• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০৩:০২ অপরাহ্ন |

হলমার্কের বিরুদ্ধে মামলা করছে সোনালী ব্যাংক

hallঢাকা: কেলেঙ্কারির প্রায় দুই বছর পর অবশেষে হলমার্ক গ্রুপের বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সোনালী ব্যাংক। একই সঙ্গে কেলেঙ্কারিতে জড়িত ব্যাংক কর্মকর্তাদের নামও মামলায় অন্তর্ভুক্ত করে চলতি মাসেই মামলা করা হবে বলে জানা গেছে। মঙ্গলবার সোনালী ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
২০১০ থেকে শুরু করে ২০১২ সালের ৩১ মে পর্যন্ত সোনালী ব্যাংক থেকে জালিয়াতির মাধ্যমে ২ হাজার ৯৬৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয় হলমার্ক গ্রুপ। এর মধ্যে এলসি বাতিল, আইবিপি সমন্বয় ও সামান্য নগদ আদায়ের মাধ্যমে ৪০৫ কোটি টাকা আদায় করেছে সোনালী ব্যাংক। সর্বশেষ ২০১৪ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত হালনাগাদ হিসাবে হলমার্ক গ্রুপের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাওনা (ফান্ডেড, নন ফান্ডেড) রয়েছে ২ হাজার ৫৫৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। এসব পাওয়া টাকা আদায় করতেই অবশেষে মামলায় যাচ্ছে ব্যাংকটি।
২০১২ সালের আগস্ট মাসে মামলা করার সব প্রস্তুতি নিয়েও পুরো টাকা আদায় সম্ভব হবে না এমন ধারণায় মামলা করা থেকে বিরত থাকে সোনালী ব্যাংক। তবে এখন ব্যাংক কর্তৃপক্ষ মনে করছে, মামলা করেই প্রতিষ্ঠানটির কাছ থেকে জালিয়াতির সব টাকা উদ্ধার করা সম্ভব হবে।
সোনালী ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, হলমার্ক গ্রুপের সোনালী ব্যাংকে সর্বশেষ দেনাস্থিতি ২ হাজার ৫৫৪ কোটি ৩৪ লাখ টাকার মধ্যে ৩৯৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা বৈধ ঋণ হিসেবে বিবেচনা করা যায়। বাকি ২ হাজার ১৫৫ কোটি ৬১ লাখ টাকা জালিয়াতির মাধ্যমে উত্তোলন করা হয়েছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেনার বিপরীতে হলমার্ক গ্রুপ ৬ হাজার ১১৭ দশমিক ৬০ শতাংশ জমি বন্ধক রেখেছে। ব্যাংকের হিসাবে এসব জমির মূল্য ৩৮৯ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। হলমার্ক গ্রুপ আরও ৭ হাজার ৬২৯ দশমিক ২১ শতাংশ জমির মূল দলিল বা সার্টিফায়েড দলিল সোনালী ব্যাংকের কাছে জমা রেখেছে। এসব জমির মূল্য ব্যাংকের হিসাবে ৭৮০ কোটি ৫০ লাখ টাকা।
তবে মালিকপক্ষ কারারুদ্ধ থাকায় এবং অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাগজপত্রের অভাবে ৭ হাজার ৬২৯ দশমিক ২১ শতাংশ জমির বন্ধক কাজ সম্পন্ন করা যায়নি।
সোনালী ব্যাংক সূত্র জানায়, মামলা করে পুরো টাকা আদায় সম্ভব হবে না জেনেই দুই বছর ধরে ব্যাংক মামলা করেনি। কারণ হলমার্ক গ্রুপ স্বীকারোক্তি দিলেও সোনালী ব্যাংক যে হলমার্ককে ২ হাজার ৫৫৪ কোটি টাকা দিয়েছে এর বিপরীতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সোনালী ব্যাংকের হাতে নেই। অনেক ফাইল গায়েব হয়ে গেছে, আবার এমন অনেক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হলমার্ক গ্রুপকে ঋণ দেয়া হয়েছে, যেগুলোতে হলমার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তানভীর মাহমুদ, তার স্ত্রী চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলাম ও গ্রুপের অন্য কোনো কর্মকর্তার কোনো স্বাক্ষর নেই।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে সোনালী ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য জায়েদ বখত বলেন, ‘এসব টাকা হলমার্ক গ্রুপ জালিয়াতি করে নিয়েছে। তাই মামলা করে সব পাওনা আদায় সম্ভব হবে।’
তিনি বলেন, ‘সোনালী ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে খুব শিগগিরই অর্থঋণ আদালতে মামলা ও দেওয়ানি আদালতে আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত মামলা করতে বলেছে পরিচালনা পর্ষদ।’ এ দুই পদ্ধতিতে মামলা করলে সব অর্থই আদায় সম্ভব বলে তিনি জানান।
মামলার অগ্রগতির বিষয়ে সোনালী ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট বিভাগের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মেসবাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আমরা সব ধরনের পেপার্স তৈরি করে ফেলেছি। আশা করছি, চলতি মাসের মধ্যেই মামলাটি দায়ের করতে পারব।’
মামলা করতে এত বিলম্ব হলো কেন? এর জবাবে তিনি বলেন, ‘আসলে এটা অনেক বড় প্রক্রিয়া ছিল। তাছাড়া এধরনের জালিয়াতির ঘটনা দেশে এটিই প্রথম। সবদিক বিবেচনায় এনে কাজ করতে করতেই সময় চলে গেছে।’
বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ