• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১১:৪৮ অপরাহ্ন |

কোটিপতি হতে হাজার মাইল পেরিয়ে…

indiaআন্তর্জাতিক ডেস্ক : একচল্লিশ বছর বয়সী রতন কুমারের গ্রামের বাড়ি ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় শহর ওডিশার প্রত্যন্ত অঞ্চলের এক গ্রামে। সে গ্রামের বাড়ি থেকে হাজার মাইলেরও বেশি পথ পাড়ি দিয়ে রাজধানী দিল্লির বিবিসির অফিসে এসেছিলেন একবুক আশা নিয়ে। বেকার এ মানুষটির চোখে ছিলো স্বপ্ন। বিবিসির অফিসে এসেই কোটিপতি বনে যাবেন, বাড়ি-গাড়ি হাঁকিয়ে বাকি জীবনটা আরাম-আয়েশে কাটিয়ে দিবেন।
কিন্তু ততোক্ষণেও গ্রামের সহজ-সরল, স্বল্প শিক্ষিত এ মানুষটি বুঝতে পারেননি কত বড় ধোকায় পড়ে তিনি হাজার মাইল পাড়ি দিয়েছেন। এখন তার ৩০ মিলিয়ন রুপি (ভারতীয় মুদ্রা) পাওয়ার আশায় গুড়ে বালি পড়েছে।
২০১২ সালের এপ্রিলে রতন ‍কুমার তার মোবাইলে একটি ম্যাসেজ পান। ম্যাসেজে বলা হয় তিনি বিবিসির জাতীয় লটারি জিতেছেন। এতে তিনি ৩০ মিলিয়ন রুপি পাবেন। এরপর যোগাযোগ করলে টাকা পাঠানোর জন্য বিস্তারিত পাঠাতে বলা হয়। রতন কুমার এরপর তার ব্যাংক হিসাব এবং অন্যান্য তথ্য তাদের পাঠিয়ে ইমেইল করেন। প্রতারকদের সঙ্গে গত দুই বছরে তার কয়েকবার কথাও হয়েছে।
সর্বশেষ, গত মাসে তিনি প্রতিশ্রুতি মোতাবেক টাকা পাওয়ার আশায় বন্ধুদের কাছ থেকে টাকা ধার করে একটি জামা ও দুই পায়জামাকে সম্বল করে দিল্লির উদ্দেশে রওনা দেন। সন্ধ্যায় দিল্লিতে পৌঁছে রাতটি রেল স্টেশনে কাটিয়ে সকালে উপস্থিত হন দিল্লির বিবিসি অফিসে।
রতন কুমার বলেন, লটারি জেতার প্রথম ম্যাসেজ পাওয়ার পরই সময় ক্ষেপণ না করে বিস্তারিত জানতে চেয়ে ম্যাসেজ পাঠান। এর কয়েক মিনিটের পর তাকে কলব্যাক করা হয়। কলার নিজেকে বিবিসির চ্যান্সেলর হিসেবে পরিচয় দিয়ে লটারিতে জেতা টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে পাঠানোর জন্য রতন কুমারের কাছে ১২ হাজার টাকা দাবি করেন। রতন কুমার দারিদ্র্যের কথা জানিয়ে ১২ হাজার টাকা দিতে অক্ষমতা প্রকাশ করেন। এরপর ১২ হাজার টাকা কমিয়ে ৪ হাজার টাকা পাঠাতে বলা হয়। রতন কুমার তাতেও অক্ষমতা প্রকাশ করেন। রতন কুমার ‘চ্যান্সেলর’কে বলেন, তার জেতা ৩০ মিলিয়ন রুপি থেকে ৪ হাজার রুপি কেটে নিয়ে বাকিটা পাঠাতে। ‘চ্যান্সেলর’ এতে অপারগতা প্রকাশ করেন।
এরপর রতন কুমার তার পরিবারের দারিদ্র্যের কথা জানিয়ে একটি চিঠি লেখেন। সঙ্গে তার তিন কন্যা, স্ত্রীর একটি ছবিও পাঠান এবং ‘চ্যান্সেলর’কে তার পরিবারকে সাহায্য করতে অনুরোধ করেন।
রতন কুমার বলেন, চ্যান্সেলর বরাবরই আমার প্রতি সদয় ছিলেন। তিনি বলেছিলেন ভারত সফরে এলে তার সঙ্গে দেখা করবেন। গত নভেম্বরে শেষ কথা হওয়ার সময় ‘চ্যান্সেলর’ একটি চেকের বিষয়ে জানতে চান, যেটি রতন কুমারের উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে। সেই চেকটি নিতেই তিনি ১ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে দিল্লিতে এসেছেন।
ভারতের প্রশাসনের পক্ষ থেকে এমন ধোকায় পড়ে নিজের ব্যাংক হিসাব কাউকে না দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এতে ওই সংঘবদ্ধ চক্র ব্যাংক হিসাব থেকে টাকা চুরি করতে পারে। বিশ্বের কয়েকটি দেশে এমন ঘটনা ঘটেছে। সূত্র: বিবিসি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ