• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:২২ অপরাহ্ন |

সৈয়দপুরে রোটা ভাইরাসের সহস্রাধিক শিশু আক্রান্ত

Photo Rota Virus, 3.2.14 - Copyসিসি নিউজ: শীতের শেষে হিমালয় পাদদেশীয় অঞ্চল নীলফামারীর সৈয়দপুরে এখন বইছে শীতল আবহাওয়া। দিনের অর্ধেক সময় সূর্য দেখা না মিললেও তাপমাত্রা তেমন কমেনি। তবে একটানা ঠান্ডা বাতাসের কারণে এ জনপদে ছড়িয়ে পড়েছে রোটা ভাইরাস জীবাণু। এটি পানিবাহিত হলেও বর্তমানে এ ভাইরাসের কবলে পড়ে সহস্রাধিক নবজাতক ও শিশু এখন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে বিভিন্ন চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন রয়েছে। আর ৩ থেকে ৫ দিনেও আরোগ্য না মেলায় আক্রান্তদের নিয়ে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছে। তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভয়ের কিছু নেই। পর্যাপ্ত যত্ন ও নির্দেশিত চিকিৎসা নিয়মিত হলে ৫ থেকে ৭ দিনেই এ ভাইরাসের প্রকোপ সেরে যায়। পাশাপাশি এর তীব্রতা বাড়লে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করাতে হবে।
সৈয়দপুর বিমানবন্দর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, গত ১০ দিন ধরে এ উপজেলার তাপমাত্রা সর্বোচ্চ ৯-১০ ডিগ্রির মধ্যে উঠানামা করছে। দিনে ও রাতে হিমেল হাওয়া আর শেষ বিকেলে সূর্যের দেখা গেলেও সে সূর্যের তাপের উত্তাপ নেই। তবে শীতের এ শেষ সময়ে কোন ধরনের বিপর্যয়ের আশংকা নেই বলে জানান এ আবহওিয়া অধিদপ্তরের ইনচার্জ মো. আসাদুজ্জামান। তাপমাত্রার এ পরিমাপকে সংশ্লিষ্টরা স্বাভাবিক মনে করলেও একটানা ঠান্ডা বাতাসের কারণে রোটা ভাইরাসের কবলে পড়েছে এ জনপদের শিশু ও নবজাতক। সোমবার উপজেলার ৫ ইউনিয়নের কমিউনিটি ক্লিনিকসহ হাট বাজারের চিকিৎসা কেন্দ্রে দেখা যায় এ ভাইরাসে আক্রান্তদের উপচেপড়া ভিড়। এ সকল কমিউনিটি ক্লিনিকে স্বাস্থ্য পরিদর্শিকারা জানান, এ ভাইরাসে আক্রান্তদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার পরই সদর হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হচ্ছে। অনেকে সুস্থ্য হলেও বেশিরভাগই হাসপাতালমুখি হয়েছে। তবে সামর্থ্যবানরা ছুটছেন শিশু বিশেষজ্ঞদের কাছে।
সোমবার হাসপাতালে গিয়ে কথা হয় রোটা ভাইরাসে আক্রান্ত শিশুর অভিভাবকদের সাথে, তারা জানান ঘন ঘন পাতলা পায়খানা ও বমির কারণে ৩ থেকে ৫ দিন চিকিৎসার পরও সুস্থ্য না হওয়ায় দুশ্চিন্তায় আছি। আজহার ইসলাম জয় নামে এক নবজাতকের অভিভাবক জানান, মাত্র ৩০ দিন বয়সী তার সন্তানকে এ রোগে শিশু বিশেষজ্ঞের চিকিৎসা নেয়ার পরও সুস্থ্য হয়নি। পরে হাসপাতালে ভর্তি হলে একই পরামর্শে চলছে চিকিৎসা। তাই এ নিয়ে দুশ্চিন্তাই আছি। একই অভিযোগ করেন অন্যান্য অভিভাবকরাও। গত ১০ দিনে এ ভাইরাসে আক্রান্ত  হয়ে প্রায় ৪ শতাধিক শিশু বহির্বিভাগে এবং আন্তঃবিভাগে প্রায় আড়াই শতাধিক শিশু ও নবজাতক চিকিৎসা নিয়েছেন। তারা সকলে সুস্থ্য হয়ে ফিরেছেন বলে জানান হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
সৈয়দপুর ১০০ শয্যা হাসপাতালের সিনিয়র মেডিকেল অফিসার ডা. ওয়াসিম বারি জয় জানান, এ ভাইরাসে আক্রান্ত শিশুরা বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা নেয়ার পর ২ থেকে ৩ দিন গত হওয়ার পর মুমূর্ষ অবস্থায় এখানে আসে। তাই অনেক যত্নসহকারে পরীক্ষা নিরীক্ষার পর সিদ্ধান্ত নিয়ে চিকিৎসা দিচ্ছি আমরা। তবে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রাথমিক অবস্থায় এ হাসপাতালে আসলে এর আরোগ্য দ্রুত সম্ভব। এ নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডের সহকারী অধ্যাপক ডা. আবু আহমেদ মর্তুজা জানান, ভয়ের কিছু নেই। এ ভাইরাসে আক্রান্ত শিশুরা সরাসরি হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়া ভাল। বাড়তি যত্ন ও নির্দেশ মত ঔষধের পাশাপাশি খাওয়ার স্যালাইন খাওয়ালে দ্রুত আরোগ্য সম্ভব। তবে যেহেতু শীতল আবহাওয়াজনিত এ ভাইরাসের আবির্ভাব তাই এ আবহাওয়া কেটে গেলে এর প্রকোপ আর থাকবে না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ