্রীসহ সরকারের নীতিনির্ধারণী মহলও। এসব বড় বড় প্রকল্প ফার্¯¡ ট্র্যাক ঘোষণা করে তা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ফার্স্ট ট্র্যাক মনিটরিং কমিটি। সাচিবিক দায়িত্ব দেয়া হয় ইআরডিকে। সম্প্রতি মেগা প্রকল্পগুলো ফার্স্ট ট্র্যাক প্রকল্প হিসেবে ঘোষণা করে তা দ্রুত বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে সংশ্লিষ্টদের। প্রকল্পগুলো হচ্ছে- পদ্মা সেতু, মেট্রো রেল প্রকল্প, এশিয়ান হাইওয়ে প্রকল্প, সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর, এলএনজি টার্মিনাল, কয়লাভিত্তিক বড় বিদ্যুৎ কেন্দ্র ও রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র। ফলে জনগুরুত্বপূর্ণ ও দেশের অর্থনীতির জন্য গুরুত্বপূর্ণ এসব প্রকল্পের বাস্তবায়ন দ্রুত হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
ফার্স্ট ট্র্যাকে অন্তর্ভুক্ত যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের নেয়া পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্প সম্পর্কে বৈঠকে জানানো হয়, প্রকল্প এলাকায় নদীভাঙন ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। ফলে মাওয়া ঘাটকে জরুরিভিত্তিতে সরিয়ে নেয়া প্রয়োজন। এছাড়া পদ্মা সেতু নিয়ে বিশ্বব্যাংক যে নকশা তৈরি করেছিল তাও সঠিক হয়নি। কারণ পদ্মার আচরণ সম্পর্কে তাদের কোনো ধারণা ছিল না। পদ্মা সেতুর মূল প্রকল্পে তিনটি কোম্পানি দরপত্র জমা দিয়েছে। বর্তমানে দরপত্র মূল্যায়ন চলছে। চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যেই সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার কোম্পানিকে কার্যাদেশ দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে বৈঠকে জানানো হয়। বৈঠকে মাওয়া ঘাট কান্দিপাড়ায় স্থানান্তরের বিষয়ে আলোচনা হয়। মেট্রো রেল সম্পর্কে বৈঠকে জানানো হয়- চূড়ান্ত নকশা ও গতিপথ নির্ধারণেই অনেক সময় চলে গেছে। নকশা প্রণয়ন শেষের দিকে। প্রকল্পটির অনুকূলে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। তবে প্রকল্পের মেয়াদ বেড়ে যাওয়ায় ব্যয়ও বেড়েছে। এজন্য সরকারের তহবিল থেকে অতিরিক্ত সাড়ে পাঁচ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিতে হবে।
সূত্র জানায়, ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করতে হলে সরকারি বিনিয়োগ পরিকল্পনার যথাযথ বাস্তবায়ন জরুরি। কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে প্রকল্প দলিল প্রণয়ন, অনুমোদন, জমি অধিগ্রহণ, অর্থায়ন, পরিবেশসংক্রান্ত অনুমোদন ও কারিগরি জটিলতায় প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হয়। এসব জনগুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পের বাস্তবায়ন দ্রুত প্রয়োজন। এ অবস্থায় বিশেষ নজরদারি বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই বলেই ফার্স্ট ট্র্যাক মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে প্রস্তাবে বলা হয়েছে। কমিটির কার্যপরিধির ক্ষেত্রে বলা হয়েছে, ফার্স্ট ট্র্যাক প্রকল্প চিহ্নিতকরণ, সমস্যা চিহ্নিতকরণ এবং সমস্যা সমাধানে মাঝে মাঝে বৈঠক করারও সিদ্ধান্ত হয়।
জাতীয় অর্থনীতির কথা বিবেচনা করে ২৮ হাজার ৪০৯ কোটি টাকার ১৫টি মেগা প্রকল্প হাতে নেয় সরকার। কয়েক বছর কেটে গেলেও এসব প্রকল্পের কাক্সিক্ষত বাস্তবায়ন হয়নি। সম্প্রতি প্রকল্প পরিচালকসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের তলব করে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়। বড় প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়নের ওপরই নির্ভর করে সার্বিক বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন। তাই প্রকল্প পরিচালকদের ডেকে বাস্তবায়ন সংক্রান্ত সমস্যাগুলোর পর্যালোচনা করা হয়েছিল। ফার্স্ট ট্র্যাকে নতুন আর কোনো প্রকল্প অন্তর্ভুক্ত করা হবে না বলে ইআরডি সূত্র জানিয়েছে।

উৎসঃ   যুগান্তর


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ