• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২০ পূর্বাহ্ন |

বিশেষ আদালতের দিকে এগোচ্ছে সরকার

Hasinaনিউজ ডেস্: সারা দেশে ১৯ দলের নেতাকর্মীদের ধরপাকড় ও রাজনৈতিক মামলায় নতুন করে যুক্ত হতে যাচ্ছে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতার মামলা। এ মামলার শুনানি হবে বিশেষ আদালতে। সে আদালত গঠনের দিকেই এগোচ্ছে সরকার। এর আগে একটি তদন্ত কমিশনও গঠন করা হতে পারে। এ ব্যাপারে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়ে গেছে বলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তিনি জানান, আদালত গঠনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্প্রতি একটি চিঠি দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়কে। ইতোমধ্যে সব আইনি প্রক্রিয়াও সম্পন্ন করে ফেলেছে আইন মন্ত্রণালয়।
বিশেষ করে দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা, নির্যাতন, বাড়িঘর-ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে আগুন, লুটপাটের ঘটনায় করা মামলা দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে নিষ্পত্তি করতে যাচ্ছে সরকার। দ্রুততম সময়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলার বিচার নিশ্চিত করতে ‘সংখ্যালঘুদের ওপর সংঘটিত অপরাধ দমনসংক্রান্ত বিশেষ ট্রাইব্যুনাল’ গঠন করার অনুরোধ জানিয়ে সম্প্রতি আইন মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আইন সচিবকে অনুরোধ করা হয়েছে। পাশাপাশি মামলাগুলোর তথ্য, এজাহার ও অভিযোগপত্রের সত্যায়িত কপি জরুরি ভিত্তিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠাতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে গত ৯ জানুয়ারি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আইন শাখা থেকে পুলিশ সদর দফতর, সব বিভাগীয় কমিশনার, পুলিশ কমিশনার, ডিআইজি, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশ সুপারকে চিঠি দেয়া হয়েছে।
সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, বিশেষ করে দেশের যেসব স্থানে সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে হামলা হয়েছে, সেসব এলাকার মামলাগুলোকে দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হবে। এর জন্য সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসকদের কাছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা, নির্যাতন, হত্যা, ধর্ষণ, বাড়ি লুট ও সম্পত্তি দখলের ঘটনায় দায়ের করা মামলাগুলোর দ্রুত বিচার করতে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করার জন্য আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। এসব সিদ্ধান্তের আগে সংখ্যালঘুদের ওপর হামলাকারীদের বিচারের বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আইন শাখার কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্র সচিব সি কিউ কে মুসতাক আহমেদ।
এর আগে মহাজোট সরকারের বিগত আমলে ২০১০ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০০১ পরবর্তী সময়ে সংঘটিত বিভিন্ন ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিরোধী দলের কয়েক হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ফৌজদারি দণ্ডবিধির আওতায় মামলা দায়ের করা হয়েছিল। এসব নেতাকর্মীর মধ্যে জোট সরকারের সাবেক একাধিক মন্ত্রী, সংসদ সদস্য এবং দলীয় প্রভাবশালী নেতা ছিলেন। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে হত্যা, লুটতরাজ, অগ্নিসংযোগ, ধর্ষণ, বসতবাড়ি থেকে উচ্ছেদ, জমি দখলসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছিল। সে সময়ও জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০০১ পরবর্তী সময়ে সংঘটিত এসব ঘটনা সরেজমিন তদন্তের জন্য সরকার একটি ‘তদন্ত কমিশন’ গঠন করে। কমিশন ২০১০ সালের ২ ফেব্রুয়ারি থেকে ঢাকার সেন্ট্রাল সার্কিট হাউজে কার্যক্রম শুরু করে। কমিশন এসব অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে নির্বাচনোত্তর সহিংস মানবতাবিরোধী অপরাধের তথ্যউপাত্ত ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের অভিযোগ ও সাক্ষ্য গ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের বসতবাড়ি ও এলাকা সরেজমিন তদন্ত কার্যক্রম পরিচালনা করে। এবারো কমিশন গঠিত হলে একইভাবে কমিশন কাজ করবে। গতবারের তদন্ত কমিশন যশোর, ঝিনাইদহ, রাজবাড়ী, পাবনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ, রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ ও ভোলা জেলার ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন ও সাক্ষ্য গ্রহণ করে। এ ছাড়া কমিশন তথ্যউপাত্ত দিয়ে সহায়তা ও মতামত গ্রহণের জন্য বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও মানবাধিকার সংগঠনের সাথে বৈঠক করে। এবার সাতক্ষীরা, যশোর, গাইবান্ধা, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, লালমনিরহাট ও বগুড়া অঞ্চলকে তদন্তে বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হবে বলে জানা গেছে।
তদন্তের পর জেলাভিত্তিক মামলাগুলো পুনরুজ্জীবিত করা হবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। হত্যার ঘটনা ঘটে থাকলে হত্যা মামলাই হবে। ধর্ষণ হয়ে থাকলে ধর্ষণের মামলা দায়ের করা হবে। এ ছাড়া সে সময় থানায় যেসব মামলা গ্রহণ করা হয়নি সেসব ক্ষেত্রে নতুন মামলা করা হতে পারে।
২০১২ সালে হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষ থেকে উচ্চ আদালতে জাতীয় সংসদ নির্বাচন-২০০১ পরবর্তী সময়ে সংঘটিত ঘটনার বিচার চেয়ে রিট করা হয়। ওই রিটের পর হাইকোর্ট একটি তদন্ত কমিশন গঠন করে তদন্ত করার নির্দেশ দেন। এ নির্দেশের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার তিন সদস্যের তদন্ত কমিশন গঠন করে। কমিশনের সদস্যরা ছিলেন সভাপতি সাবেক জেলা ও দায়রা জজ মুহাম্মদ সাহাবুদ্দিন, সদস্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মনোয়ার হোসেন আখন্দ এবং ডিএমপির যুগ্ম পুলিশ কমিশনার মীর শহীদুল ইসলাম।
দশম সংসদ নির্বাচনের পর পরই সহিংস ঘটনায় মহাজোট সমর্থিত বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে তদন্ত কমিশন এবং বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠনের দাবি তোলা হয়। এ ছাড়া পরে গণজাগরণ মঞ্চসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা বিভিন্ন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

উৎসঃ   নয়া দিগন্ত


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ