• শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন |

হাজব্যান্ডের কাছে বয়ফ্রেন্ডের এসএমএস..

মিনার রশীদ:

Minar Rosidব্রিটেনের এক মহিলা পুলিশ অফিসার। বয়স ছেচল্লিশ। নাম গেইল ক্রোকার। স্বামীর অনুপস্থিতিতে ঊনপঞ্চাশ বছর বয়সী এক কলিগের সাথে চমৎকার একটি সন্ধ্যা কাটান। ২০১৩ সালের ডিসেম্বর মাসের একটি শুভ সন্ধ্যা। তজ্জন্যে একটা বড় ধন্যবাদ টেক্স্টে পাঠায়, Thank you for wonderful evening. Only wish we could do it more often.
কিন্তু বেচারি এসএমএসটি ভুল করে হাজব্যান্ডের মোবাইলে পাঠিয়ে দেন। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। ডিজিটাল এ তীরের মাধ্যমে মারাত্মকভাবে আহত স্বামীকে বোঝাতে চেষ্টা করে যে এই মারাত্মক স্খলনটি শুধু একটিবারের জন্যই সংঘটিত হয়েছে। স্বামীধন এ কথায় ঈমান রাখতে পারেননি। অতিমাত্রায় ঘুমের বড়ি খেয়ে মহিলা অফিসারটি চিরদিনের তরে ঘুমিয়ে পড়েন।
অনেকটা একই ধরনের ভুল করেছে বর্তমান অভিযুক্ত সরকার। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে হাজব্যান্ড নামে এক্সপ্রেস ট্রেনের পরিবর্তে বয়ফ্রেন্ডের বুলেট ট্রেনে চড়ে বসেছে। বশংবদ মিডিয়া, মেরুদণ্ড ও গিলাবিহীন (লজ্জাবিহীন) নির্বাচন কমিশন নিয়ে অনেক কায়দাকানুন করলেও দেশের মানুষের কাছে এ মেসেজটিও গোপন রাখতে পারেননি। মহিলা অফিসারের চেয়েও রাম ধরা খেয়েছে সরকার। কিন্তু সেই অফিসারের মধ্যে অনুতাপ এসেছিল, অনুশোচনা এসেছিল। কিন্তু এসবের কিছুই নেই এই সরকারের মধ্যে।

সেই ভুল ট্রেনটিতে চড়ে আরো উৎফুল্ল হয়ে পড়েছে। শুধু এখানেই থেমে নেই। তার সাথে এই ভুল ট্রেনটিতে না চড়ার জন্য বিএনপি নেত্রীকে উদ্দেশ করে বলেছেন, ‘গোলাপিরে গোলাপি, ট্রেন তো মিস করলি।’ শুধু আবৃত্তি নয়- রীতিমতো ভ্রূ নাচিয়ে, ঠোঁট বাঁকিয়ে ও মাথা দুলিয়ে বিশেষ অঙ্গভঙ্গি করে তিনি অভিনয়ের মতো করে দেখিয়েছেন।
গদ্য ও পদ্য উভয় ভাণ্ডার খুবই সমৃদ্ধ আমাদের বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর। তিনি প্রায়ই এ ধরনের ছড়া কেটে দেশবাসীকে তাক লাগিয়ে দেন। এসব ছড়া কাটতে গিয়ে মাঝে মধ্যে স্থান-কাল-পাত্রজ্ঞান বেমালুম ভুলে যান। নিজের পদমর্যাদার প্রতিও খুব একটা সুবিচার করেন না।

যে ভুল ট্রেনে চড়ে আজ তিনি এত উল্লসিত সেই ট্রেনে সহযাত্রী হিসেবে পেয়েছেন শতাব্দীর কুখ্যাত এক স্বৈরাচারকে। এই ট্রেনের অন্যান্য যাত্রীর মধ্যে আছে শেয়ারবাজার, পদ্মা সেতু, হলমার্ক, কুইক রেন্টালসহ অন্যান্য সব জায়গার লুটেরারা। এখানে আছে সদ্য প্রয়াত বিচারপতি হাবিবুর রহমান কথিত বাজিকরগণ যাদের সম্পদ এই বাজির মাধ্যমে কয়েক হাজার গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ যাত্রীদের মধ্যে আছে ধর্মবিদ্বেষী ও বিভ্রান্ত কমিউনিস্টরা। যারা ‘বাইডিফল্ট’ গণতন্ত্রের প্রতিপক্ষ শক্তি। এই কমিউনিস্টরা কাউকে রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী ভাবতে পারেন না। প্রতিপক্ষকে সর্বদা শত্রু জ্ঞান করেন।

এদের বুদ্ধি আর প্রভাবের কারণেই আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় বারের মতো বাকশাল কায়েমের প্রচেষ্টায় রয়েছে। এই এক্সপ্রেস ট্রেনটির নাম বাকশাল-২। বাকশাল-১ থেকে তাজউদ্দীন আহমদ, জেনারেল ওসমানী ও ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনসহ অনেক নেতা নেমে পড়েছিলেন; কিন্তু সেই ট্রেনের ৩ নম্বর যাত্রী ছিলেন খোন্দকার মোশতাক আহমেদ। কাজেই একজন আওয়ামী সুহৃদ কষ্ট নিয়ে বলেছেন, আওয়ামী নেত্রী আবারো খন্দকার মোশতাকদের দিয়ে অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন।

নির্বাচনের আগে এরশাদ জানিয়েছিলেন, শেখ হাসিনার সাথে তিনি আর স্বর্গেও যাবেন না। এখন দেখা গেল নরকে গেলেও তিনি তাকে ছাড়বেন না। তবে এ দেশের রাজনীতিতে বিশ্ববেহায়া খেতাবপ্রাপ্ত এরশাদও সরাসরি এ ট্রেনে চড়তে সঙ্কোচ বোধ করেছিলেন। পেছনের দরজা দিয়ে অনেক সার্কাস আর কসরত করে এই ট্রেনে তার সহযাত্রী হয়েছেন।

গৃহপালিত বিরোধীদলীয় নেতা বানিয়েছেন এরশাদের সময়ে বিভিন্ন কারণে বিতর্কিত ও কুখ্যাত ফার্স্ট লেডিকে। তবে সোনার কাঁকন পড়ে থাকা হতভাগা স্ত্রীর প্রতীক হিসেবে একপর্যায়ে সমাজের অনুকম্পাও কিছুটা জুটেছিল। একজন স্ত্রী হিসেবে এরশাদের সব নৈতিক স্খলনকে মুখ বুজে সহ্য করে যাওয়া ছাড়া অন্য কোনো গুণ খুব বেশি চোখে পড়েনি। রাষ্ট্রীয় লুটপাটে বেগমদের অংশগ্রহণের সিলসিলাটি অনেকেই মনে করেন যে তার মাধ্যমেই শুরু হয়েছে। স্বৈরশাসকের অনেক কুকর্মের সঙ্গিনী আজ গণতন্ত্রের হত্যাকারীর সঙ্গিনী হয়েছেন। কাজেই তার প্রতি সমাজের বিশেষ অনুকম্পাটি ঘৃণাতে রূপান্তরিত হতে বোধ হয় খুব বেশি সময় লাগবে না।

বাংলাদেশকে মধ্যপ্রাচ্য বা আফ্রিকার কোনো দেশ ভাবলে ভুল ভাবা হবে। এই দেশকে মিসর ভাবলেও ভুল ভাবা হবে। ওই সব দেশে গণতন্ত্রের পক্ষে বিপক্ষে জনগণের বিভক্তি থাকে ফিফটি-ফিফটি অথবা সিক্সটি-ফরটি। আমাদের দেশটিতে গণতন্ত্রের পক্ষে ৯০ শতাংশ জনগণ থাকে ও বিপক্ষে থাকে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ। বিভিন্ন পরিসংখ্যান এবং ৫ নির্বাচনে ভোটারদের উপস্থিতির সংখ্যা এ কথাটি আবারো সত্য বলে প্রমাণ করেছে।

বর্তমান বিরোধী দলটিকে গৃহপালিত বিরোধী দল বললেও মনের ভাবটি ঠিকভাবে প্রকাশিত হয় না। এটি নিয়ে ভাবতে গিয়ে আমাদের গ্রামের ফতে (ফাতেমা) আর ছালাম দম্পতির কথা মনে পড়ে যায়। সকালে ঘুম থেকে উঠে শোনতাম ফতেকে তিন তালাক দিয়ে তাড়িয়ে দিয়েছে ছালাম। দুই দিন পর আবার খবর আসত যে আবার বিয়ে ছাড়াই সেই একই ফতেকে এনে ঘরে তুলেছে। এ ঘটনা একবার নয়। দু’বার নয়। ফতে-ছালামের এই পুনর্মিলন পুনঃপুন ঘটতে থাকত। নির্বাচনের আগে এরশাদ আর সরকারের ডিভোর্স ও পুনর্মিলন নিয়ে যে উৎকণ্ঠায় দেশবাসীর সময়টি কেটেছে, অনেকটা একই উৎকণ্ঠা আর উৎসাহ নিয়ে ছালাম-ফতে দম্পতির ঘটনাগুলো উপভোগ করতেন গ্রামবাসী।

সিনেমার মতো মাঝখানে কোনো মোড়ল বা মুন্সি হিল্লা বিয়ে নিয়ে হাজির হতো না। কাজেই রঙিন সিনেমা না হয়ে এটা হতো গ্রামবাংলার নেহাত একটা সাদা-কালো সিনেমা। কাজেই তাদের কখন ‘তালাক-মোড’ আর কখন ‘বিয়ে-মোড’ এই হিসাব রাখা গ্রামবাসীর জন্যও কঠিন হয়ে পড়ত।
তাদের নিয়ে গ্রামের মানুষের হাসাহাসিকে ছালাম-ফতে দম্পতি কোনো পাত্তাই দিতেন না। একইভাবে গ্লোবাল ভিলেইজের হাসাহাসি আর অস্বস্তিকে বাংলা মুলুকের ছালাম (সরকার) ও ফতে (বিরোধী দল) ড্যাম কেয়ার করছে। ইকোনমিস্ট, নিউ ইয়র্ক টাইমসসহ বিশ্বের প্রথম শ্রেণীর সব গণমাধ্যম কী বলল তা নিয়ে ছালাম-ফতের মতোই নির্লিপ্ত এই রাজনৈতিক যুগল।
কিছুসংখ্যক জ্ঞানী-গুণী সরকারকে ভালো ভালো কাজ করে জন্মের ত্রুটিটি সেরে নিতে উপদেশ দিচেছন। কেউ কেউ তো আগামী পাঁচ বছরই ক্ষমতায় টিকে থাকার স্বপ্ন দেখা শুরু করেছেন। গণতন্ত্রের এই মুন্সিদের পরামর্শ দেখে ছালাম-ফতে দম্পতির ওপর কাল্পনিক কোনো মুন্সির ডায়ালগ মগজে চলে এসেছে, ‘হারামজাদা, তিন তালাক উচ্চারণ করে বিয়ের কলেমাটির বারোটা বাজিয়ে ফেলেছিস। এখন যতবার ফতে বিবির হাত ধরবি, ততবারই বেশি করে দোয়া-দুরুদ পড়বি।’

বিয়ের মূল কলেমার ক্ষতি করে পরে উঠতে বসতে দোয়া-দুরুদ পড়ে তা রিপেয়ার করা যায় না। তেমনি ভালো কাজের ওয়াদা করে জন্মের ত্রুটি সারতে পারবে না এ সরকার। ওবায়দুল কাদেরসহ আরো কিছু মন্ত্রী এ ধরনের দোয়া-দুরুদ বেশি বেশি পড়ছেন। সরকার জাতিকে কোন বালুতে আটকিয়েছেন তার কোনো হদিস নেই; কিন্তু এখন চাপাবাজি করছেন যে বিএনপি ভুলের চোরাবালিতে আটকা পড়েছে।

অথচ গণতন্ত্র ও সভ্যতার মাপকাঠিতে বিশ্ব সভায় আমরা মাঝামাঝি একটা জায়গায় পৌঁছে গিয়েছিলাম। গণতান্ত্রিক আচরণে অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও আমরা ধীরে ধীরে কাক্সিক্ষত লক্ষ্য পানে এগোচ্ছিলাম। এ যাত্রার নিমিত্তে অনেক কাঠখড় পুড়িয়ে সুন্দর একটা ট্রেন তৈরি হয়েছিল। গণতন্ত্রের এ ট্রেনটি কিছুটা ঠক্কর ঠক্কর করে সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছিল। এ ট্রেনের নাম ছিল নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার। দেশের ৯০ শতাংশ মানুষ এ ট্রেনের শিডিউল পূর্বাপর চালু রাখতে চেয়েছিল।

এ দেশের মানুষ এখন থেকে অর্ধশতাব্দী বা তার আগেই প্রকৃত গণতন্ত্রকে চিনতে পেরেছে। গণতন্ত্রকে নিয়ে স্বৈরাচারী শাসকদের টালবাহানা কত প্রকার ও কী কী হতে পারে, তা উদাহরণসহ এ দেশের মানুষ দেখেছে। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী যখন ধর্মের দোহাই দিয়ে গণতন্ত্রকে অবরুদ্ধ করতে চেয়েছিল, তা এ দেশের মানুষ মেনে নেননি। যদিও এ দেশের বেশির ভাগ মানুষ ছিলেন ধর্মপ্রাণ। কোনটা ধর্মের দোহাই আর কোনটি প্রকৃত ধর্ম সেটি বোঝার মতো ক্ষমতা তারা অনেক আগেই আয়ত্ত করতে পেরেছিল। তেমনি আজকের প্রেক্ষাপটে কোনটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার দোহাই আর কোনটি প্রকৃত চেতনা, তা তাদের অনুভবে ঠিকভাবেই ধরা পড়েছে। মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা ছিল এই গণতন্ত্র। গণতন্ত্রের দাবিমতো নির্বাচিত প্রতিনিধির হাতে তখন ক্ষমতা হস্তান্তর করলে ১৯৭১-এর যুদ্ধটিরই প্রয়োজন পড়ত না।

১৯৭১ সালে বৃহত্তর জনগণের ধর্মীয় আবেগ ও রাজনৈতিক আবেগ বিপরীতমুখী হওয়ায় তখনকার ইয়াহিয়া ও মোনায়েম খানরা কিছুটা বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছিল; কিন্তু আজ গণতান্ত্রিক চেতনা ও ধর্মীয় চেতনা একই দিকে থাকায় বর্তমানের খান ও খানমদের জন্য শোচনীয় পরাজয় অপেক্ষা করছে। নাইন-ইলেভেন-পরবর্তী বিশ্বে যে ইসলাম ফোবিয়া সৃষ্টি হয়েছিল, তা ভাঙিয়েও বেশি দিন চলতে পারবেন না। সেই ফোবিয়ার প্রভাবটিও মানব প্রজ্ঞার কাছে হার মানছে। একমাত্র ইন্ডিয়া ছাড়া বহির্বিশ্বে এ সরকারের আর কোনো সমর্থন নেই। আমার বিশ্বাস, ইন্ডিয়ার জনগণও অচিরেই তাদের এই ভুলটি বুঝতে পারবেন। ১৬ কোটি মানুষকে অস্বস্তিতে রেখে তারা নিজেদের শান্তি নিশ্চিত করতে পারবেন না। কাজেই কোনো দলের সাথে অবৈধ প্রেম নয়, এ দেশের জনগণের সাথে সুসম্পর্ক তৈরি ইন্ডিয়ার স্বার্থেই জরুরি।
ওপরের এসব বিষয় আজ আমাদের অনেকের উপলব্ধিতে এসেছে; কিন্তু সমস্যা হলো, সরকার তো তা কোনোভাবেই শুনছে না। কোনো সদুপদেশ এ সরকারের কানে পৌঁছছে না; বরং এমন ভাব দেখাচ্ছে যেন কিছুই হচ্ছে না। এর প্রতিকার কী?

এ জনসমর্থনহীন সরকারের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার হচ্ছে দেশের বশংবদ মিডিয়া। যেসব মিডিয়াকে নিজের জন্য হুমকি মনে করেছে সেসব মিডিয়াকে গায়ের জোরে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কাজেই কনভেনসনাল মিডিয়ার সাহায্যে নব্য এ বাকশালের সাথে যুদ্ধ করা সম্ভব হবে না।
এ বাকশালের জন্য সত্যিকারের চ্যালেঞ্জ সৃষ্টি করতে পারে সামাজিক যোগাযোগের বিকল্প মাধ্যমগুলো। গণতন্ত্রের পক্ষের শক্তিকে এ দিকে সর্বোচ্চ মনোযোগ দেয়া দরকার।

আজ গণতন্ত্রের পক্ষের প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে এ ব্যাপারে বিশেষ উদ্যোগ নেয়া জরুরি। বিশেষ করে বিএনপির এগিয়ে আসা জরুরি। বিভিন্নপর্যায়ে ওয়ার্কশপ, ট্রেনিং সেশন ও সেমিনারের মাধ্যমে ইন্টারনেট প্রযুক্তির প্রচার ও প্রসার বাড়ানো সম্ভব। দেশের ভেতরে ও বাইরে সব নেতা, কর্মী ও সমর্থককে ইন্টারনেট, ফেসবুক ও টুইটার প্রভৃতির ব্যবহার শিখতে হবে এবং তা ব্যবহার করতে হবে। যে শ্রেণী ইন্টারনেটের আওতায় এখনো আসেননি তাদের কাছে প্রয়োজনীয় মেসেজ এসএমএসের মাধ্যমেও ছড়িয়ে দেয়ার ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। ছোট্ট ও আকর্ষণীয় মেসেজ লিখে তা নিজেদের রাজনৈতিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতে হবে।

স্বৈরাচারী সরকার এবং তার এজেন্সিগুলোও বসে থাকবে না। তারাও বিভ্রান্তি সৃষ্টির প্রচেষ্টা চালাবে; কিন্তু সরকারের নৈতিক ভিত্তি দুর্বল বলে তারা হার মানতে বাধ্য। কারণ চাপা বা কলমের জোর যতই থাকুক না কেন, নৈতিকভাবে দুর্বল কোনো বিষয় নিয়ে বেশি দূর অগ্রসর হতে পারবে না।

কাজেই যাদের হাতেই এ লেখাটি পৌঁছেছে তারা আজই একটি ই-মেইল ও ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলে ফেলুন। ডিজিটাল জগতে আপনার এ পদচারণার সাথে সাথে স্বৈরাচারের গা থেকে একটি লোম খসে পড়বে। ইন্টারনেট প্রযুক্তির ব্যবহার তেমন জটিল কিছু নয়। দু-এক দিন ব্যবহার করলেই বিষয়টি আপনার কাছেও অত্যন্ত সহজ হয়ে পড়বে। যারা ইতোমধ্যে এসব ব্যবহার করছেন, তারাও আশপাশের আরো অন্তত ১০ জনকে এর ব্যবহার বিধি শিখতে সহযোগিতা করতে পারেন। আমিও ইন্টারনেট, ফেসবুকের অনেক কিছু শিখেছি আমার স্কুলপড়–য়া ছেলের কাছ থেকে।
এ উদ্দেশ্যকে সামনে নিয়ে আমি নিজেও একটি ফেসবুক পেইজ খুলেছি। কোনো বিষয়ে আমার মতামত ও বিশ্লেষণ সাথে সাথেই এই পেইজটিতে পেতে পারেন। পেইজের লিংকটি হলো, https://www.facebook.com/minar.rashid

স্কুল-কলেজের নতুন প্রজন্মের ছেলেমেয়েরা বাবা-মা অন্যান্য আত্মীয়স্বজনকেও শেখাতে পারে। ইন্টারনেটের জ্ঞান না থাকলে নতুন প্রজন্মও পিছিয়ে পড়বে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশিত বিভিন্ন মন্তব্য, ছবি বিভিন্ন পারিবারিক ও সামাজিক সমাবেশে অন্যদের সাথে আলোচনা করুন। ছোট-বড় পারিবারিক কিংবা সামাজিক সমাবেশে আপনার যুক্তিগুলো বলিষ্ঠভাবে তুলে ধরুন। আপনি নীরব হলে বাকশাল বিভিন্ন সুশীল চেহারা ধারণ করে সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে ছড়িয়ে পড়বে। কাজেই সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়ভাবে বাকশালকে প্রতিহত করুন।

সংবাদপত্রের অনলাইন সংস্করণে গিয়ে নিজের মতামত, হতাশা, অভিযোগ, পছন্দ, অপছন্দ তুলে ধরুন। মূল ধারার মিডিয়াগুলো যতই একচোখা বা কোনো শক্তির পক্ষপাতিত্ব করুক না কেন, আপনার এ মতামত বা ফিডব্যাককে গুরুত্ব দিতে বাধ্য হবে।

কারণ অনেক মিডিয়া চালু থাকায় তাদের মধ্যেও শ্রোতাদের কাছে গ্রহণযোগ্য ও নিরপেক্ষ সাজার একটা প্রতিযোগিতার চাপ কাজ করে। বিকল্প সামাজিক মাধ্যমগুলোর যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমে এ কনভেনশনাল মিডিয়াগুলোকে তাদের ইচ্ছের বিরুদ্ধে হলেও বস্তুনিষ্ঠ অবস্থানে ধরে রাখা সম্ভব। ব্যক্তিগত আচরণে একজন মানুষ যতই অযৌক্তিক ও একগুঁয়ে সাজার চেষ্টা করুক না কেন, কোনো মানবসমাজ সম্মিলিতভাবে যুক্তির বাইরে বেশিক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না।

এ ব্যাপারে আমাদের মধ্যে একটা ক্ষতিকারক চিন্তা বা আলসেমি কাজ করে। মনে মনে ভাবি, গুরুত্বপূর্ণ কাজটি আমি না করলেও অনেকেই করে ফেলবেন। এ ব্যাপারে একটা দামি পর্যবেক্ষণ আছে- There was an important job to be done agreed by all. Everybody thought that somebody will do it. Anybody could do it. But finally Nobody did it.

কাজেই কেউ না কেউ করবে এমনভাবে না ভেবে আপনার মনের কথাটি দৈনিকভিত্তিতে না হলেও সপ্তাহে একবার কোনো-না-কোনো অন লাইন পত্রিকার মন্তব্য কলামে পাঠিয়ে দিন। ফেসবুকে স্ট্যাটাস বা লাইক দিন। আপনার ভাষাটি উঁচু দরের সাহিত্য হওয়ার দরকার নেই। আপনি সাহিত্য সৃষ্টি করছেন না। চাচ্ছেন বাকশালের মৃত্যু ঘটিয়ে গণতন্ত্রের পুনরুত্থান। আপনার এ মন্তব্য, স্ট্যাটাস ও লাইকগুলোও গণতন্ত্রের ইতিহাসে জ্বলজ্বল করে জ্বলবে। আর তা দেখে সবচেয়ে বড় তৃপ্তি পাবে আপনার এ দু’টি চোখ।
(নয়া দিগন্ত, ০৬/০২/২০১৪)


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ