• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন |

হুমকিতে ভয় পায় না বিদ্রোহীরা!

ECসিলেট: উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে একক প্রার্থী দেয়ার জন্য দফায় দফায় বৈঠক করেও ব্যর্থ হয়েছে আওয়ামী লীগ ও ১৯ দলীয় জোট। এমনকি দল থেকে বহিষ্কারের হুমকি দিয়েও বিদ্রোহী প্রার্থীদের ঠেকাতে পারেনি তারা। এখন বিদ্রোরীরা উল্টো হুমকি দিয়ে দলের সিদ্ধান্তকে অমান্য করেই নির্বাচনী মাঠে প্রচার-প্রচারণায় বস্ত্য সময় পার করছেন।
জানা গেছে, আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে সিলেট জেলার ৬ উপজেলার সবকটিতেই চেয়ারম্যান পদে লড়ছেন আওয়ামী লীগ ও ১৯ দলীয় জোটের একাধিক প্রার্থী। আছেন জাতীয় পার্টি ও জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীও। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গোলাপগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগের ৩ জন ও বিএনপির ৩ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। একই ভাবে ভাইস চেয়ারম্যান পদেও সব উপজেলায় একই দলের একাধিক প্রার্থী রয়েছেন।
সিলেটের ৬ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ১১, বিএনপির ১০, জাতীয় পার্টির ৩ জন ও জামায়াতের ৩ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে (পুরুষ) রয়েছেন আওয়ামী লীগের ১১, বিএনপির ১৫, জাতীয় পার্টির ৩, জামায়াতের ১, জমিয়তের ২ ও খেলাফত মজলিসের ৩ প্রার্থী। এছাড়াও ভাইস চেয়ারম্যান (নারী) পদে আওয়ামী লীগের ৯ ও বিএনপির ৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
গত মঙ্গলবার তারা প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার পর পোস্টার-লিফলেট ছাপিয়ে প্রচারণায় ঝাঁপিয়ে পড়েন। বরং দলীয় সমর্থীত প্রার্থীদের চ্যালেঞ্জ দিয়েই তারা মাঠে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সরকার দলীয় এক বিদ্রোহী চেয়াম্যান পদ প্রার্থী বাংলামেইলকে বলেন, ‘দলের সিদ্ধান্ত না থাকা সত্ত্বেও আমি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি।’
কেন দলের সিদ্ধান্ত মেনে নিলেন না, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘জন সমর্থনহীন লোকদেরকেই দল বাছাই করেছে। তাই আমি দলকে চ্যালেঞ্জ দিয়ে মাঠে নেমেছি।’
দলীয় সূত্রে জানা যায়, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ সম্ভাব্য প্রার্থী ও তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে দফায় দফায় সভা করে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে একক প্রার্থী ঘোষণা করে। গত সোমবার সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের কর্মীসভায় দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য ওবায়দুল কাদের, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি, আইন বিষয়ক সম্পাদক আবদুল মতিন খসরু, সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ দলের সিদ্ধান্ত অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ারও ঘোষণা দেন। এরপরও প্রতিটি উপজেলায় দলীয় সমর্থন বঞ্চিতরা ভোটযুদ্ধে নেমেছেন।
একইভাবে জোটের পক্ষ থেকে একক প্রার্থী দেয়ার লক্ষ্যে গত একসপ্তাহ সিলেটে অবস্থান করেন কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান শমসের মুবীন চৌধুরী। জোটের সম্ভাব্য প্রার্থীদের সঙ্গে মতবিনিময় করে তিনি প্রার্থী ঘোষণা করেন। কিন্তু দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে সবকটি উপজেলায় বিদ্রোহী প্রার্থীরা মাঠে রয়েছেন।
দলীয় সূত্র জানায়, গোলাপগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ইকবাল আহমদ চৌধুরী দলীয় সমর্থনে প্রার্থী হলেও বর্তমান ভাইস-চেয়ারম্যান হুমায়ূন ইসলাম কামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক আকবর আলী ফখর বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। একই পদে ১৯ দলীয় জোটের পক্ষে উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জিলাল উদ্দিনকে প্রার্থী দিলেও বিএনপি নেতা নছিরুল হক শাহীন, জেলা ছাত্রদল সভাপতি এমরান আহমদ চৌধুরী ও উপজেলা জামায়াতের আমীর হাফিজ নজমুল ইসলাম বিদ্রোহী প্রার্থী হন।
এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে আওয়ামী লীগ নেতা শরিফ উদ্দিন মোহাম্মদ শরফ উদ্দিন, বিএনপি নেতা মুজিবুর রহমান মুজিব, নোমান উদ্দিন মুরাদ, মামুনুর রশিদ মামুন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হক বাবুল মিয়া, সোহেল বকস, শাহিন আহমদ, জাতীয় পার্টির আনিসুজ্জামান পাবলু, ভাইস চেয়ারম্যান (নারী) পদে আওয়ামী লীগের নাজিরা বেগম শীলা ও বিএনপির শাহানা হোসাইন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
বিশ্বনাথ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের ফিরোজ খান পংকী খান একক প্রার্থী থাকলেও ১৯ দলীয় জোটের রয়েছে বিদ্রোহী প্রার্থী। বিএনপির সুহেল আহমদ চৌধুরীকে দলীয় সমর্থন দেয়া হয়েছে। কিন্তু জামায়াতের নিজাম উদ্দিন সিদ্দিকী বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভাইস-চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে লড়ছেন আওয়ামী লীগের আলতাব হোসেন, বিএনপির আহমেদ নূর উদ্দিন, আবুল কালাম ও মিসবাহ উদ্দিন, খেলাফত মজলিসের আব্দুল ওয়াদুদ ও স্বতন্ত্র মো. নুরুজ্জামান ও ফজল খান। একই পদে (নারী) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের আঙগুরা বিবি ও চৌধুরী শারমিন রহমান, বিএনপির নুরুন্নাহার ইয়াসমিন ও বেগম স্বপ্না শাহীন।
কোম্পানীগঞ্জে জাহাঙ্গীর আলম আওয়ামী লীগের ও আলী আহমদ বিএনপির সমর্থন পান। এই উপজেলায় দুই দলেরই বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের আবদুল বাছির ও বিএনপির শাহাব উদ্দিন। এছাড়াও জাতীয় পার্টির মুক্তার উদ্দিন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে আওয়ামী লীগের হুমায়ূন কবির মছব্বির, অ্যাডভোকেট শাহজাহান চৌধুরী ও সমছুল হক, বিএনপির আব্দুল মতিন, ইসরাফিল আলী, কামাল উদ্দিন ও লাল মিয়া, স্বতন্ত্র আতাউর রহমান ও ফরিদ আহমদ। নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ছাত্রলীগের সাবেক নেত্রী নাসরিন জাহান ফাতেমা, আওয়ামী লীগের রমা রাণী দাস ও বিএনপির নুরুন নাহার ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছেন।
চেয়ারম্যান পদে জেলার জকিগঞ্জ উপজেলায় লোকমান উদ্দিন চৌধুরী আওয়ামী লীগের ও ইকবাল আহমদ বিএনপির সমর্থন পান। তাদের সাথে বিদ্রোহী হিসেবে রয়েছেন আওয়ামী লীগের ইউনূছ আলী ও বিএনপির সাইফ উদ্দিন খালেদ। এছাড়াও জাতীয় পার্টির মরতুজা আহমদ ও সিরাজুল হক প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের মোস্তাকিম হায়দার ও শহিদুল ইসলাম, বিএনপির চেরাগ আলী ও সারওয়ার হোসাইন চৌধুরী রাজা, জামায়াতের গোলাম রোকবানী চৌধুরী, জমিয়তের বিলাল আহমদ ইমরান ও খেলাফত মজলিসের মুহাম্মদুল্লাহ বুলবুল। নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগের সাজনা সুলতানা হক চৌধুরী, বিএনপির ইয়াহিয়া বেগম ও সুলতানা আক্তার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
গোয়াইনঘাট উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা আব্দুল হাকিম চৌধুরী, আওয়ামী লীগের নেতা মুক্তিযোদ্ধা লুৎফুর রহমান লেবু দলীয় সমর্থন পেয়েছেন। এছাড়াও ওই উপজেলায় জমিয়তের আবু বকর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে লড়ছেন বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট জামাল উদ্দিন ও মনসুর আহমদ বাবুল, বিএনপি নেতা জয়নাল আবেদীন ও শাহ আলম স্বপন, খেলাফত মজলিসের শামসুদ্দিন মুহাম্মদ ইলিয়াস। নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান বিএনপির খোদেজা রহিম কলি, আওয়ামী লীগের আফিয়া বেগম ও মনোয়ারা বেগম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
জৈন্তাপুরে মো. আবদুল্লাহকে দলীয় সমর্থন দেয়া হলেও তার সাথে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে রয়েছেন আওয়ামী লীগের কামাল আহমদ। কিন্তু এই উপজেলায় ১৯ দলের একক প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন জামায়াত নেতা জয়নাল আবেদীন। ভাইস চেয়ারম্যান (পুরুষ) পদে আওয়ামী লীগের সিরাজুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট আলতাফ হোসেন ও এবাদ উল্লাহ, বিএনপির ফারুক আহমদ, জাতীয় পার্টির মুজিবুর রহমান, বুরহান আহমদ ও বশির উদ্দিন, জমিয়তের মাওলানা কবির আহমদ। নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেত্রী জয়মতি রানী, বিএনপির আয়শা সিদ্দিকা পারুল, স্বতন্ত্র প্রার্থী আয়শা খাতুন, তসলিমা বেগম, আয়শা ইসলাম, শিরীন আক্তার ও সুফিয়া বেগম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
বিদ্রোহী প্রার্থীদের ব্যাপারে সিলেট জেলা বিএনপির জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি দিলদার হোসেন সেলিম বাংলামেইলকে বলেন, ‘বিদ্রোহী প্রার্থীদের ব্যাপারে কেন্দ্র থেকে নির্দেশনা রয়েছে। কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বাংলামেইলকে বলেন, ‘যেসব প্রার্থীকে দল সমর্থন দিয়েছে নেতাকর্মীদের তাদের পক্ষে কাজ করতে হবে। যারা সিদ্ধান্ত না মেনে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

বাংলামেইল


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ