• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন |

পুলিশ কর্মকর্তার মেয়ের বাল্যবিয়ে!

Ballo Biaচুয়াডাঙ্গা: দামুড়হুদার দর্শনা তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমানের একমাত্র মেয়ে সুমাইয়া আক্তার কেয়ার বিয়ে আগামী বৃহস্পতিবার। বিয়ে উপলক্ষে দর্শনা তদন্ত কেন্দ্র বর্ণিল আলোকসজ্জায় সজ্জিত করা হয়েছে। পাশাপাশি তৈরি করা হয়েছে বিশালাকার গেট। সম্ভাব্য অতিথিদের দেয়া হয়েছে দাওয়াতও।

তবে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ুয়া কনে সুমাইয়া আক্তারের বয়স নিয়েই শুরু হয়েছে নানা বিতর্ক। পুলিশ কর্মকর্তা বাবা বলছেন, মেয়ে তার সাবালিকা। বয়স ১৮ বছরেরও বেশি। জেলা লোকমোর্চার সভাপতি অ্যাডভোকেট আলমগীর হোসেন বলছেন, পুলিশ কর্মকর্তা নিজেই বিয়ে করেছেন ১৯৯৪ সালের মার্চ মাসে। প্রথম সন্তান হয়েছে তিন থেকে সাড়ে তিন বছর পর। সে হিসেবে মেয়ের বয়স ১৮ বছরের কম। এটা অবশ্যই বাল্যবিয়ে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সুমাইয়া আক্তার কেয়া দর্শনা বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রী। তার বিয়ে ঠিক হয়েছে দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের জিরাট গ্রামের মান্নান হোসেনের ছেলে পুলিশ কনস্টেবল শামিমের সাথে। বিয়ের দিন আগামী বৃহস্পতিবার।

তবে জটিলতা দেখা দিয়েছে সুমাইয়ার বয়স নিয়ে। স্থানীয়রা এ বিয়েকে বাল্যবিয়ে দাবি করছে। আর এ নিয়ে শুধু দর্শনা নয়, পুরো চুয়াডাঙ্গা জেলা জুড়েই শুরু হয়েছে নানা গুঞ্জন। পরে অনেকেই জেলা লোকমোর্চা নেতাদের ফোন করে বিষয়টি জানান।

পুলিশ কর্মকর্তার মেয়ের বাল্যবিয়ের খবর জানার পর সত্যতা যাচাই করতে চুয়াডাঙ্গা জেলা লোকমোর্চার সভাপতি পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সরেজমিন পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকালে মেয়েটির বাবাকে বাল্যবিয়ের বিষয়ে সরকারি নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি মনে করিয়ে দেন তারা। প্রতিনিধিদলে এসময় অন্যদের মধ্যে ছিলেন- জেলা লোকমোর্চার সাধারণ সম্পাদক শাহ আলম সনি, নির্বাহী সদস্য মানিক আকবর, সদর উপজেলা লোকমোর্চার সভাপতি সহিদুল হক বিশ্বাস, দামুড়হুদা উপজেলা লোকমোর্চার সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, জেলা লোকমোর্চার সচিব শাহনাজ পারভীন শান্তি, সাবেক সচিব নুঝাত পারভীন ও সিডিএফএর সমন্বয়কারী আসমা হেনা চুমকী।

এসআই মিজানুর রহমান প্রতিনিধিদলের কাছে তার মেয়ের বয়স ১৮ বছরেরও বেশি বলে দাবি করে জানান, মেয়েটি একসময় মাদরাসায় পড়াশোনা করতো। যে কারণে গত পাঁচবছর সাধারণ পড়াশোনা করতে পারেনি। প্রতিনিধিদলকে খুলনার দীঘলিয়া থানার গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রউফের স্বাক্ষরিত মেয়ের জন্ম সনদ দেখান। সে সনদে গ্রামের বাড়ি ওই ইউনিয়নের মুসলিমডাঙ্গা এবং মেয়ের জন্মতারিখ পহেলা জানুয়ারি ১৯৯৬ খ্রী. দেখানো হয়। জন্মসনদটি গত ১ ফেব্রুয়ারি সংগ্রহ করা।

এ ব্যাপারে জেলা লোকমোর্চার সভাপতি অ্যাডভোকেট আলমগীর হোসেন জানান, দর্শনা পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মিজানুর রহমানের মেয়ের বিয়ে নিয়ে বিতর্ক ওঠাই স্বাভাবিক। কারণ, মিজানুর রহমানের নিজের বর্ণনা অনুযায়ী তিনি নিজে বিয়ে করেছেন ১৯৯৪ সালের মার্চ মাসে। তিন থেকে সাড়ে তিনবছর পর তার প্রথম সন্তানের জন্ম হয়েছে। সে হিসেবে মেয়ের বয়স ১৮ বছরের নিচে। আর ১৮ বছরের নিচে কাউকে বিয়ে দেয়া বর্তমান বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে গ্রহণযোগ্য নয়।

চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার (এসপি) রশিদুল হাসানকেও ওই বিয়ের দাওয়াত দেয়া হয়েছে। দাওয়ার কার্ড নেয়ার সময় এসপি রশিদুলও কনের বয়স জানতে চেয়েছিলেন। সেসময় ওই কর্মকর্তা তার মেয়ের বয়স ১৮ বছরের বেশি বলে দাবি করেছেন।

উৎস: বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ