• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন |

স্কুলছাত্রীর অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ভিডিও

Dorsonনরসিংদী: এক’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে স্কুলছাত্রীর অশ্লীল ভিডিওচিত্র। উঠতি বয়সের তরুণরা তা নিজে দেখছে পাশাপাশি ইন্টারনেটের বিভিন্ন ওয়েব পোর্টালে ছড়িয়ে দিচ্ছে। সম্পর্কের সুযোগে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বখাটে প্রেমিকের ধারণ করা এই অশ্লীল ভিডিও গ্রামের এক স্টুডিও ব্যবসায়ীকে সরবরাহ করলে এ ঘটনা ঘটে। এদিকে এই অশ্লীল ভিডিও গ্রামের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ায় লোকলজ্জার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে ওই স্কুলছাত্রীর পরিবার। পুলিশ ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত সন্দেহে তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

নিপীড়িত ওই ছাত্রী নরসিংদীর মনোহরদীর খিদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী। স্কুল কর্তৃপক্ষ বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও এলাকার জনপ্রতিনিধিদের অবহিত করলে গত শনিবার রাতে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগে তিনজনকে আটক করে পুলিশ। আটককৃতরা হলো- নিপীড়িত ছাত্রীর কথিত প্রেমিক রোমান মিয়া (১৫), খিদিরপুর বাজারের এসআর ডিজিটাল স্টুডিওর মালিক সোহাগ মিয়া (১৬) ও অপারেটর সুজন মিয়া (১৫). আটককৃতরা পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অশ্লীল ভিডিওচিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, খিদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রীর সঙ্গে মনোহরদী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র রোমান মিয়ার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। রোমান মিয়া স্থানীয় চর আহাম্মদপুর গ্রামের খোকা মিয়ার ছেলে। সম্প্রতি স্কুলছাত্রীর আপত্তিকর ভিডিওচিত্র হাটবাজারসহ গ্রামের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার মানুষের হাতে ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি খিদিরপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের নজরে এলে তিনি স্থানীয় সংসদ সদস্য, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্থানীয় চেয়ারম্যানকে অবহিত করেন। পরে চেয়ারম্যান থানা পুলিশকে জানালে ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে গত শনিবার রাতে পুলিশ তিনজনকে গ্রেপ্তার করে।

অশ্লীল ভিডিও গ্রামের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ায় লোকলজ্জার ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে ওই স্কুলছাত্রীর পরিবার। গতকাল দুপুরে চর আহাম্মদপুরে নিপীড়িত ছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে কাউকে পাওয়া যায়নি। স্থানীয়রা জানায়, প্রেমের সম্পর্কের সুযোগে বখাটে রোমান মিয়া বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই ছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে গোপনে তাঁর ভিডিও ধারণ করে। সমপ্রতি তাদের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি হলে তা এক স্টুডিও ব্যবসায়ীর মাধ্যমে এলাকার উঠতি বয়সের তরুণদের মধ্যে ছড়িয়ে দেওয়া হয়।

খিদিরপুর স্কুলের প্রধান শিক্ষক রতন কুমার দাশ বলেন, ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় নানা রকম কথা ছড়াচ্ছে। পরে প্রতিষ্ঠানের শৃঙ্খলা ঠিক রাখতে বিষয়টি স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানানো হয়।

পুলিশের হাতে আটককৃত প্রেমিক রোমান মিয়া দাবি করে বলে, ‘দুই বছর ধরে তার সঙ্গে আমার প্রেমের সম্পর্ক। আমি তাকে বিয়েও করব। সে যেন আমাকে ছেড়ে চলে না যায় সেই উদ্দেশ্যে অন্তরঙ্গ কিছু মুহূর্তের ভিডিও মোবাইলে ধারণ করে বন্ধু সুজনের কম্পিউটারে রেখেছিলাম। কিন্তু সেই বিশ্বাসঘাতক বন্ধু কী কারণে ভিডিও ক্লিপটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দিয়েছে তা আমার জানা নেই।’

মনোহরদীর রামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) আবদুর রাজ্জাক জানান, বিষয়টি খুবই স্পর্শকাতর, তাই অতি গুরুত্বের সঙ্গে বিষয়টি দেখা হচ্ছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তিনজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের মধ্যে স্টুডিও মালিক সোহাগ মিয়া ও অপারেটর সুজন ভিডিওচিত্রটি ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়াসহ গ্রামের যুবক শ্রেণীর ছেলেদের কাছে বিক্রি করেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা স্বীকার করেছে। এ ঘটনায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। এদিকে মনোহরদী থানায় গতকাল সন্ধ্যায় স্কুলছাত্রীর মা বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ