• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:১৩ পূর্বাহ্ন |

ছায়ামন্ত্রীর দায়িত্ব পাচ্ছেন মন্ত্রিত্ববঞ্চিতরা

65155_1নিউজ ডেস্ক: মন্ত্রিসভায় স্থান না পাওয়া দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে এবার ছায়ামন্ত্রী হিসেবে বিবেচিত জাতীয় সংসদের স্থায়ী কমিটির সভাপতি পদ দিচ্ছেন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগের মন্ত্রিসভায় ছিলেন কিন্তু নতুন সভায় স্থান হয়নি এমন এমপিদের প্রাধান্য দিয়ে গঠন করা হচ্ছে সংসদীয় কমিটি। সেখানে স্থান হচ্ছে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টি ও দশম জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ নিয়ে বিজয়ী হয়ে আসা স্বতন্ত্র এমপিদেরও। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, চলতি অধিবেশনেই সংসদের ৫১টি কমিটি গঠনের কাজ শেষ হবে। চলতি সপ্তাহেই অধিকাংশ কমিটি গঠনের কথা রয়েছে। এ সব কমিটিতে অভিজ্ঞরা প্রাধান্য পাবেন বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। ইতিমধ্যে জাতীয় সংসদের কার্য-উপদেষ্টা কমিটিসহ ৫টি কমিটি গঠিত হয়েছে। বাকিগুলোও দ্রুত শেষ করা হবে বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ আসম ফিরোজ জানান, কমিটি গঠনের কাজ দ্রুত শেষ করা হবে। সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতিমধ্যে এ নিয়ে কাজ শুরু করেছেন। আগামী ১৫ দিনের মধ্যে পর্যায়ক্রমে সব ক’টি কমিটি গঠিত হবে বলে আশা করা যায়। সূত্র জানায়, এবারের কমিটিতে দলের ত্যাগী নেতাদের স্থান দেয়া হচ্ছে। বিশেষ করে সভাপতির পদটি মন্ত্রী হওয়ার যোগ্য অথচ মন্ত্রিসভায় স্থান দেয়া যায়নি এমন নেতাদেরই দেয়ার কথা ভাবা হচ্ছে। এ পদে সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আফম রুহুল হক, আফসারুল আমিন, আবদুল মতিন খসরু, মহীউদ্দীন খান আলমগীর, ডা. দীপু মনি, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, জাহাঙ্গীর কবির নানক এবং এমপিদের মধ্যে আলী আশরাফ, রেজওয়ান আহমেদ তৌফিক, মো. ইসরাফিল আলম, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, স্বতন্ত্র এমপি হাজী মোহাম্মদ সেলিম, মজিবুর রহমান নিক্সন, জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশিদ, তাজুল ইসলামের নাম শোনা যাচ্ছে। গতকাল সংসদের অনুমোদন পাওয়া ৫টি কমিটির সব ক’টিতেই এদের অনেককে রাখা হয়েছে।
এদিকে জাতীয় সংসদের সব সংসদীয় কমিটি গঠনের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। তবে এ সপ্তাহে ক’টি কমিটি গঠিত হবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেননি তারা। তারা জানান, সংসদের কার্য-উপদেষ্টা কমিটির সভাপতি পদাধিকার বলে স্পিকার। এই কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী, সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা, ডেপুটি স্পিকার, চিফ হুইপসহ সরকার ও বিরোধী দলের সিনিয়র এমপিরা। সংসদ কমিটির সভাপতি পদাধিকার বলে চিফ হুইপ। আর আইনে অভিজ্ঞ সিনিয়র এমপি আইন কমিটির সভাপতি পদ পেয়ে থাকেন। সংবিধানের নির্দেশনা অনুযায়ী, সংসদ নেতার পক্ষে চিফ হুইপ সংসদীয় কমিটি গঠনের প্রস্তাব উত্থাপন করেন। আর সে প্রস্তাব সংসদে অনুমোদনের মাধ্যমে কমিটিগুলো গঠিত হয়।
এ বিষয়ে নবম সংসদের শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির সভাপতি ও বর্তমান সংসদের আওয়ামী লীগ দলীয় সদস্য মো. ইসরাফিল আলম জানান, অভিজ্ঞদের সংসদীয় কমিটির দায়িত্ব দেয়া হবে এমনটিই দলের হাইকমান্ড থেকে জানানো হয়েছে। গত সংসদেও সেটা করা হয়েছিল। কারণ আওয়ামী লীগ সংসদকে কার্যকর রাখতে চায়। তিনি জানান, সংসদীয় গণতন্ত্রের ক্ষেত্রে সংসদীয় কমিটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ কমিটির মাধ্যমে সরকার ও সংসদের স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত হয়। যেখানে সরকার ও বিরোধী দল উভয়েরই ব্যাপক ভূমিকা রাখার সুযোগ রয়েছে।
সংসদ সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সংসদীয় কমিটিতে এবারো বিরোধী দল থেকে একাধিক সদস্য রাখা হবে। যার মধ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে জিতে আসা এমপিরাও থাকবেন। তবে ক’টি সভাপতি পদ সরকারি দল আওয়ামী লীগের বাইরের সদস্যরা পাবেন সেটা এখানো নিশ্চিত নয়। আগামী সপ্তাহেই বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে আশা করছেন তারা।
সংসদের কার্য-উপদেষ্টাসহ ৫টি কমিটি গঠিত: দশম জাতীয় সংসদের কার্য-উপদেষ্টা কমিটিসহ ৫টি কমিটি গঠিত হয়েছে। দশম সংসদের তৃতীয় কার্যদিবসে গতকাল বুধবার দিনের সম্পূরক কর্মসূচিতে কমিটিগুলো গঠিত হয়। অন্য চারটি কমিটি হলো-কার্যপ্রণালী বিধি সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি, পিটিশন কমিটি, সংসদ কমিটি এবং আইন বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি।
কার্য-উপদেষ্টা কমিটি গঠনের ঘোষণা দেন স্পিকার। বাকি চারটি কমিটি গঠনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে প্রস্তাব উত্থাপন করেন চিফ হুইপ আসম ফিরোজ। প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে পাসের মধ্য দিয়ে কমিটিগুলো গঠিত হয়।
কার্য-উপদেষ্টা কমিটি: স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সদস্য করে ১৫ সদস্যবিশিষ্ট কার্য-উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন বেগম রওশন এরশাদ, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, মঈন উদ্দিন খান বাদল, রাশেদ খান মেনন, আবদুল মতিন খসরু, ফজলে রাব্বী মিয়া, আসম ফিরোজ ও আনিসুল হক।
কার্যপ্রণালী বিধি সম্পর্কিত কমিটি: স্পিকারকে সভাপতি করে ১২ সদস্যবিশিষ্ট কার্যপ্রণালী বিধি কমিটি গঠিত হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, ফজলে রাব্বী মিয়া, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, অধ্যাপক আলী আশরাফ, আবদুস শহীদ, আবদুল মতিন খসরু, আসম ফিরোজ, আনিসুল হক, রাশেদ খান মেনন ও হাসানুল হক ইনু।
পিটিশন কমিটি: স্পিকারকে সভাপতি করে ১০ সদস্যবিশিষ্ট পিটিশন কমিটি গঠিত হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন শেখ ফজলুল করিম সেলিম, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর, ফজলে রাব্বী মিয়া, আবদুস শহীদ, শেখ নুরুল হক, ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু, মঈন উদ্দিন খান বাদল ও সাবের চৌধুরী।
সংসদ কমিটি: চিফ হুইপ আসম ফিরোজকে সভাপতি করে ১১ সদস্যবিশিষ্ট সংসদ কমিটি গঠিত হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন নুর ই আলম চৌধুরী লিটন, সাগুফতা ইয়াসমীন, তাজুল ইসলাম চৌধুরী, ফজলে হোসেন বাদশা, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, আশরাফুল হক, মাহবুব আরা গিনি, নাজমুল হক, তালুকদার মো. ইউনুস ও পঞ্চানন বিশ্বাস।
আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটি: সুরঞ্জিত সেনগুপ্তকে সভাপতি করে ১০ সদস্যবিশিষ্ট আইন বিচার ও সংসদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত কমিটি গঠিত হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন আনিসুল হক, বেগম সাহারা খাতুন, আবদুল মতিন খসরু, শামসুল হক টুকু, আবদুল মজিদ খান, জিয়াউল হক মৃধা, তালুকদার মো. ইউনুস, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সদস্যের জন্য একটি, তাজুল ইসলাম চৌধুরী।
উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ