• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০২:২৭ অপরাহ্ন |

ইরাকে নারী বন্দিদের ওপর অমানবিক নির্যাতন

Humanআন্তর্জাতিক ডেস্ক: ইরাকের হাজার হাজার নারী বন্দির ওপর ধর্ষণসহ অকথ্য নির্যাতন চালাচ্ছে জেল কর্তৃপক্ষ। এসব বন্দিদের অধিকাংশকেই অভিযোগ ছাড়াই বছরের পর বছর ধরে আটকে রাখা হয়েছে। বৃহস্পতিবার মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ প্রকাশিত এক রিপোর্টে এ অভিযোগ করা হয়েছে।

সংস্থাটির  ‘নো ওয়ান ইজ সেইফ :অ্যাবিউজেস অব ওমেন ইন ইরাকস ক্রিমিনাল জাস্টিস সিস্টেমস’ শিরোনামে প্রকাশিত ১০৫ পৃষ্ঠার ওই রিপোর্টটিতে নির্যাতনের নানা তথ্য তুলে ধরা হয়।তাদের দাবি, কোনও কারণ ছাড়াই মহিলা বন্দিদের ওপর নানা ধরনের শারীরিক নির্যাতন চালান হচ্ছে।কখনও আবার উল্টো করে ঝুলিয়ে রেখে মারা হচ্ছে পায়ের তলায়। অসহ্য যন্ত্রণায় চীৎকার করে  উঠলেও রেহাই নেই। তখন চলে ইলেকট্রিক শক দেওয়ার পালা। এখানেই  শেষ নয়। জেরার সময় প্রায়শই যৌন নিগ্রহের ভয় দেখাচ্ছেন জেল কর্তৃপক্ষ। কখনও আবার আত্মীয়, পরিজনদের সামনেই ধর্ষণ করা হচ্ছে এই নারী জেলবন্দিদের।
সংস্থার দাবি, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নারী বন্দিদের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট কোনও অভিযোগ নেই। তাদের পুরুষ আত্মীয়দের কৃতকর্ম সম্পর্কে জেরা করতেই তাঁদের বন্দি করা হচ্ছে। কিন্তু সে বন্দিত্ব থেকে মুক্তির পথ নেই। দিনের পর দিন চার্জ গঠন না করে, আদালতে মামলা না তুলে জেরার নামে মহিলাদের উপর নির্যাতন চালাচ্ছে ইরাকের নিরাপত্তা বাহিনী। এ বিষয়ে সরকারও কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

তবে  এই রিপোর্ট প্রকাশের পরপরই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে ইরাক। মানবাধিকার মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র জানান, রিপোর্টের বর্ণনা অনেকটাই অতিরঞ্জিত। কিন্তু পুরোপুরি বিষয়টিকে অস্বীকারও করেননি তিনি। বলেছেন, ‘বন্দিদের সঙ্গে নিরাপত্তা বাহিনী যে বেআইনি ব্যবহার করছে, তা নিয়ে কিছু ঘটনা আমরাও জেনেছি।’ ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে তা জানানো হয়েছে বলেও দাবি করেছেন মুখপাত্র।   খুব শীঘ্রই অত্যাচার বন্ধ হবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।
তবে মানবাধিকার বিষয়ক পর্যবেক্ষণ সংস্থাটির রিপোর্ট থেকে সে রকম কোনও ইঙ্গিত মেলেনি। তাঁদের হিসেব মতো, এ মুহূর্তে প্রায় চার হাজার দু’শো মহিলা বন্দি রয়েছেন ইরাকের অভ্যন্তরীণ এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ জেলগুলিতে। তাঁদের মুক্তির দাবিতে ইরাকের বাসিন্দাদের একাংশ প্রতিবাদ বিক্ষোভও জানিয়েছেন। কিন্তু কিছু লাভ হয়নি।
তথ্য যোগাড় করতে বিভিন্ন জেলে মহিলা বন্দিদের সাক্ষাৎকার নিতে গিয়েছিলেন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ কর্মীরা। বাগদাদের এক জেলে পৌঁছে চোখ কপালে উঠে যাওয়ার যোগাড় হয় তাঁদের। এক মহিলা বন্দি বেরিয়ে এলেন ক্রাচে ভর দিয়ে। জানালেন, স্রেফ অত্যাচারের কারণেই তাঁর এই হাল। ভবিষ্যতে  ক্রাচের সাহায্য ছাড়া চলতে পারবেন না তিনি। এতেই শেষ নয়। সাত মাস বাদে সেই মহিলার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করে নিরাপত্তাবাহিনী। নিম্ন আদালত যদিও মহিলাকে বেকসুর খালাস করেছিল।
ইরাকে মহিলা বন্দিদের ভাগ্যনির্ধারক এখন বিচারবিভাগ বা প্রশাসন নয় – নিরাপত্তাবাহিনী। তাই প্রতিবাদ আর বিক্ষোভেও তাদের ভাগ্য বদলায় না।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ