• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩৮ অপরাহ্ন |

জলঢাকায় উপজেলা প্রকৌশলী অবরুদ্ধ

JALDHAKA PICমানিক লাল দত্ত: নীলফামারীর জলঢাকায় সরকারী দরের উর্ধে উপজেলা প্রকৌশলীর যোগসাজসে ছয় কোটি এক লাখ টাকার কাজ ভাগাভাগি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসি জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুর সময় দরপত্র ফেলাকে কেন্দ্র করে উপজেলা পরিষদের ক্যাম্পাসের ভিতরে তুমুল শোরগোল শুরু হয়। একপর্যায়ে তা সংঘর্ষে রুপ নেয়। এসময় শামীম নামে এক ঠিকাদারের প্রতিনিধি সিডিউল জমা দিয়ে অফিস থেকে যাওয়ার পথে তাকে মারধর করে উপজেলা টেন্ডার সিন্ডিকেটের লেলিয়ে দেওয়া বাহিনীরা। অপর দিকে এ অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে উপজেলা প্রকৌশলীকে নিজ কার্যালয় কিছু সময়  অবরুদ্ধ করে রাখে স্থানীয় স্বেচ্ছা সেবক লীগের কর্মীরা। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। উপজেলা প্রকৌশলী দপ্তর সূত্রে জানা যায়, তৃতীয় প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচী (পিইডিপি-৩) গত ১ জানুয়ারী/১৪ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে অত্র দপ্তর হতে দুই ভাগে ৬ কোটি ১ লাখ টাকার দরপত্র আহবান করা হয়। প্রথম দফায় দরপত্র জমা দানের শেষ দিন ছিল ৪ফেব্র“য়ারী এবং দ্বিতীয় দফার শেষ দিন ছিল ৬ ফেব্র“য়ারী বৃহস্পতিবার। প্রতিটি সিডিউল ক্রয় মূল্য ছিল তিন হাজার টাকা। এসব দরপত্রে প্রথম দফায় তিনটি প্যাকেজের বিপরীতে ৪৯টি সিডিউল বিক্রি হয় এবং জমা পরে মাত্র ১২টি। দ্বিতীয় দফায় গত বৃহস্পতিবার ৫২টি সিডিউল বিক্রি হলেও জমা পরে মাত্র ১০টি । দপ্তর সূত্র আরও জানায় এ সিডিউলগুলো শুধু অত্র উপজেলায় বিক্রি হয়েছে আর অন্যান্য স্থানে সিডিউল বিক্রির হিসাবগুলো এখনও হাতে আসেনি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন ঠিকাদার জানান, কোথাও সরকারী দরের অনেক উর্ধে দরপত্র দাখিল করেছে,আবার কোথাও সরকারী দরের অনেক নিচে দরপত্র দাখিল করে সরকারী রাজস্ব ফাঁকি দেওয়ার চেষ্টায় লিপ্ত হয়েছে এ সিন্ডিকেট। এখানে দেখা গেছে প্রথম দফার তিন গ্র“পের প্রথমটিতে আনছার আলী (জলঢাকা) ১ কোটি ১২লাখ ২৪হাজার ৫৫২টাকা .৪৮পয়সা দর দেন। এখানে সরকারী দর ১ কোটি ২৮লাখ ৬হাজার টাকা। কিন্তু পরবর্তী দর গুলো সরকারী দরের অনেক উর্ধে ধরা হয়েছে। দ্বিতীয় গ্র“পে মোঃ আজিজার রহমান (জলঢাকা) ১ কোটি ৩৪ লাখ ৪৩ হাজার ৩৩০টাকা .৫০পয়সা দর দেন।আর সরকারী দর ১ কোটি ৭লাখ ২৮ হাজার টাকা অনুরুপ তৃতীয় গ্র“প মেসার্স এমকো এন্টার প্রাইজ (কিশোরগঞ্জ) ১ কোটি ৫লাখ ৯১ হাজার ২৬৮ টাকা .২৬পয়সা দর দেন আর সরকারী দর ১ কোটি ৮৭হাজার টাকা। দ্বিতীয় দফায় গত বৃহস্পতিবারেও প্রথম গ্র“প জি এম জি (রংপুর) ও মেসার্স সাইকি বিল্ডার্স এন্ড আঃ রাজ্জাক (জলঢাকা) ১কোটি ২৯রাখ ৫৪হাজার ৮৬৫টাকা দর দেয় আর সরকারী দর ১ কোটি ২৩লাখ ৮৭হাজার টাকা। দ্বিতীয় গ্র“পের মুন কনস্টাকশন (ডিমলা) ১ কোটি ৯ লাখ ২০হাজার ৪২০টাকা .৫০পয়সা  দর দেন আর সরকারী দর ১ কোটি ৭লাখ ২৮হাজার টাকা। তৃতীয় গ্র“প ইয়াকুব আলী (জলঢাকা) ৪০লাখ ৫২হাজার ২৬টাকা .৬৪পয়সা আর সরকারী দর ৩৩লাখ ৮৮হাজার টাকা। এসব ঠিকাদার আরও জানান, শুধুমাত্র উপজেলা প্রকৌশলী যোগসাজস ছাড়া কখনই কোন ঠিকাদার উর্ধ মুল্য দিতে পারেন না। এদিকে ঠিকাদার রশিদুল ইসলাম বলেন,“আমি একটা সিডিউল কিনেছি এমকো এন্টার প্রাইজ (কিশোরগঞ্জ) নামে। সেটি নিকো- এর মধ্যে আছে”। তবে উপজেলা প্রকৌশলী হারুন অর রশিদ কাজ ভাগাভাগির বিষয়টি এড়িয়ে গিয়ে বলেন কেউ যদি সিডিউল জমা না দেয় আমি কি করতে পারি। আর তার যোগসাযোসে উর্ধ দরের বিষয়টিতে তিনি কোন মন্তব্য করেননি। এদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোকন উল হাসান বলেন,“এ টেন্ডার কমিটিতে আমি আছি কিনা জানিনা। তবে উর্ধ দরের বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলীর সংশ্লিষ্টতা অমুলক নয়”। এবিষয়ে নীলফামারী এল জি ই ডি নির্বাহী প্রকৌশলী হক মাহমুদ বলেন,“স্থানীয় টেন্ডার কমিটি বা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে বিষয়টি জানান। আর অভিযোগ পেলে বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে”।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ