• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৩১ অপরাহ্ন |

জুয়া খেলা মানসিক রোগ

Juaস্বাস্থ্য ডেস্ক: জুয়া শব্দটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে সবার মধ্যেই এক ধরনের নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। সেই জুয়া যখন একজন মানুষের চিন্তা-ভাবনা, কাজ-কর্ম, আচার-আচরণ-সবকিছু নীরবে গ্রাস করে নেয়, যখন বারবার চেষ্টা করার পরও সেই কাজ থেকে বিরত থাকা যায় না, ধীরে ধীরে অর্থনৈতিক, পারিবারিক বা সামাজিক সব সম্পর্ক নষ্ট হতে থাকে, তখন সেটা মানসিক রোগের মধ্যেই পরবে। প্রথম পর্বে জুয়ায় আসক্তির কারণ ও এর ক্ষতিকর দিক নিয়ে জানাচ্ছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোরোগবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সালাহউদ্দিন কাউসার বিপ্লব।

জুয়ায় আসক্তি
জুয়া এক ধরনের খেলা। খেলা যখন খেলার আনন্দের চেয়ে বেশি কিছু হয়ে যায়, যখন খেলার ভেতর ডুবে গিয়ে ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক কিংবা অর্থনৈতিক সব কাজের প্রতি অবহেলা চলে আসে, তখন সেটা আর শুধুই খেলা থাকে না। হয়ে যায় আসক্তি। জুয়ার আসক্তি হলো-জুয়া খেলার জন্য মনের ভেতর অসম্ভব ও অনিয়নি্ত্রত এক ধরনের চাহিদার সৃষ্টি হওয়া। সেই চাহিদা পূরণ না করে থাকা অত্যন্ত কঠিন। এই চাহিদাকে কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যায় না। যেকোনো কিছুর বিনিময়েই আসক্ত মানুষটি সেই চাহিদা পূরণ করতে চায় এবং জুয়া খেলতে চায়। আক্রান্ত মানুষটি তখন জুয়া খেলার চাহিদা নিয়ন্ত্রণ না করে বরং জুয়া খেলা-সংক্রান্ত আচরণগুলো লুকিয়ে রাখার আপ্রাণ চষ্টো করেন। বিষয়টি লুকিয়ে রাখার জন্য সব ধরনের কৌশলই তারা অবলম্বন করে। তারা চায় না তাদের এই আচরণ মানুষ জানুক। লুকানো, মিথ্যাচার এমনকি বিভিন্ন ধরনের প্রতারণার পথ বেছে নিতেও তারা পিছপা হয় না। কিছুতেই তারা সেই কাজটি থেকে নিজেকে দূরেও রাখতে পারে না। এই আসক্তি একজন মানুষের জীবনকে ধ্বংস করে দিতে পারে।
জুয়ায় আসক্তিতে কী হয়?
টাকা অর্থাৎ অর্থনৈতিক লাভের চেয়ে জুয়া খেলার উত্তেজনা বা এক্সাইটমেন্টই এর পেছনে বেশি কাজ করে। বেশির ভাগ সময়ই জুয়া খেলা বা খেলার ভাবনা নিয়েই সময় পার হয়। দিনকে দিন বড় ধরনের বাজি ধরতে প্রস্তুত থাকে। পেছনের হার বা ক্ষতির কথাও তারা মনে রাখে না। অনেকে ব্যক্তিগত সমস্যা, অসহায়ত্ব এমনকি বিষণ্নতা ঢাকার জন্যও জুয়া খেলে। পরিবার বা পেশাগত কাজে অবহেলা চলে আসে। সব সময় লুকানোর একটা চষ্টো কাজ করে। টাকা-পয়সা লুকানো-সরানো এমনকি চুরির প্রবণতাও দেখা যায়। নিজের ভেতর এক ধরনের হীনম্মন্যতাও কাজ করে। বারবার চেষ্টা করেও সেখান থেকে সরে আসতে পারে না। এটি একটি বড় ধরনের সমস্যা, সেটা অনেকে মানতেও নারাজ। যারা এ ব্যাপারে নিষেধ করে বা করতে পারে তাদের জুয়ার আসক্তরা এড়িয়ে চলে। জুয়া বিষয়টিকে লুকানোর জন্য যেকোনো ধরনের মিথ্যা কথা বলা বা মিথ্যার আশ্রয় নেওয়া অভ্যাসে পরিণত হয়।
জুয়া খেলা মানসিক রোগ
কখন বোঝা যাবে জুয়ার আসক্তি নিয়ন্ত্রণের বাইরে
১. যখন দিন দিন জুয়ার পেছনে সময় এবং শক্তি দুটোই নষ্ট হতে থাকে।
২. যখন চষ্টো করেও অভ্যাসটি পরিবর্তন করা যায় না।
৩. যখন মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক, অর্থনৈতিক অবস্থা কিংবা কাজের ক্ষেত্রে সমস্যা শুরু হয়।
৪. যখন পরিবার বা কাছের মানুষের কাছে জুয়া খেলার বিষয়টি চেপে যেতে দেখা যায়।
৫. যখন অর্থ জোগানোর জন্য চুরি কিংবা প্রতারণার প্রবণতা সৃষ্টি হয়।
৬. যখন গচ্ছিত টাকা বা সম্পদ ধীরে ধীরে কমতেই থাকে।
৭. যখন অন্যের কাছে টাকা-পয়সা ধার-দেনা শুরু হয়।
৮. যখন জুয়া খেলার সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন অপরাধচক্রের সঙ্গে সম্পর্ক বাড়তে থাকে।
অনেক ক্ষেত্রেই দেখা যায়, সম্পূর্ণ মানুষটি ধীরে ধীরে বদলে যেতে থাকে। স্বাভাবিক চলাফেরা, কাজ বাদ দিয়ে অস্বাভাবিক এক ধরনের কার্যাচরণের ভেতর দিয়ে দিন পার হতে থাকে।
জুয়া খেলার বিষয়ে কখন চিকিত্সার কথা ভাবা উচিত?
পরিবারের কেউ বা কোনো কাছের মানুষ, বন্ধু কিংবা পেশার স্থানের কেউ বিষয়গুলো জেনে যায় বা বুঝে যায়, সেই সঙ্গে তারা যখন বিষয়টি নিয়ে উদ্বিগ্ন হয় তখনই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই আক্রান্ত মানুষটি বিষয়টিকে পাত্তা দিতে চায় না (denial is almost always)। অনেকে আসক্তির বিষয়টি নিজে নিজে বুঝতেও পারে না। মনে রাখতে হবে, অনেক সময় নিজে নিজে অনেক কিছুই বোঝা যায় না, যা কাছের মানুষ বুঝতে পারে।
জুয়া আসক্তির কারণ
একেবারে সঠিক কারণ বলা না গেলেও এর পেছনেও বায়োলজিক্যাল, জেনেটিক বা পরিবেশের প্রভাব থাকার কথা বলা যায়।
কাদের জুয়ায় আসক্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেশি
নারী-পুরুষ দুজনের ভেতরই এ সম্ভাবনা থাকলেও পুরুষরাই এতে বেশি আসক্ত হয়। বছরের পর বছর কার্ড (তাস) খেললেও বা বাজি ধরলেও অনেকে জুয়ায় আসক্ত নাও হতে পারে। কিন্তু কিছু কিছু বিষয় আছে যেসব জুয়ায় আসক্ত হওয়ার সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয়
১. যেসব পরিবারে অর্থাত্ বাবা-মায়ের মধ্যে এই প্রবণতা থাকে, তাঁদের সন্তানদের মধ্যে এই আসক্তি বেশি হয়।
২. পুরুষদের মধ্যেই অপেক্ষাকৃত বেশি হয় এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই কম বয়সেই তারা আক্রান্ত হয়।
৩. নারীদের মধ্যে অপেক্ষাকৃত বেশি বয়সে এই আসক্তি আসতে দেখা যায়।
৪. কিন্তু নারীরা সহজেই আসক্ত হয়ে যায়। দেখা যায়, কোনো কারণে ডিপ্রেশন বা অন্য কোনো মানসিক সমস্যায় থেকে আপাতত দূরে থাকার জন্য বা ভুলে থাকার জন্যই তারা এ কাজে বেশি ঝুঁকে পড়ে এবং সহজেই আসক্ত হয়ে যায়।
৫. যারা সারাক্ষণ প্রতিযোগিতায় থাকতে বা করতে পছন্দ করে এমন সব ব্যক্তিত্বের মধ্যে এই আসক্তি বেশি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
৬. কিছু অন্য মানসিক রোগ বা সমস্যার কারণেও জুয়া আসক্তি বেশি হতে পারে। যেমন- নেশাগ্রস্ত, পারসোনালিটি ডিজঅর্ডার, এডিএইচডি, ডিপ্রেশন, যৌন সমস্যা।
৭. জুয়ায় আসক্ত বন্ধুবান্ধব এবং পরিবেশ।
জুয়া খেলা মানসিক রোগ
জুয়া আসক্তির ক্ষতিকর দিক
ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক বা অর্থনৈতিক যেকোনো দিকেই এর প্রকট ও লম্বা সময়ের প্রভাব পড়তে দেখা যায়। অনেকে নিজে সেসব বুঝতে না পারলেও যেসব ক্ষতিকর দিক লক্ষ করা যায়; সেসব হলো


১. মানুষের সঙ্গে সম্পর্কের সমস্যা বা নষ্ট হয়ে যাওয়া।
২. অর্থনৈতিক সমস্যা, এমনকি ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়া।
৩. আইনগত সমস্যা, থানা-পুলিশ-জেলবিষয়ক জটিলতা।
৪. চাকরি চলে যাওয়া কিংবা কর্মস্থলে সবার কাছে ছোট হয়ে থাকা।
৫. নেশা কিংবা বিভিন্ন অপরাধ জগতের মানুষের চক্রে জড়িয়ে পড়া।
৬. অন্য কোনো মানসিক রোগ বা আত্মহত্যার প্রবণতা বেড়ে যাওয়া।
উৎসঃ   কালেরকণ্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ