• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন |

মোবারকপুর তেল-গ্যাস কূপ খনন প্রকল্পের কাজ শুরু

gas kupপাবনা: অবশেষে দীর্ঘ ৩৪ বছর পর উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ১৬ জেলার মানুষের বহু প্রতিক্ষিত তেল- গ্যাস কূপ খনন কাজ বাস্তবে রুপ নিতে যাচ্ছে। পাবনার পাগলাদহ গ্রামে অবস্থিত ‘মোবারকপুর তেল-গ্যাস কূপ খনন প্রকল্প’ ইতোমধ্যে খননের সকল যন্ত্রপাতি আনা শুরু হয়েছে।

প্রকল্পের তেল ও গ্যাসের সম্ভাব্য মজুতের শতভাগ নিশ্চিয়তার জন্য কূপ খনন কাজের রিগ (জওএ) মেশিনসহ অন্যন্য মেশিনারী প্রকল্প এলাকায় আনা হয়েছে। কূপের মেশিন সেটিং এর পর আগামী এপ্রিল মাস থেকে প্রকৃত খনন কাজ শুরু হবে বলে জানা গেছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের খবরে এলাকার মানুষের মধ্যে উৎসব আমেজ বিরাজ করছে।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপেন্টারেশন এন্ড প্রোডাকশন কোম্পানী লিমিটেড (বাপেক্স) সূত্রে জানা যায়, ১৯৮০ থেকে ১৯৮৪ সাল পর্যন্ত জার্মান কোম্পানী (জিজিএজি) উত্তরাঞ্চলের বেশ কয়েকটি জেলায় গ্যাস ও তেল কূপের অনুসন্ধানে ভূতাত্বিক জরিপ চালায়। এ সময় পাবনার সুজানগর উপজেলার মোবারকপুর গ্রামে তেল ও গ্যাসের সম্ভাব্য মজুতের অস্তিত্ব মেলে।

সূত্র আরও জানায়, মোবারকপুর গ্রামের এই কূপে প্রায় সাড়ে ৪ কিলোমিটার গভীরে প্রায় ২০০ থেকে ১ হাজার বিলিয়ন ঘন ফুট গ্যাস এবং প্রায় ২.১ মিলিয়ন (২১ লাখ) ব্যারেল তেল মজুদের সম্ভাবনা রয়েছে। এরপর এই গ্যাস উত্তোলনের জন্য ২০০৪-০৫ অর্থ বছরে বার্ষিক উন্নয়ন প্রকল্পে তৎকালীন সরকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করে। ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসাবে ২০০৬ সালের ৬ জুন একনেক বৈঠকে ৫৬ কোটি ৪০ লাখ টাকার ‘মোবারকপুর অনুসন্ধান কূপ খনন প্রকল্প’ নামে প্রকল্পটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রকল্পে শর্ত দেওয়া হয় যে, কূপ খননের পূর্বে গ্যাস পাওয়ার বিষয়ে ভূ-তাত্ত্বিক দ্বি-মাত্রিক (টু-ডি) সার্ভের ফলাফল ভালো হলেই অনুসন্ধান করার অনুমতি পাওয়া যাবে। পরে ২০০৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সেখানে ১৬০.৩৮ কিলোমিটার লাইন টেনে সার্ভে সম্পন্ন করা হয়। ডিসেম্বর মাসে এর ফলাফল প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। টু-ডি’র প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত থেকে বাপেক্স সেখানে গ্যাসের অস্তিত্বের ব্যাপারে আবারও আশাবাদী হয়। কিন্তু পরবর্তীতে এই প্রকল্পটির কাজের কোন অগ্রগতি দেখা যায়নি।

এরপর বর্তমান সরকার ‘মোবারকপুর কূপ খনন প্রকল্পটি’ দ্রুত বাস্তবায়নের জন্য ২০১২ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়ে ৮৯ কোটি ২৬ লাখ টাকা অর্থায়নে ঐ প্রকল্পটি পুনরায় অনুমোদন দেয়। পরে বাপেক্স টেকনিক্যাল কারণ দেখিয়ে মোবারকপুর থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার উত্তর পশ্চিমে সাঁথিয়া উপজেলার পাগলাদহ, চন্ডিপুর ও বিষ্ণুবাড়ীয়া মৌজায় প্রায় ৯ একর জমি ২০১০ সালে ২ বছরের জন্য লীজ নিয়ে নতুন কাঠামো গড়ে সেখানে প্রকল্পটি স্থানান্তর করে।

অবকাঠামো নির্মাণের পর প্রায় দু’বছর ‘রিগ’ মেশিন যথা সময় না পাওয়ায় নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে এ কূপ খনন সকল কাজ শুরু করা যায়নি। সময়সীমা আবার বাড়িয়ে ‘রিগ’ মেশিন পাওয়া সাপেক্ষে ২০১৪ সালে কূপ খননের সিদ্ধান্ত হয়। অবশেষে বাপেক্সে  নতুনভাবে রিগ মেশিন কেনার সিদ্ধান্ত হয়।

এ ব্যাপারে প্রকল্পর পরিচালক মো. আতাউর রহমান জানান, চীনের হুয়াং হু কোম্পানি থেকে ১৯০ কোটি টাকা দিয়ে ‘রিগ’ মেশিন কেনা হয়েছে যা ইতিমধ্যে চট্রগ্রাম বন্দর এসে পৌঁছেছে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে প্রকল্প এলাকায় সকল মেশিনারী এসে যাবে।

প্রকল্প পরিচালক আরো জানান, ১৫ হাজার ফুট গভীরে তেল ও গ্যাস রয়েছে। ১৫ হাজার ফুট পর্যন্ত খননসহ কূপ পরীক্ষণের পরই শতভাগ নিশ্চিত হওয়ায় যাবে প্রকল্পে কি পরিমাণ তেল গ্যাস রয়েছে। অতীত অভিজ্ঞতা ও টু-ডি’র প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত থেকে বাপেক্স সেখানে গ্যাসের অস্তিত্বে ব্যাপারে আশাবাদী।

আর এ কূপ থেকে তেল-গ্যাস পাওয়ায় গেলে তা হবে পাবনাসহ দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের ১৬ টি জেলার মানুষের এক আশার আলো। যা গ্যাস থেকে অবহেলিত এ জনপদে শিল্পায়নসহ নানাবিধ উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তরান্বিত হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ