• শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৪৫ অপরাহ্ন |

ডিমলা উপজেলা পরিষদ নির্বাচন নিয়ে বিপাকে বিএনপি

electionসিসি নিউজ: দুই উপজেলায় একক প্রার্থী থাকলেও নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় বিপাকে পড়েছে ১৯দলীয় জোট। বিএনপি, জামায়াতের পাশাপাশি প্রার্থী দিয়েছে জোটের অপর শরীক বাংলাদেশ ন্যাপও। অন্যদিকে আওয়ামীলীগ এবং জাতীয় পার্টির একক প্রার্থী থাকায় খোশ মেজাজে রয়েছেন তারা।
তবে সরকারী দলের তরফ থেকে ভোটারদের ভয়ভীতি না দেখানো এবং ভোটদানে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা না হলে আওয়ামীলীগ প্রার্থীদের বর্জন করবেন সাধারণ মানুষ এমন আশা করছেন বিরোধী জোটের প্রার্থীরা অন্যদিকে সন্ত্রাস, নৈরাজ্যের প্রতিবাদ এবং উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আ’লীগ সমর্থীতদের নির্বাচিত করবেন ভোটাররা এমন ভরসা সরকারদলীয় প্রার্থীদের।
প্রথম ধাপে আগামী ১৯জানুয়ারী নীলফামারীর তিন উপজেলা অর্থ্যাৎ ডিমলা, জলঢাকা এবং সৈয়দপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ডিমলা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের তবিবুল ইসলাম(কাপ পিরিচ), বিএনপির রইছুল আলম চৌধুরী(দোয়াত কলম), জামায়াতের আব্দুস সাত্তার(হেলিকপ্টার), জাতীয় পার্টির আব্দুল লতিফ চৌধুরী(মোটর সাইকেল), স্বতন্ত্র প্রার্থী রবিউল ইসলাম(ঘোরা) এবং বাংলাদেশ ন্যাপের আসাদুজ্জামান বাপ্পী(আনারস), জলঢাকা উপজেলায় আ’লীগের শহিদ হোসেন রুবেল(চিংড়ি মাছ), জামায়াতের সৈয়দ আলী(আনাসর), জাসদ ইনুর গোলাম পাশা এলিচ(মোটর সাইকেল) এবং সৈয়দপুর উপজেলায় আ’লীগের জওয়াদুল হক সরকার(আনারস) ও বিএনপির আব্দুল গফুর সরকার(দোয়াত কলম) প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন।
স্থানীয়রদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জলঢাকা ও সৈয়দপুর উপজেলায় বড় দুই দলের প্রার্থীদের সাথে প্রতিদ্বন্ধিতা হলেও ডিমলা উপজেলার চিত্র আলাদা। এখানে আ’লীগের চেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন বিএনপি সমর্থীত প্রার্থী। মুলত উপজেলাটিতে আ’লীগ এবং জাতীয় পার্টির আধিক্য থাকায় পিছিয়ে রয়েছে বিএনপি তার সাথে যোগ হয়েছে জামায়াত ও ন্যাপের প্রার্থী হওয়ার কারণ।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক নেতা জানান, এখানে শুধুমাত্র একজন প্রার্থী থাকলে বিজয়ের সম্ভাবনা ছিল কিন্তু জোটের শরীকদেরও প্রার্থী থাকায় তা আর মনে হয় সম্ভব হবে না। তারপরও আ’লীগ সরকারের অত্যাচারের বিরুদ্ধে জবাব দিবেন এখানকার মানুষ আশা করছেন তিনি।
জাতীয়তাবাদী মহিলাদলের কেন্দ্রীয় সদস্য অধ্যাপক সেতারা সুলতানা চৌধুরী মনে করেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারের পরিবর্তন হয়না, গত ৫জানুয়ারীর নির্বাচনে সাধারণ মানুষ ভোট না দিয়ে যেভাবে আ’লীগকে প্রত্যাখ্যান করেছে তেমনি উপজেলা নির্বাচনে বিএনপি সমর্থীত প্রার্থীদের ভোট দিয়ে আ’লীগকে আবারও প্রত্যাখান করবে।
জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক এ্যাড. মমতাজুল হক জানান, তৃণমুল নেতৃত্বের মতামতের ভিত্তিতে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে প্রার্থী দেয়া হয়েছে। ১৯ফেব্রুয়ারীর নির্বাচনে জনগণ স্বতস্ফুর্ত ভাবে উপস্থিত হয়ে বিএনপি জোটের সন্ত্রাস নাশকতার রাজনীতিকে প্রত্যাখ্যান করে আ’লীগ সমর্থীতদের নির্বাচিত করবেন।
জেলা নির্বাচন অফিস সুত্র জানায়, ডিমলা উপজেলায় ১লাখ ৭৫হাজার ৭৩৪জন, জলঢাকা উপজেলায় ২লাখ ৮০হাজার ৩১জন এবং সৈয়দপুর উপজেলায় ১লাখ ৬৬হাজার ৬৩৬জন ভোটার রয়েছেন।
এদিকে নির্বাচন নিয়ে কোন অপ্রিতীকর ঘটনার খবর পাওয়া না গেলেও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় সতর্ক অবস্থায় রয়েছে পুলিশ। রিটানিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক(সার্বিক) এসএএম রফিকুন্নবী জানান, যে সব উপজেলায় নির্বাচনী কার্যক্রম শুরু হয়েছে সেসব উপজেলা সার্বক্ষণিক ভাবে মনিটরিং করা হচ্ছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ