• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:০২ পূর্বাহ্ন |

দিনাজপুরে আলু এখন কৃষকদের গলা কাঁটা

Pic-03- Birganj
দিনাজপুর প্রতিনিধি: দিনাজপুরে আলু আবাদ করে কৃষকরা এখন সর্বশান্ত হয়ে পড়েছেন। এই আলু এখন কৃষকদের গলার কাঁটা হয়ে দাড়িয়েছে। যার খবর ইতোমধ্যে সারা দেশের মানুষকে নাড়া দিয়েছে।
২০-২৫ কেজি আলু বিক্রি করে ১ কেজি মোটা চাল কেনা অথবা ৩ কেজি আলুর দামে এক কাপ চা এমন আরো অনেক খবর বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।
দিনাজপুর কৃষি সম্প্রাসারন অধিদপ্তরের তথ্য মতে এবারে জেলায় ৪২ হাজার ৯২০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ হয়েছে। ফলন ভালো হওয়ায় ৮ লাখের বেশী মে.টন আলু উৎপাদন হয়েছে বলে বলে জানায়  জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিস।
জেলার সদর উপজেলা, বিরল, বীরগঞ্জ, কাহারোল, খানসামা ও চিরিরবন্দরে বেশী আলুর আবাদ হয়েছে। অধিক জমিতে আলু আবাদ হওয়ায় আলু নিয়ে বিপদে পড়েছেন আলু চাষীরা। আলু এখন কৃষকদের গলার কাঁটায় পরিণত হয়েছে। না পারছেন আলু বিক্রি করতে না পরছেন জমা করে রাখতে। কারণ ব্যাংক লোন অথবা ধারদেনা করে কৃষকরা আলু আবাদ করেছেন। আলু বিক্রি করে কৃষকের খরচেই যেখানে উঠছে না সেখানে দেনাদারদের পাওনা পরিশোধ করবে কিভাবে?
আলু চাষীর মধ্যে ক্ষতিপুরন, ব্যাংক ঋণ সুবিধা, আলু সংরক্ষনের ব্যবস্থাসহ ৫ দফা দাবিতে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে স্মারকলিপিও দিয়েছেন। কিন্তু কোন প্রতিকার না হওয়ায় অবশেষে চাষীরা রাস্তায় নেমে আসেন।
গত বুধবার দুপুরে জেলার বীরগঞ্জ উপজেলায় আলু চাষী সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে পৌর শহরের পুরাতন শহীদ মিনার মোড়ে শতাধিক চাষী রাস্তায় আলু ফেলে দিয়ে প্রতিবাদ জানায়। তারা রাস্তায় ফেলে দেওয়া আলুর উপর শুয়ে পড়ে দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক প্রায় ১ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। পরে প্রশাসনের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা অবরোধ তুলে নেয়।
বীরগঞ্জ নিজপাড়া ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের আলু চাষী মোঃ আলীমুদ্দিন জানান, ৩ একর আলু চাষ করেছি। খরচ হয়েছে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। কিন্তু দাম না থাকায় ক্ষেতেই আলু পড়ে আছে। পাইকার এসে ৩ একর আলু ১০ হাজার টাকা বলে গেছে। তাই আলু তুলে নিয়ে এসে রাস্তায় ফেলে দিলাম।  দেশবাসী জানুক কৃষকেরা কেমন কষ্টে আছে।
বিরল উপজেলার সারঙ্গাই পলাশবাড়ী গ্রামের আলু চাষী মমতাজ মিয়া জানান, অনেক আশা নিয়ে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ৫ বিঘা জমিতে আলুর আবাদ করেছিলাম। সার, বীজ, কীটনাশক ও শ্রমিকদের মজুরি, কৃষি উপকরণসহ সর্বমোট খরচ হয়েছে ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা। আর এই ৫ বিঘা জমির আলু বিক্রি করে পেয়েছি মাত্র ৭৫ হাজার ৫৫০ টাকা। শুধু মমতাজ মিয়া ও আলিমুদ্দিন নয়, জেলার অনেক আলুচাষীর একই অবস্থা।
শস্যভান্ডার খ্যাত দিনাজপুরের আলু চাষীদের রক্ষায় সংশ্লিষ্ট দপ্তর দ্রুত এগিয়ে আসবে এমনটি আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ