• মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন |

নজরদারিতে শতাধিক মাদ্রাসা

Policসিসি ডেস্ক: সাম্প্রদায়িক হামলার সঙ্গে জড়িতদের অনেকেরই আশ্রয়স্থল এখন ঢাকার বেশ কিছু কওমি মাদ্রাসা ও এতিমখানা। এসব মাদ্রাসা ও এতিমখানায় অভিযান চালাতে নানা হিসাব নিকাশ চলছে। ফলে হামলাকারীদের অধিকাংশই থাকছে গ্রেফতারের বাইরে। ঢাকার এমন শতাধিক কওমি মাদ্রাসার ওপর বিশেষ গোয়েন্দা নজরদারি চলছে। স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী বলছেন, কওমি মাদ্রাসার ওপর সরকারের নজরদারি আছে। মাদ্রাসা ও এতিমখানায় সরাসরি অভিযান না চললেও এসব প্রতিষ্ঠানের কর্তাব্যক্তিদের ওপর মনিটরিং আছে। তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে।
গত ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেয়ায় সাতক্ষীরা, গাইবান্ধা, যশোর, চট্টগ্রাম, নোয়াখালীসহ বেশ কয়েকটি জেলায় সংখ্যালঘু আখ্যা দিয়ে হিন্দুদের ওপর বেপরোয়া হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা শত শত হিন্দু বাড়িঘর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাঙচুর, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ করে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সার্বিক তত্ত্বাবধানে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর নির্মাণ করছে বিজিবি (বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ)।
বিশেষ একটি গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে জানা গেছে, হামলার সঙ্গে জড়িতদের চিহ্নিত করে গ্রেফতার অভিযান চলছে। কিন্তু হামলার নেতৃত্বদানকারীদের অনেককেই চিহ্নিত করা যায়নি। কারণ তারা সরাসরি হামলা অংশ নেয়নি। পিছন থেকে কলকাঠি নেড়েছে। চিহ্নিত হামলাকারী ও নেপথ্যের কারিগররা এখন আত্মগোপনে। বিশেষ অভিযান চলমান থাকার পরও তাদের গ্রেফতার করা সম্ভব হচ্ছে না।
গোয়েন্দা সূত্র বলছে, এর অন্যতম কারণ হামলাকারীদের মাদ্রাসা ও এতিমখানার মতো ধর্মীয় স্পর্শকাতর জায়গায় আশ্রয় নেয়া। সারাদেশে কওমি মাদ্রাসার সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। এসব মাদ্রাসার ওপর সরকারের তেমন কোনো প্রত্যক্ষ কর্তৃত্ব নেই। মাদ্রাসাগুলো নিজস্ব আইনে পরিচালিত হয়। এগুলো পরিচালনার জন্য মাদ্রাসা মালিকদের একাধিক বোর্ড রয়েছে। এসব নিজস্ব বোর্ডের মাধ্যমেই মাদ্রাসাগুলো পরিচালিত হচ্ছে। ফলে মাদ্রাসাগুলোতে মালিক ও মাদ্রাসা প্রশাসনের একচ্ছত্র আধিপত্য থাকে। ঢাকায় কওমি মাদ্রাসার সংখ্যা অন্তত ৫শ।
সূত্র বলছে, রাজধানীর প্রায় অধিকাংশ থানাতেই কওমি মাদ্রাসা রয়েছে। দেশের বিভিন্ন জায়গায় সাম্প্রদায়িক হামলার সঙ্গে জড়িত চিহ্নিত হামলাকারীদের অনেকেই এখন ঢাকার বিভিন্ন কওমি মাদ্রাসায় আত্মগোপনে রয়েছে। এছাড়া লালবাগ ও আজিমপুর এলাকার দুটি এতিমখানাতেও হামলাকারীরা রয়েছে। শতাধিক কওমি মাদ্রাসা ও এতিমখানায় হামলাকারীরা অবস্থান করছে।
এ ব্যাপারে হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ জাফরুল্লাহ খান বর্তমানকে বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক হামলায় জড়িতদের নিয়মানুয়ায়ী কওমি মাদ্রাসায় আত্মগোপনে থাকার সুযোগ দেয়ার কথা নয়। তারপরও কওমি মাদ্রাসাগুলো যেহেতু একক নিয়ন্ত্রণে নেই, এজন্য কোনো কোনো গোষ্ঠী বা কোনো কোনো মাদ্রাসা হামলাকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিতেও পারে, যা অস্বাভাবিক নয়। সরকারের উচিত সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে তাদের খুঁজে বের করা।’
স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল এ ব্যাপারে বর্তমানকে বলেন, ‘দেশের অধিকাংশ কওমি মাদ্রাসার সঙ্গেই জামায়াতে ইসলামীর যোগাযোগ রয়েছে। এসব মাদ্রাসায় সাম্প্রদায়িক হামলাকারীদের আত্মগোপনে থাকা বিচিত্র কিছু নয়। আমরা কওমি মাদ্রাসাগুলো মনিটরিং করছি।’
তিনি বলেন, অনেক সময় সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকার পরেও ধর্মীয় স্পর্শকাতর জায়গা হওয়ায় মাদ্রাসা বা এতিমখানায় অভিযান চালানো যায় না। এজন্য যেসব মাদ্রাসার বিষয়ে আমাদের কাছে সুনির্দিষ্ট তথ্য থাকে, সেসব মাদ্রাসা বা এতিমখানার কর্তাব্যক্তিদের মনিটরিং করা হয়। পাশাপাশি কর্তাব্যক্তিদের সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা দেয়া হয়।

উৎসঃ   মানবকন্ঠ


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ