• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:০৮ অপরাহ্ন |

বদরগঞ্জে সামাজিক বনায়নের ১৭১টি রাস্তার গাছ কর্তন

Badarganj photo-02-04বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি: রংপুরের বদরগঞ্জে নিয়ম-নীতি উপেক্ষা করে ইউপি চেয়ারম্যান ও স্টোক হোল্ডার সমিতির সভাপতি সামাজিক বনায়নের রাস্তার ১৭১টি গাছ কর্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম ও সভাপতি শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে ওই সমিতির সুবিধা বঞ্চিত সাধারণ সদস্যরা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) নিকট লিখিত অভিযোগ করেন। ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের টেক্সেরহাট বানুয়াপাড়া সড়কে ।
অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, সামাজিক বন বিভাগের অধীনে রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের টেক্সেরহাট থেকে বানুয়াপাড়া সড়কের ফলিমারি সেতু পর্যন্ত গত ১৩ বছর আগে ৩০০ ইউক্যালিপটাস গাছের চারা রোপন করা হয়। ওই গাছগুলো পরিচর্যার দায়িত্ব থাকে বানুয়াপাড়া গ্রামের স্টোক হোল্ডার সমিতির উপকার ভোগি সদস্যদের। ওই সমিতির সদস্য সংখ্যা ২০ জন। চারা রোপনের কমপক্ষে ২০ বছর পর গাছগুলি সরকারী নিয়মে টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি হওয়ার কথা ছিল। গাছ বিক্রির শতকরা ২০ভাগ টাকা পাবে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ। বাকি ২০ভাগ পাবে গাছ রোপন করা সড়কের পাশের জমির মালিক এবং ৬০ ভাগ টাকা পাবেন সমিতির সাধারণ সদস্যরা। কিন্তু বানুয়াপাড়া সামাজিক বনায়ন স্টোক হোল্ডার সমিতির সভাপতি শহিদুল হক ও  ইউপি চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম যোগসাজস করে সরকারী নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে সময় সীমার ৭ বছর পূর্বে  টেন্ডার ছাড়াই ১০ লাখ টাকা মূল্যের ১৭১টি ইউক্যালিপটাস জাতের গাছ বিক্রি করেছেন ৩ লাখ ১৪ হাজার টাকায়। এদিকে সমিতির সদস্য ও সড়কের পাশের জমির মালিকদের ওই গাছ বিক্রির টাকা এখনও প্রদান করা হয়নি। ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ওই চেয়ারম্যান ও সভাপতি রংপুর বন বিভাগের অধিদপ্তর থেকে গাছ কাটার একটি টেন্ডার আদেশ জারি করে পুরো টাকা হাতিয়ে নেন। ইতিমধ্যে ৫০টি গাছ কাটা হয়েছে। আর গাছ কাটেন আবুল কালাম আজাদ নামে এক কাঠ ব্যবসায়ী। নিষেধাজ্ঞা সত্বেও গাছগুলো বিক্রি করা হচ্ছে ইটভাটায়। শর্ত অনুযায়ী গাছ কাটার পাশ মার্কাও দেওয়া হয়নি গাছ গুলোতে।
স্টোক হোল্ডার সমিতির সভাপতি শহিদুল ইসলাম অভিযোগ অস্বিকার করে বলেন, গাছ বিক্রির জন্য সমিতির ২০ সদস্যের মধ্যে ১৮ জন রেজুলেশন করে দিয়েছে। গাছ বিক্রির আদেশও আছে। রেজুলেশনে সংশ্লি¬ষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলমকে গাছ বিক্রির জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়। চেয়ারম্যান নিলামে ওই গাছগুলো বিক্রি করেছেন। এলাকায় নিলামের জন্য হাটে মাইকিং ও ঢোল দেওয়া হয়েছে।
গাছ ক্রেতা কাঠ ব্যবসায়ী আবুল কালাম আজাদ বলেন, আমি এক বছর আগে সমিতির সভাপতির কাছে গাছগুলি কিনেছি। বিভিন্ন কারণে গাছ কাটা হয়নি। এখন গাছগুলি কাটছি।
এদিকে উপকারভোগি সদস্য আব্দুল হাদি বলেন, টেন্ডার ছাড়াই ১০ লাখ টাকার গাছ ৩ লাখ টাকায় বিক্রি করে সমিতির সভাপতি সুবিধাভোগিদের বঞ্চিত করেছেন। আমরা এ অপরাধের বিচার চাই।
বদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার খন্দকার ইসতিয়াক আহমেদ বলেন, এ বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করা হচ্ছে। আইন মেনে গাছ না কাটলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ