• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৬:২৪ অপরাহ্ন |

‘আপনি যে নম্বরে ফোন করেছেন, তা সঠিক নয়’

Teleতথ্য প্রযুক্তি ডেস্ক: ‘আপনি যে নম্বরে ফোন করেছেন, তা সঠিক নয়’। জরুরি সেবার জন্য নির্ধারিত শর্টকোডে ফোন করলে এই বাক্যটি জানানো হচ্ছে অপর প্রান্ত থেকে। পুলিশ, অ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল, দমকল বাহিনীর সহায়তা চাওয়ার মতো জরুরি সেবার এই নম্বরগুলো ‘টোল ফ্রি’।
কিন্তু চার বছরেও আলোর মুখ দেখেনি জরুরি সহায়তা চাওয়ার ‘টোল ফ্রি’ নম্বর। দফায় দফায় উদ্যোগ নিলেও বাস্তবায়ন হয়নি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির নির্দেশনা। কার্যকর হয়নি জরুরি সেবা পেতে যেকোনো ফোন থেকে বিনামূল্যে ফোন করার নির্ধারিত সাতটি টোল নম্বর। সীমিত আকারে ঢাকার মধ্যে অ্যাপ্লিকেশন-ভিত্তিক সেবা চালু হলেও ফাইলবন্দি পুলিশি সহায়তার নম্বর ১০০। একইভাবে পরিকল্পনা নেয়া হলেও ঝুলে আছে অন্যান্য জরুরি সেবা চাওয়ার শর্টকোড; যেমন-র্যা পিড অ্যাকশন ব্যাটিলিয়নের সাহায্য পেতে নির্ধারিত টোল ফ্রি নম্বর-১০১, দমকলের জন্য ১০২ ও অ্যাম্বুলেন্স সেবার জন্য ১০৩।
আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের (আইটিইউ) নিয়ম মেনে টোল ফ্রি-সুবিধা চালুর জন্য বিটিআরসির পক্ষ থেকে উদ্যোগ নেয়া হলেও তা কার্যকর না হওয়ার বিষয়ে বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন একজন কর্মকর্তা জানান, যাদের টোল ফ্রি নম্বর দেওয়া হয়েছে, তাদের গাফিলতির কারণেই সেবামূলক এ উদ্যোগ ব্যাহত হচ্ছে। নম্বরগুলো সচল করার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানকে বারবার বলা হলেও তেমন সাড়া মিলছে না। টোল ফ্রি নম্বর ব্যাপক হারে চালুর বিষয়ে আরও কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।
২০০৫ সালে দেশের টেলিযোগাযোগ খাতের বিভিন্ন সেবার নম্বর বিন্যাসের বিস্তারিত পরিকল্পনা প্রকাশ করা হয়। এ সময় টোল ফ্রি নম্বর চালুর উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে মোবাইল ফোন অপারেটরদের তিন মাসের মধ্যে টোল ফ্রি সেবা চালু করতে নির্দেশ দেয় বিটিআরসি। এরপর ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন কনজিউমার প্রোটেকশন গাইডলাইনের খসড়ায় এই সুবিধার বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করা হয়।
সরকারি তথ্যসেবা দ্রুত পাওয়ার জন্য আবার টোল ফ্রি নম্বর চালুর উদ্যোগ নেয় বিটিআরসি। সম্প্রতি প্রকাশিত ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন কনজিউমার প্রটেকশন গাইডলাইনের খসড়ায়ও জরুরি টোল ফ্রি নম্বর চালুর বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত করেছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা।
টেলিযোগাযোগ খাতের গ্রাহকস্বার্থ সুরক্ষায় করা খসড়া নীতিমালায় ন্যাশনাল নাম্বারিং প্ল্যান অনুযায়ী আগে নির্ধারিত পাঁচটি থেকে বাড়িয়ে মোট সাত ধরনের জরুরি সেবার টোল ফ্রি নম্বর চালু করতে অপারেটরদের নির্দেশনা দেয়া হয়।
নীতিমালায় পুলিশ, অ্যাম্বুলেন্স, হাসপাতাল, দমকল, উপকূলীয় নিরাপত্তা বাহিনী (কোস্ট গার্ড), সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বর্ডার গার্ড) ও অভিবাসন সম্পর্কিত (ইমিগ্রেশন) জরুরি টোল ফ্রি নম্বর চালু করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে অপারেটরদের দায়িত্ব দেয়া হয়।
কিন্তু এখনো সেই নির্দেশনা আলোর মুখ দেখেনি। ফলে বিভিন্ন অপারেটরের দীর্ঘ নম্বর মনে রেখে বিলের বিনিময়ে ফোন করে সেবা পেতে হচ্ছে নাগরিকদের।
উৎসঃ   নতুনবার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ