• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১০:৫৩ অপরাহ্ন |

১৯৫২ : ঢাকা থেকে দিনাজপুর

।। আবদুল বারি ।।

মাতৃভাষা মানুষের চিন্তার কত বড় ফলপ্রসু Bhasa 21উপাদান- সে কথার উত্তর মহৎরাই দিতে পারেন। আমরা সাধারণ কথায় বলবো- মাতৃভাষায় মানুষ সূক্ষ্ম চিন্তার জন্ম দিতে পারেন, বিশ্লেষণ করতে পারেন। বিজ্ঞানের জটিল মিমাংসা আপন করে ভাবতে পারেন, সাহিত্যে অমৃত ফলন। মাতৃভাষার উপমা উৎপ্রেক্ষা-যমক, শ্লেষ, শব্দের বিশিষ্ট প্রয়োগ, বাগধারা ইত্যাদি যোগে চিন্তাকে মূর্ত করেন। বাচ্যার্থে না হলে বাঙার্থে চিন্তাকে প্রকাশ করেন। বিদেশী ভাষায় চেষ্টা করলেও যে হয়না, তার ইতিহাস তো আমরা মাইকেলের জীবন থেকেই জেনেছি।
“বিজ্ঞ বিশেষজ্ঞ লোকদের কথায় বাংলা ভাষা ছিলো এমন একটি আন্দোলন যা মাতৃভাষা প্রতিষ্ঠার দাবিতে বিশ্বের ইতিহাসে একটি মাত্র সংঘটিত হতে দেখা যায়। বিশেষ করে আন্দোলনটি শুরু হয়েছিলো এমন একটি জাতীয় উত্থান থেকে যা সংঘাত সহিংসতার পথে না গিয়েও বাঙালি জাতির চুড়ান্ত রানৈতিক মুক্তি; আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন ও সাংস্কৃতিক সংকট উত্তরণের পথ রচনা করে। পরাধীনতায় শৃঙ্খলিত জাতি হয়েও মনে উদ্দীপনা জাগায় জাতি সত্ত্বার ও  মুক্তিযুদ্ধের সংগ্রামী চেতনার১।”
মাতৃভাষা মানুষের মানস গঠনের পক্ষে সর্বোত্তম ভূমিকা পালন করে। যারা শৈশব-কৈশোর থেকে দুই বা ততোধিক ভাষার মাঝে বেড়ে ওঠে, আমি তাদের বিষয় জানিনা। তবে যারা মাতৃভাষার মাঝে বেড়ে ওঠে, যারা নিজ নিজ সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে বেড়ে ওঠে, তাদের চিন্তার বিকাশ সাধন হয় দ্রুত এবং উন্নত। উদাহরণ দিয়ে বলা যায়- একজন বাঙালি সন্তানের শৈশব-কৈশোরের অংশটি যদি মাতৃভাষা ও মাতৃসংস্কৃতির মধ্যে বেড়ে ওঠে ও বিকশিত হয়, আর যদি যৌবনে আমেরিকায় অভিবাসন গ্রহণ করে, তবে সে আমেরিকায় দীর্ঘ বসবাসের পরে- এমনকি মৃত্যুর দিনটিতেও স্বপ্ন দেখবে বাংলায়। স্বপ্নের ভাষা হবে বাংলা।
মাতৃভাষা মানুষকে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ করে। একজন অবাঙালি বাংলা জানতে পারেন। অবাঙালির বাংলা জানাটা বাংলা ভাষাভাষির কোন কল্যাণ বয়ে আনতে পারলেও বাঙালির প্রতি, বাংলাদেশের প্রতি, বাংলা সাংস্কৃতির প্রতি সর্বোত ভাবে হৃদয়ের টান অনুভব করে না। বাঙালির রাজনৈতিক ভাগ্যাকাশ, সাংস্কৃতিক শস্যক্ষেত্র কিংবা বাংলাদেশের ভূ-খন্ডে সার্বভৌমত্বের প্রশ্নে একজন বিদেশীর কিবা আসে যায়।
মাতৃভাষার প্রতি কীভাবে যে বিরাগ জন্মে তা আমি জানিনা। সেটা কি বিদেশী ভাষা পঠন-পাঠনের দ্বারা? হতে পারে। কিন্তু আমার মন বলে, বিদেশী ভাষা চর্চার ফলে হৃদয় যদি উন্মুক্ত হয়, চিন্তার পরিধি যদি বৃহৎ হয়, বিশ্বাসীর হৃদয়ের সঙ্গে যদি কোন বাঙালি হৃদয় মিলিত হয়,  আমার বিশ্বাস বাংলা ভাষা, বাংলা সাহিত্য, বাংলা সংস্কৃতির উন্নয়ন, সর্বোপরি বাঙালির গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠার নবজাগ্রিতিকে সাদর সম্ভাষণ না জানিয়ে পারে না।
সাদর সম্ভাষণ না জানিয়ে পারে না, তার কারণ, নিজস্ব সংস্কৃতির প্রতি টান, নিজ জাতির প্রতি টান-ভালবাসা গড়ে ওঠে, মাতৃভাষা ও মাতৃসংস্কৃতিতে বেড়ে ওঠার কারণে। দেশপ্রেম ও দেশের মানুষের প্রতি দীর্ঘদিনের মিলনের, সহবস্থানের আপন সংস্কৃতির পরিমন্ডলে বেড়ে ওঠার মাধ্যমে। অথচ এদেশে জন্ম নিয়ে, এদেশের আবহাওয়ায় লালিত পালিত হয়ে, এদেশের অন্নজলে দেহ গঠন করেও কেন যে এ দেশীয় মানস গড়ে ওঠে না, এই প্রশ্নটি আজ কার কাছে করবো?
১৯৫২ সাল ২১ ফেব্র“য়ারি ঢাকার রাজপথে যখন রক্তগঙ্গার স্রোত বয়ে গেল। বাঙালির সন্তান যখন মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকারের পবিত্র আবেগে বর্বর শাসকের বুলেটের মুখে বুক পেতে দিলেন। ঠিক তার চার দিন পর ২৬ ফেব্র“য়ারি প্রাদেশিক মন্ত্রী পরিষদের সদস্য হাচান আলীর শুভাগমন ঘটল দিনাজপুরে- উদ্দেশ্য, দিনাজপুরের ভাষা বিদ্রোহ দমন করা। অগ্নিগর্ভ দিনাজপুরের উত্তাপ কমাতে ভাষণ দেবেন তিনি। সভাপতিত্ব করবেন মাওলানা আব্দুল্লাহেল বাকী।
মন্ত্রীর শুভাগমনের খবর পেয়ে ছাত্র জনতার বিক্ষোভের অগ্নিশিখায় ঘি পড়লো। তোজা ভাই, ছুটি ভাই, তারা ভাই, মন্টু ভাই প্রমূখ বিপ্লবী ছাত্রদের নেতৃত্বে একটি উৎক্ষিপ্ত তরুণ মিছিল এগিয়ে যায় উত্তর দিকে। সুইহারী পর্যন্ত কালো পতাকা হাতে শহরের প্রবেশ মুখে মন্ত্রী মহোদয়কে কালো অভ্যর্থনা জানাতে। কোনমন্ত্রীকে কালো পতাকায় বিক্ষোভ প্রদর্শন করা তখন সংশ্লিষ্ট সরকারের পক্ষে ভয়ঙ্কর অপমান জনক চ্যালেঞ্জ ছিলো। কিন্তু পরিস্থিতি ও পরিবেশের বিবেচনায় পুলিশ প্রশাসন তা প্রতিহত করার পরিবর্তে নীরব দর্শকের মত দেখেও না দেখার ভান করে এড়িয়ে যায়। দিনাজপুর জেলা বোর্ড প্রাঙ্গণের জনসভায় সভাপতির ভাষণে মাওলানা আব্দুল্লাহেল বাকী মিছিরির ছুরি দিয়ে জবেহ করেছিলেন দিনাজপুরের প্রতিবাদী ছাত্র জনতার কণ্ঠ। তিনি পবিত্র কোরআনের বাণী তেলওয়াত করে জনগণকে তাদের শ্রদ্ধার অনুভূতিতে বরফের প্রলেপ দিয়ে ঘোষণা করেন, “যেখানে পবিত্র কোরআন শরিফের তেলওয়াত হয়, সেখানে কথা বলা গুনাহ”। সভাপতির বক্তব্যে তিনি আরও বলেন, তিনিও দিনাজপুরবাসীর একজন। কিন্তু তাকে বাদ দিয়ে দিনাজপুরের ভাষা আন্দোলন কেন? তিনি কি বাঙালি মায়ের সন্তান নন? বাংলা কি তার মায়ের মুখের ভাষা নয়? তিনি বলেন, দেশের ও জাতির অধিকার আদায়ের দুর্দিনে তিনি কি ইংরেজ বিরোধী আন্দোলন করেন নাই? কংগ্রেস আন্দোলন, খেলাফত আন্দোলন, এমনকি বৃটিশ খেদা আন্দোলনে তার কি কোন অবদান নেই? আর সে সব আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়তে গিয়ে কারগারে নিক্ষিপ্ত হন নাই? বৈদেশিক সরকারের কারাগারে নিষ্ঠুর ভাবে নির্যাতিত হন নাই? আক্ষেপ করে বলেন যে, আব্দুল্লাহেল বাকী ছিলো আপনাদের দরকারে-অদরকারে, আপদে-বিপদে সহায়তা ও সহযোগিতার সঙ্গী-সাথী। সেই বাকীকে বাদ দিয়ে কি করে দিনাজপুরে এই ভাষা আন্দোলন? তাই আপনাদের ডাক না পেয়েও আমি ছুটে এসেছি এবং আপনাদের ভাষা আন্দোলনের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করছি। আপনারা সহিংসতার পথ বন্ধ করুন। আমি চাই রাজনৈতিক সমঝোতার মাধ্যমে সমস্যাটির গ্রহণযোগ্য সামাধান হোক। পূর্ব পাকিস্তানে মুসলিম লীগের সভাপতি ও আইন পরিষদের একজন এমপি হিসেবে আমি আপনাদের এই আশ্বাস দিতে পারি যে, রাষ্ট্রভাষা সমস্যাটি আইন পরিষদের এজেন্ডা হিসেবে উত্থাপিত ও সিদ্ধান্ত নেয়া হোক। আর যদি আমার কথা ব্যর্থ হয়, তাহলে জেনে রাখুন, আমি হব দিনাজপুরের সেই প্রথম ব্যক্তি ভাষার দাবিতে যার বুকের রক্তে দিনাজপুরের রাজপথ হবে প্রথম রক্তরঞ্জিত২।”
মানুষকে কৌশলে বোকা বানাতে সেদিনের শীতলি করণের জনসভাটি সফল হয়েছিলো। অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত মানুষ ভেবেছিলো-সত্য। কিন্তু ধর্মের পবিত্র বাণী উচ্চারণ ও শান্ত্বনার হাত মাথায় বুলিয়ে দিনাজপুরের ভাষা আন্দোলনের পিঠে কুঠারাঘাত করেছিলেন তিনি। সেই আশ্বাসের বাণী বাতকাবাতে পরিণত হয়েছিলো। মুসলিম লীগ ক্ষমতায় থাকাকালীন জাতীয় আইন পরিষদে বাংলাভাষাকে রাষ্ট্রভাষা ঘোষণার নামটি পর্যন্ত উত্থাপিত হয়নি। পবিত্র বাণীকে দালালির কাজে ব্যবহারের জঘন্যতম প্রচেষ্টা করা হয়েছিলো মাত্র।
১৯৪৮ সালে ২১ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে পাকিস্তানের জনক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ক্ষুব্ধ হয়ে উর্দূ ভাষাকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রীয় ভাষা হিসেবে ঘোষণায় বলেন- টৎফঁ ধহফ ড়হষু ঁৎফঁ ংযধষষ নব ঃযব ংঃধঃব ষধহমঁধমব ড়ভ চধশরংঃধহ৩. কিন্তু কী ছিলো তার এবং তাদের উদ্দেশ্য, বাঙালিকে নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি থেকে বিচ্ছিন্ন করে উর্দূতে কথা বলিয়ে পাকিস্তানি সংস্কৃতির অনুসারী করে বাঙালি জাতির উপর চিরদিনের আধিপত্য বজায় রাখা? সাংস্কৃতিক দেউলিয়া একটা জাতিকে চিরদিন দাসের জাতিতে পরিণত করাই ছিলো পাকিস্তানি বেনিয়া গোষ্ঠির মূল উদ্দেশ্য।
সে অসৎ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে স্থূল পদক্ষেপ হাতে নেয় তারা। বেতার, টেলিভিশনে রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করা যাবে না। উচ্চ শিক্ষায় হিন্দু ধর্মীয় বিষয়ঘেষা সাহিত্য কারিকুলাম থেকে বাদ দিতে হবে। অথচ তারা জানতো না যে সমগ্র মধ্যযুগীয় বাংলা সাহিত্যের পৃষ্ঠপোষক ছিলেন মুসলিম শাসকগণ আর লেখক ছিলেন হিন্দু। একটা জাতিকে নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি থেকে আদৌ যে আলাদা করা যায় না। তা প্রাদেশিক মন্ত্রী পরিষদের সদস্য হাচান আলী ও মাওলানা আব্দুল্লাহেল বাকী সাহেবরা কি করে বুঝবেন! এটা বুঝেছিলেন বাংলার আপামর জনসাধারণ। যার প্রেক্ষিতে রাষ্ট্র ভাষা বাংলার দাবিতে সেদিন সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ গঠন করা হয়েছিলো।
১৯৫২ সালে ২৭ জানুয়ারি পল্টন ময়দানে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমদ্দিন আবারো উর্দূকে রাষ্ট্রভাষা ঘোষণা দেন। তিনি তাঁর ভাষণে উর্দূকে রাষ্ট্রভাষা করার সিদ্ধান্ত প্রকাশ করলে মানুষের মনে যে ক্ষোভ এতদিন বাংলা রাষ্ট্রভাষা হিসাবে স্বীকৃতি না পাওয়ায় জমাটবদ্ধ ছিলো তা প্রচন্ড দাবানলের মতো জ্বলে ওঠে৪।
২১ ফেব্র“য়ারিতে ১৪৪ ধারা জারির কারণে ছাত্ররা ছাত্রাবাস থেকে বের হতে পারছিলোনা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের সামনে ছাত্রদের সভায় যোগদানের জন্য মেডিক্যাল কলেজ, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ থেকে ছাত্র জমায়েত হতে থাকে। সে সভায় ১৪৪ ধারা ভাঙ্গ করা হবে কিনা তা নিয়ে মতপার্থক্য দেখা দেয়। অবশেষে দশজন দশজনের গ্র“প করে ছাত্ররা ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে।
ভাষা আন্দোলনের দশজনী মিছিলে প্রথম দলটির নেতৃত্বদেন হাবিবুর রহমান শেলি। দ্বিতীয় দলের নেতৃত্ব দেন আবদুস সামাদ আযাদ ও ইব্রাহিম তোহা, তৃতীয় দলে আনোয়ার হক ও আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ খান এবং ছাত্রীদের ব্যাচে ড. সুফিয়া আহমেদ নেতৃত্ব দেন।
ছাত্রদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ শুরু হয়। ঘটনাস্থলে শহীদ হন দু’জন আহত হন ছিয়ানব্বই জন। সন্ধ্যায় অপারেশন থিয়েটারে আরো দু’জন নিহত হন৫। নিহত হন আবুল বরকত, জব্বার, রফিক উদ্দিন। তাঁরা বুকের তাজা রক্ত দিয়ে সেদিন বুঝিয়ে দিয়েছে যে, একজন বাঙালি শিক্ষিত হয়েও যদি বাংলা ভাষার প্রতি বিরাগ পোষণ করেন, তাহলে সেটা বাংলা ভাষা ও বাঙালির জন্য ভয়ঙ্কর ক্ষতিকর। তা হতে পারে বাংলা ভাষা, বাংলা সংস্কৃতি, বাঙালি জাতি, বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও গণমানুষের স্বার্থের প্রতি চরম শত্র“তা।

তথ্য সূত্রঃ ১. দিনাজপুরের ইতিহাস সমগ্র (পঞ্চম খন্ড) – মেহেরাব আলী। ২. প্রাগুক্ত। ৩. প্রাগুক্ত ৪. ভাষা সৈনিক ডা. সুফিয়া আহমেদ। ৫. দৈনিক নয়া দিগন্ত ১৪ ফেব্র“য়ারি ২০১১।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ