• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন |

স্বতন্ত্র সাংসদদের জন্য আ.লীগের দরজা বন্ধ!

Awamili Flagনিউজ ডেস্ক: দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জয়ীদের দলে নেবে না ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগ। দলীয় সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, দশম জাতীয় সংসদে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন ১৬ সাংসদ। হাজী সেলিম, ইউসুফ হারুনসহ বেশ কয়েকজন সাবেক দাপুটে আ. লীগ নেতা আছেন এই তালিকায়। দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য তারা দল থেকে বেরিয়ে এসেছিলেন। নির্বাচিত হওয়ার পর সেলিম, হারুনসহ অনেকে আবারও আ. লীগে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন।

সংসদের হুইপ শহীদুজ্জামান সরকার জানান, বেশির ভাগ স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য আওয়ামীলীগে যোগ দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা স্বতন্ত্র সাংসদদের নিজ দলে নয়, দেখতে চান কঠোর বিরোধী ভূমিকায়। তার চাওয়া, স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য, বিশেষ করে যারা আ. লীগের সাবেক নেতা, তারা সংসদের একটি বিরোধী ভূমিকা পালন করুক এবং সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করুক। এ প্রসঙ্গে হুইপ শহীদুজ্জামান বলেন, শেখ হাসিনা চান সরকারের কঠোর সমালোচনা। যার মাধ্যমে সংসদ পুরোমাত্রায় কার্যকর হবে। সেহেতু আমরা চাই বিরোধী নেতারা আরও কার্যকর ভূমিকা পালন করুক।

রাজনীতি পর্যবেক্ষকরা বলছেন, একদিকে ১৫৪ আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা এবং সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি আছে মন্ত্রিসভাতেও। দশম সংসদের প্রথম অধিবেশনে প্রধান বিরোধী নেত্রী রওশন এরশাদ অবশ্য প্রতিশ্রুতি জানিয়েছেন, তারা কার্যকরী বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করবেন। কিন্তু তাতেও আশ্বস্ত হতে পারছেন না কেউ। তাই সংসদে সরকারের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের সমালোচনা করার মতো কঠোর বিরোধীর অভাব থেকেই যাচ্ছে। সেই অভাব পূরণেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন শেখ হাসিনা। সংসদের চীফ হুইপ আসম ফিরোজ বলেন, বিরোধী ভূমিকা পালনের জন্য স্বতন্ত্র সাংসদদের উৎসাহিত করবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

এদিকে আওয়ামী লীগ নেতা ও ঢাকা-৭ আসনের স্বতন্ত্র এমপি হাজী মো. সেলিমের নেতৃত্বে দশম জাতীয় সংসদের ১৬ জন স্বতন্ত্র এমপি নতুন জোট গঠন করেছেন। ২২ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে অনুষ্ঠিত স্বতন্ত্র এমপিদের এক জরুরি বৈঠকে এ জোট গঠন করা হয়। এতে ১২ জন স্বতন্ত্র এমপি উপস্থিত ছিলেন এবং বাকি ৪ জন জোটের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণা করেছেন বলে জানিয়েছিলেন হাজী সেলিম।

জোটের নেতা হাজী সেলিম বলেন, স্বতন্ত্র এমপিরা সংসদে জনগণের অতন্দ্র প্রহরী হিসেবে কাজ করবেন।  জনগণের আবহাওয়া দেখে কথা বলবেন। দেশের মানুষ যেমনটি পছন্দ করবেন, তারা তেমনই ভূমিকা পালন করবেন। যা অপছন্দ করেন, তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেবেন। মানুষ ভালোবেসে প্রতিনিধি করে সংসদে পাঠিয়েছেন। তাই সংসদের মতো পবিত্র জায়গায় দাঁড়িয়ে তাদের কল্যাণে সাদাকে সাদা, কালোকে কালো বলবেন।

স্বতন্ত্র প্রার্থীদের জোট গঠনের জন্য জাতীয় সংসদ ভবনে ওই বৈঠকে নওগাঁ-৩ আসনের ছলিম উদ্দিন তরফদার, মেহেরপুর-২ আসনের মকবুল হোসেন, ঝিনাইদহ-২ আসনের তাহজীব আলম সিদ্দিকী, পিরোজপুর-৩ আসনের রুস্তম আলী ফরাজী, ঢাকা-৭ আসনের হাজী মো. সেলিম, নরসিংদী-৩ আসনের সিরাজুল ইসলাম মোস্তফা, নরসিংদী-৭ আসনের কামরুল আশরাফ খান, ফরিদপুর-৪ আসনের মজিবুর রহমান চৌধুরী, মৌলভীবাজার-২ আসনের আবদুল মতিন, কুমিল্লা-৪ আসনের রাজী মোহাম্মদ ফখরুল, ফেনী-৩ আসনের রহিম উল্লাহ ও পার্বত্য রাঙ্গামাটির এমপি উষাতন তালুকদার উপস্থিত ছিলেন।

যে চারজন স্বতন্ত্র এমপি বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না, তারা জোটে থাকার বিষয়ে সম্মতি জানিয়েছেন। ওই বৈঠকে হাজী মো. সেলিমকে সভাপতি, কুমিল্লা-৪-এর রাজী মোহাম্মদ ফখরুলকে সদস্য সচিব এবং পিরোজপুর-৩-এর রুস্তম আলী ফরাজী ও নরসিংদী-২-এর কামরুল আশরাফ খানকে সহ-সভাপতি করে স্বতন্ত্র জোটের চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ