• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন |

নারীরা বৈষম্যের শিকলে বন্দি

জসিম উদ্দিন :

Jasim Uddinমানবসভ্যতা গড়ে উঠার পেছনে নারীর অবদান অস্বীকার করার অবকাশ নেই। প্রাচীনকালে গুহায় বসবাসকারী নারী-পুরুষদের যৌথ চেষ্টায় যে জীবনযাত্রা শুরু হয়েছিল, তা কালক্রমে বিকশিত হওয়া আজকের এই মানসভ্যতা। সম্প্রতি এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে বিশ্বের মোট জনসংখ্যার অর্ধেক নারী। আর বিশ্বায়নের ক্ষেত্রে নারীর অবদান অনস্বীকার্য। ভাষাবিদদের মতে, ভাষার ধর্ম বদলে যাওয়া। ভাষারই এই বদলে যাওয়ার সাথে সমাজ ব্যবস্থা ও সমাজ কাঠামোর পরিবর্তনের একটা যোগসূত্র রয়েছে। তারই রেশ ধরে এগিয়ে চলছে বিশ্ব। ফলে পরিবর্তনের হাওয়া লেগেছে মানুষের জীবনযাত্রায়। কিন্তু আশ্চর্য হলেও সত্য যে, বিশ্বায়নের এ যুগে নারীরা এখনও অবহেলিত। বন্ধ হয়নি নারী নির্যাতন। পরিবর্তনের হাওয়া সকল ক্ষেত্রে একটু ছোঁয়া লাগলেও নারীদের শান্তি, নিরাপত্তা ও অধিকারে দিন দিন অবনতির দিকে ধাবিত হচ্ছে বৈকি।
নারী ও পুরুষের সমান অধিকার- এ শ্লোগানটি রাজনৈতিক মঞ্চে কিংবা সেমিনারে অথবা কাগজে কলমে সীমাবদ্ধ। বাস্তবে নারীরা পুরুষের সমান অধিকার পায় কি? পত্রিকার পাতা উল্টালে নারী নির্যাতনের খবর চোখে পড়বেই। এমন কোন দিন পাওয়া যাবে না- নারী নির্যাতন সংশ্লিষ্ট খবর ছাড়া পত্রিকাটি প্রিন্ট হয়েছে। অনেকে আমার এ কথার সাথে একমত না হতে পারেন। তবে বাস্তবে তা সত্যি। একটা উদাহরণ দেয়া যাক, জানুয়ারী মাসের ২৮তারিখ সৈয়দপুর উপজেলার খাতামধুপুর ইউনিয়নে নববধু লাকী পিত্রালয়ে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। বিয়ের দু’মাসের মাথায় এ ঘটনা ঘটিয়েছে বালিকা বধু। স্থানীয় লোকজন, পুলিশ প্রশাসন এমনকি ওই মেয়েটির পরিবার সংবাদকর্মীদের জানিয়েছে আত্মহত্যার কারণ মেয়েটি নাকি মানসিক রোগে ভুগছিলেন। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মেয়েটি কোনদিন আত্মহত্যা বা অস্বাভাবিক কোন আচরণ ইতিপূর্বে সে করেনি। আমার প্রশ্ন এখানেই, যদি মানসিক রোগী হয়ে থাকে তাহলে তাকে বিয়ের পিড়িতে বসানো হলো কেন? আমি এজন্য তার পরিবারকে শুধু দায়ী করবো না, প্রতিবেশীদের সাথে পাশের গ্রামের ওই বর পক্ষকে দায়ী করবো। কি এমন ঘটে ছিল যে, বিয়ের পর শ্বশুড় বাড়িতে আত্মহত্যা না করে পিত্রালয়ে এসে আত্মহত্যা করতে হলো নববধুকে। শুনেছি কিছু একটার বিনিময়ে নাকি রফাদফা হয়েছে গোপনে। স্বাক্ষ্য প্রমান ওই সৃষ্টিকর্তার কাছেই রইলো। কারণ যেখানে সুস্থ-সবল মানুষকে মানসিক রোগী বানাতে পারে, সেখানে স্বাক্ষ্য রেখে এমন কাজ করবে তা কি ভাবা যায়! আমার এক সিনিয়র সহকর্মী বলেছিলেন, আত্মহত্যার সংবাদ সংগ্রহ করতে গিয়ে শতকরা ৯০ ভাগই জানতে পাই মানসিক রোগের কারণে এ ঘটনা। তাই বলি, মানসিক রোগীরাই শুধু আত্মহত্যা করে।
দিনাজপুরে পার্বতীপুরের খোলাহাটি ক্যান্ট. পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্রী ইভা গত ৩ ফেব্রুয়ারী ছাত্রী নিবাসে আত্মহত্যা করেছে। তবে মেয়েটির বিবাহের পর এ ঘটনা ঘটলে তাকেও মানসিক রোগী বলে চালিয়ে দেয়া হতো বলে আমার ধারণা। ফুলবাড়ি উপজেলার সুজানগর গ্রামে ইভা’র বাড়ি। তার বাবা মেয়ের এমন অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর থানার আশ্রয় নিয়েছেন। অভিযোগ করেছেন, পাশের গ্রামের এক যুবক তাকে (ইভার বাবাকেই) মোবাইল ফোনে জানিয়েছে, ইভাকে তার সাথে বিয়ে না দিলে তাদের দু’জনার আপত্তিকর ছবি ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়া হবে। কি বিচিত্র বাবা! সে সময় প্রশাসনের শরণাপন্ন না হয়ে মেয়ের লাশ পেয়ে এমন অভিযোগ করছে। জনৈক আমার পুলিশ কর্মকর্তা বন্ধু এ প্রসঙ্গে বলেন, সেই সময় এ অভিযোগটি যদি থানায় করা হতো তাহলে ওই যুবককে আটক করে ফুটেজটি উদ্ধার করা যেতো। এমন হতে পারে ছেলেটি মেয়ের বাবাকে ভয় দেখানোর জন্য আপত্তিকর ছবির নাটক সাজিয়েছে। আর এমন মিথ্যা হুমকির কথা মেয়েটির কানে যখন পৌছে দেয়া হয়েছে সে লজ্জায় ওই পথ বেছে নিতে বাধ্য হয়েছে। পার্বতীপুর শহরে আর এক নববধুর মোবাইলে ফোনে বন্ধুর দেয়া এসএমএস নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর বাকবিতন্ডায় ওই বধু গায়ে আগুন দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে ক’দিন আগে।
মোবাইল ফোনে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে সূদুর লক্ষীপুর থেকে বিয়ের জন্য ডেকে এনে দিনাজপুর শহরের বন্ধুর বাসায় রাখে প্রেমিকরুপী এক বখাটে। পরে ওই মেয়েটিকে সুকৌশলে তিনমাস আটকে রেখে দুই বন্ধু মিলে ধর্ষণ করেছে। পরে মেয়েটি স্থানীয় লোকজনদের জানালে তারা ওই দুই যুবককে আটকে পুলিশের হাতে সোপর্দ্দ করে। ঘটনাটি ঘটেছে গত ১ ফেব্রুয়ারী। এমননি ভাবে একই দিনে ধর্ষনের স্বীকার হয়েছে রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদালয়ের বিবিএ ব্যবস্থাপনা বিভাগের ১র্ম বর্ষের জনৈক এক ছাত্রী প্রেমিকের দ্বারা। প্রেমিক ওই যুবক একজন র‌্যাব সদস্য। ছুটিতে এসে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। বিষয়টি পরে থানা পর্যন্ত গড়েছে। জানুয়ারীতে যৌতুকের বলি হয়েছে কাহারোল উপজেলার বধু ময়না। যৌতুকলোভী স্বামী ইলিয়াছের কাঠের পিড়ির আঘাতে তার মৃত্যু ঘটে। বখাটের বিরুদ্ধে মামলা করে ঠাকুরগাঁ জেলার রানীশংকৈলের চোপড়া গ্রামের কিশোরী (১৩) তার পরিবারসহ আতঙ্কে দিনাতিপাত করছে। গত ২৯ জানুয়ারী দিনাজপুর প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করেছে ওই কিশোরী তার পরিবারকে নিয়ে। ২৮ জানুয়ারী ডোমারের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অফিস সহকারী দুই সন্তানের জনক মকবুলার রহমান নবম শ্রেনীর এক ছাত্রীকে নিয়ে উধাও হয়েছে। অপহৃত ওই ছাত্রীটির পরিবার আজও আদরের মেয়ের সন্ধান পেয়েছি কিনা তা জানা যায়নি। ২৪ জানুয়ারী স্বপ্নপুরীতে বেড়ানোর কথা বলে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষনের চেষ্টা হয়েছে বদরগঞ্জে। পরে গ্রামবাসী বোরহান নামের ওই বখাটে যুবককে আটক করে অভিভাবকের হাতে তুলে দেয়। হাকিমপুরে ৩ ফেব্রুয়ারী নানীর বাড়ীতে বেড়াতে আসা কলেজ ছাত্রী জলির শরীরে পেট্রোল বোমা ছুঁড়ে মেরেছে বখাটেরা। জলি’র অপরাধ বখাটেদের প্রেমের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়া।
গত এক সপ্তাহের মধ্যে তিনটি জেলার নির্দিষ্ট ক’টি উপজেলার যদি নারী নির্যাতনের এমন চালচিত্র হয়, তাহলে বাকী ৬১ জেলার চালচিত্র কি তা অনুমান করবেন পাঠকবৃন্দ। ব্যক্তিগত ও সামাজিক সম্মান হারানোর ভয়ে যারা ধর্ষণের খবর প্রকাশ করেন না, তা হিসেব করলে এর পরিমাণ কয়েক গুণ বেড়ে যাবে।
ধর্ষণের যে মারাত্মক ক্ষতিকর দিকটি তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে দেখা যায়, তা হচ্ছে কথিত সম্মান রক্ষার জন্য নারী হত্যা। কখনো কখনো ধর্ষিত নারী’র বাবা, ভাই, স্বামী বা অন্যান্য নিকটাত্মীয় পারিবারিক সম্মান রক্ষার জন্য ধর্ষিতাকে প্রহারে কিংবা মানসিক নির্যাতনে আত্মহত্যায় উদ্বুদ্ধ করে- যা হত্যার শামিল। এক্ষেত্রে নারী দুই বার নির্যাতনের শিকার হয়। একবার অপরিচিতজনের কাছে নিজের সম্ভ্রম হারায়। এরপর পরিচিতজনদের হাতে জীবন বিসর্জন দেয়। জাতিসংঘের এক হিসেব অনুযায়ী, বিশ্বব্যাপী প্রতি বছর এ ধরনের কথিত সম্মান রক্ষার বলির শিকার হয় প্রায় ৫ হাজার নারী।
অথচ এ নারীর কারণেই একটি সন্তান পৃথিবীর আলো দেখতে পায়। সূচনা হয় একটা সুন্দর জীবনের। আজ সেই নারীরা অবহেলিত, বঞ্চিত, নির্যাতিত। আধুনিককালে নারীর ক্ষমতায়ন ঘটলেও নারী নির্যাতন বন্ধ হয়নি। বলাবাহুল্য, দেশে নারী নির্যাতন বন্ধে কঠোর আইন রয়েছে কিন্তু এর সঠিক প্রয়োগ নেই বললেও চলে। আর এজন্য দায়ী বর্তমান প্রেক্ষাপটের সমাজপতি এবং একদল শাসকগোষ্টি।
১৯৯৯ সালের ১৭ই নভেম্বর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ২৫শে নভেম্বরকে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস হিসেবে ঘোষনা করা হয়। নারী নির্যাতন বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে এ দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করা হয়ে থাকে। নারী আন্দোলনকারী সংগঠন সমূহ ১৯৮১ সাল থেকে এই দিনটিকে স্মরণ করে আসছে। কিন্তু নারী নির্যাতন কমছে না, বরং বাড়ছে। তবে এখন নারীর দ্বারা নারী নির্যাতিত হচ্ছে- যা আমার বিবেকে বলি নারী জাতিকে অপমানিত করছে নারীরাই।
নারী নির্যাতনের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য রূপ হচ্ছে স্বামীর হাতে স্ত্রী নির্যাতন। প্রতি তিন জন নারী’র একজন তার স্বামীর হাতে নির্যাতিত হয়। যে নারী ও পুরুষ জীবনে সুখী হওয়ার জন্য সংসার জীবন গড়ে তুলেছেন, তাদের কাছে এই পরিসংখ্যান অত্যন্ত দুঃখজনক। পবিত্র কোরানের সুরা রুমের ২১ নম্বর আযাতে বলা হয়েছে, “মহান আল্লাহ তোমাদের মধ্য হতে তোমাদের জন্য সঙ্গিনী সৃষ্টি করেছেন যাতে তোমরা পরস্পরের কাছে সুখ ও আল্লাহ’র রহমত লাভ করতে পারো। যারা চিন্তাশীল তাদের জন্য এতে আল্লাহর মহিমার নিদর্শন রয়েছে।” কিন্তু যে সব পুরুষ তাদের ঘরকে নির্যাতন কেন্দ্রে পরিণত করেন, যারা শুধু স্ত্রী নয়ই সেই সাথে সন্তানদেরকে শারিরীক ও মানসিকভাবে কষ্ট দেন, তারা আল্লাহ’র দৃৃষ্টিতে অত্যাচারী।
আমাদের দেশে নারী নির্যাতন ক্রমেই বেড়ে চলেছে। ক্ষুধা, দারিদ্র, অপুষ্ঠি, অশিক্ষা, বেকার সমস্যা এই সকল সাধারণ সমস্যার পাশাপাশি নারীদের আরো কিছু মারাত্মক সমস্যার মধ্যে দিয়ে যেতে হয় শুধুমাত্র তারা নারী বলে। এ নির্যাতনের কোন শেষ নেই। এসিড, সন্ত্রাস, ইভটিজিং ,পারিবারিক সন্ত্রাস, যৌতুক, ধর্ষন, গন ধর্ষন, ফতোয়া, গৃহ পরিচারিকা নির্যাতন, মাস্তান, সন্ত্রাস এরকম আরো অনেক নির্যাতনের কথা উল্লেখ করা যাবে। ইভটিজিংয়ের কারনে অনেক বাবা-মা মেয়ের নিরাপত্তা দিতে না পেয়ে অপরিনত বয়সে মেয়েকে বিয়ে দিতে বাধ্য হচ্ছে- এমন সংখ্যাও কম নয় আমাদের দেশের গ্রামাঞ্চলে। এরই মধ্যে ইভটিজারদের অত্যাচার সহ্য করতে না পেরে আত্মহননের পথ বেছে নিয়েছে নাম জানা-না জানা বহু কিশোরী। শুধু তাই নয়, ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় অকালে প্রাণ হারাতে হয়েছে নাটোরের কলেজ শিক্ষক মিজানুর রহমানকে, মেয়ের জন্য প্রাণ হারাতে হয়েছে মা চাঁপা রানী ভৌমিককে। এখন ইভটিজিং শুধু রাস্তা-ঘাটে বা স্কুল-কলেজেই সীমাবদ্ধ নয়, বিভিন্ন কায়দায় ইভটিজিং করা হচ্ছে। যেমন মোবাইল ফোনে উত্যক্ত করা হচ্ছে। অনেক তরুণীর ভিডিও চিত্র মোবাইলে ধারণ করে তা প্রযুক্তির কারসাজিতে অশ্লীল দৃশ্য ধারণ করে পরিবারের কাছে মোটা অংকের চাঁদা দাবি করা হচ্ছে। এসব পরিস্থিতির শিকার হচ্ছে বেশিরভাগই দরিদ্র পরিবারের তরুনী ও নারীরা। অধিকাংশ ঘটনায় থানায় মামলা হলেও গ্রেফতার হয় না অপরাধী। কেউ গ্রেফতার হলেও মামলা বেশি দূর এগোয় না। প্রভাবশালী বা ক্ষমতাসীনদের হুমকি, কখনওবা তাদের মধ্যস্থতায় মীমাংসা করতে বাধ্য হয় নিরীহ ব্যক্তিরা। পর্যাপ্ত নিরাপত্তার অভাবে নারী নির্যাতন মামলার সাক্ষীও পাওয়া যায় না। এসব কারণে ক্রমেই শ্লীলতাহানি ও হত্যার মতো অপরাধ নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়ছে।
যুগ যুগ ধরে নারীরা বৈষম্যের শিকলে বন্দি। শারীরিকভাবে দূর্বল হওয়াটাই কি এর পেছনের একমাত্র কারণ? নিশ্চয়ই তা নয়। সমাজের প্রচলিত ভুল রীতিনীতিগুলো এবং নারীদের প্রতি পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গি এর কারণ। নারীকে ভোগ্যপণ্য হিসেবে না দেখে তার সঠিক মর্যাদা তাকে দিতে হবে। সকল অভিশাপ থেকে নারীকে মুক্ত করতে হবে। তাই নারীর প্রতি সব ধরনের নির্যাতন ও সহিংসতা বন্ধ করতে সবাইকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখতে হবে।

লেখক: সাংবাদিক


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ