• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন |

এপ্রিলে কঠোর কর্মসূচি দেবে জামায়াত

Jamatসিসি নিউজ, ঢাকা: মধ্যবর্তী নির্বাচনে সরকারকে বাধ্য করতে হরতাল, অবরোধ, ঢাকা ঘেরাওসহ বিভিন্ন কর্মসূচি দিয়ে আগামী এপ্রিলের পর আবারও সহিংস রূপে ফিরতে চায় মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জামায়াতে ইসলামী। এর আগে দলকে শক্তিশালী করতে তৃণমূল পর্যায়ে সাংগঠনিক কার্যক্রম সচল করা হবে। একই সঙ্গে তারা সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বাড়াতে লবিং জোরদার করার চেষ্টা চালাবে। দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ করে এমন তথ্য জানা গেছে।
সূত্র মতে, আসন্ন উপজেলা নির্বাচনে যেসব এলাকায় জামায়াতের প্রভাব বেশি সেসব এলাকায় নিজেদের প্রার্থীদের বিজয়ী করার লক্ষ্য নিয়ে এগোচ্ছে দলটি। এ সময়ের মধ্যে কোনো কঠোর কর্মসূচি না দেওয়া এবং পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে কেন্দ্রীয় কমিটি পুনর্গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়ে রেখেছে জামায়াত।
জামায়াতের নেতারা বলছেন, এখন তাঁরা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন নতুন সরকারকে কিছুটা সময় দিয়ে সংগঠন গোছানোর কাজটি সেরে নিচ্ছেন। আগামী এপ্রিলে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের জাতীয় নির্বাচনের পর নতুন করে সরকারবিরোধী আন্দোলনে নামবে জামায়াত। জামায়াতের নেতারা আশায় আছেন, ভারতে বর্তমান কংগ্রেস সরকারের পরাজয় হলে এবং বিজেপি ক্ষমতায় এলে বিজেপির সঙ্গে জামায়াতে হিন্দ বা ভারতীয় জামায়াতের একটি বোঝাপড়া হবে। সেই সুযোগে তারা বাংলাদেশের বিষয়ে বিজেপির সহায়তা চাইবে। বিজেপি ক্ষমতায় আসতে পারলে বাংলাদেশেও এর প্রভাব পড়বে। বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার হয়তো সে সময় বিজেপির সমর্থন পাবে না। তখনই সরকারকে চাপে ফেলে মধ্যবর্তী নির্বাচন দিতে বাধ্য করবে জামায়াত ও তার মিত্ররা।
সূত্র জানায়, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর জামায়াতের আন্তর্জাতিক লবিগুলো আরো জোরদার করার চেষ্টা চলছে। দলটির সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক প্রায় এক মাস ধরে বিভিন্ন দেশ সফর করে আন্তর্জাতিক লবিং জোরদার করার কাজটি করছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা এমনকি ভারতেও গেছেন বলে দলের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে।
জানতে চাইলে জামায়াতের আইনজীবী অ্যাডভোকেট তাজুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শুনেছি ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক আমেরিকা ও কানাডা সফরে আছেন। এ ছাড়া আর কোন দেশে গেছেন তা জানি না।’
দলীয় সূত্রগুলো বলছে, জামায়াতের নেতারা মনে করছেন, লাগাতর হরতাল-অবরোধ বা অন্য কোনো কর্মসূচি দিয়ে এ সরকারকে হটানো যাবে না। দরকার হবে আন্তর্জাতিক চাপ। এ লক্ষ্য নিয়ে জামায়াতের আন্তর্জাতিক লবিগুলো কাজ করছে। তারা জামায়াতের নেতা-কর্মীদের নৃশংসভাবে খুন ও নির্যাতনের বিষয়টি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করছে।
জানতে চাইলে জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরার সদস্য ও আন্তর্জাতিকবিষয়ক কমিটির এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জামায়াতের সঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্পর্ক নতুন কিছু নয়। গত নির্বাচনের পর এ সম্পর্ক আরো বেশি জোরদার করতে জামায়াত কাজ করছে। আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে আমাদের নেতা-কর্মীদের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরব, যাতে এ সরকারের অগণতান্ত্রিক আচরণ বিদেশিরাও জানতে পারে। আর এটা করতে পারলে সরকার দেশে-বিদেশে চাপের মুখে পড়বে।’
জামায়াতের আরেকটি সূত্র জানায়, নতুনভাবে আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের পর অনেকটা ভেবেচিন্তে কর্মসূচি দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছে জামায়াত-শিবির। পারতপক্ষে আগামী কয়েক মাসে তারা কোনো কর্মসূচি দিতে চাচ্ছে না। তবে শীর্ষ নেতাদের মৃত্যুদণ্ডের মতো কোনো রায় এলে তার প্রতিবাদে কর্মসূচি দেওয়ার সিদ্ধান্ত আগেই নিয়ে রাখা হয়েছে।

উৎসঃ   kalerkantha


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ