• রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন |

ধর্ষিতাকেই গ্রামছাড়া করার হুমকি

Dorson-3 (2)রাজীবপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি: ষষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে অস্ত্রের মুখে ধর্ষণের ১৯ দিন পার হয়ে গেছে। ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্য ও চেয়ারম্যান এত দিন সালিসের আশ্বাস দিয়েছেন। কিন্তু কিছুই হয়নি। এর আগে মামলা করতে যাওয়ার পথ থেকে ফিরে এসেছে নির্যাতিত পরিবার। এখন অভিযুক্তের প্রভাবশালী পরিবার মামলা করলে নির্যাতিতের পরিবারকে গ্রামছাড়া করার হুমকি দিচ্ছে।
এমনকি গত সপ্তাহ ধরে নির্যাতিত পরিবারটিকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। পরিবারের কোনো সদস্যকে বাড়ির বাইরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না। থানায় যাতে অভিযোগ করতে না পারে সে ব্যবস্থাও করেছে অভিযুক্তরা। সরেজমিনে কুড়িগ্রামের রাজীবপুর উপজেলার ওই গ্রামে নির্যাতিত পরিবারটির সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে।
ওই পরিবার জানায়, গত ১৫ জানুয়ারি দিনের বেলায় অস্ত্রের মুখে ছাত্রীকে পাইকানটারি গ্রামের আবু বক্করের ছেলে রিপন মিয়া (২২) নির্যাতন চালায়। ঘটনার পর সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের মহিলা ইউপি সদস্য নরিজা বেগম নির্যাতিতের পরিবারকে বিচারের আশ্বাস দেন। তিনি মেয়েটিকে তাঁর হেফাজতে রাখেন। দুই দিন থাকার পর ইউপি সদস্য বিচার করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ‘আমি তো বিচার দিবারই চাই। কিন্তু ছেলের বাপে মানে না।’
এরপর দায়িত্ব নেন কোদালকাটি ইউপির চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। তিনি পাঁচ দিন চেষ্টা করেও অভিযুক্তের পরিবারকে হাজির করতে পারেননি। পরে তিনি দায়সারাভাবে নির্যাতিতের পরিবারকে থানায় মামলা করতে বলেন। চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ঘটনা সত্য। কিন্তু আমার কথা শোনে না ধর্ষকের পরিবার। আমি অনেক চেষ্টা করেছি। শেষে থানায় মামলা করতে বলেছি তাদের।’
নির্যাতিতের পরিবারটি দরিদ্র। মেয়েটির বাবা কাজের সন্ধানে ঢাকায় গেছে। আর অভিযুক্তের পরিবার প্রভাবশালী। ফলে তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলার সাহস পায় না। মেয়েটির মা বলেন, ‘আমার মাইয়াডাক সর্বনাশ করল। এর বিচার কেউ দিতে পারে না। ঘরের বাইরে গেলে তাগরে লোক আমার সঙ্গে আসে। থানায় যাইতে নিষেধ করে। কয়, থানায় গেলে আমগর গেরামে থাকবার দিব না। মাইয়ার বাপেও বাইত্তে নাই। এহন আমি কটাই যাই, আপনিই কন।’ তিনি আরো বলেন, ‘এদিকে মাইয়াডাও খালি কান্দে। তাকে নিয়া হারাক্ষণ ভয় হয়, কখন যানি গলায় দড়ি দেয়। হারাক্ষণ মাইয়ার কাছেই থাকা নাগে।’
নির্যাতিত মেয়েটি বলে, ‘ওই (রিপন) আমার গলায় চাক্কু ধইরছে। আমার মুখে কাপড়ও দিছিল। থানায় মামলা করতে যাওয়ার সময় পথে নুরুল আমিন মেম্বার আমগর ফেরত আনে।’
গ্রামবাসী মাসুদ মিয়া, মোক্তার আলী, জামিরন নেছা জানান, মেয়েটির চিৎকার শুনে তাঁরা এগিয়ে যান। তাঁরা হাতেনাতে রিপনকে আটক করেন। পরে মহিলা ইউপি সদস্য বিচারের কথা বলে রিপনকে ছাড়িয়ে নেন। রাজীবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জানান এব্যাপারে তারা কিছুই জানে না ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ