• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:৩১ পূর্বাহ্ন |

বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ

Dorsonচট্টগ্রাম: হাটহাজারীতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সূচনা আক্তার (ছদ্মনাম) (১৯) নামে অসহায় এক কিশোরীকে ধর্ষণ করেছে চার সন্তানের জনক তানিয়া লেডিস টেইলার্স এর মালিক মোঃ আলম রানা (৪৫)।

জানা যায়, ধর্ষক রানা রাউজান পৌরসভার গহিরা ১নং ওয়ার্ডের হামদু মিয়াবাড়ির নবীত আলীর ছেলে। এ ঘটনায় বুধবার ধর্ষিতার বাবা সিরাজ মিস্ত্রি বাদী হয়ে হাটহাজারী থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ (সংশোধন)/৩ এ মামলা করেন। হাটহাজারী মডেল থানা পুলিশ ধর্ষক আলম রানাকে আটক করেছে।

মডেল থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, হাটহাজারী পৌরসভার এন. জহুর শপিং সেন্টারে তানিয়া লেডিস টেইলার্স নামে মোঃ আলম রানার একটি ভাড়া দোকান আছে। সেই দোকানে গত চার বছর ধরে কর্মচারী হিসেবে চাকরি করে আসছে হাটহাজারী পৌরসভার পশ্চিম দেওয়ান নগর গ্রামের সিরাজ মিস্ত্রির মেয়ে সূচনা আক্তার।
দীর্ঘদিন ধরে দোকানে চাকরি করার সুযোগ নিয়ে বিয়ের মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে ভিকটিমের সাথে শারিরিক সর্ম্পক গড়ে তোলে। পরবর্তীতে চার সন্তানের জনক লম্পট আলম রানা সূচনাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে  একাধিক বার ধর্ষণ করে। এক পর্যায়ে তাদের বিয়ের কথাবার্তাও পাকাপোক্ত হয়। কিন্তু হঠাৎ করে রানা এ বিয়েতে অস্বীকৃতি জানায়।

বিষয়টি অভিভাবককে জানালে সূচনার বাবা সিরাজমিস্ত্রি এন. জহুর শপিং সেন্টার ব্যবসায়িক কল্যাণ সমিতিকে অবগত করে। সমিতি ও এন. জহুর শপিং সেন্টার মালিক কর্তৃপক্ষ তৎক্ষণাৎ পুলিশ প্রসাশনকে ঘটনা অবগত করলে পুলিশ আলম রানা-সূচনা দুজনকেই এন. জহুর শপিং সেন্টার থেকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। পরে সূচনাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে আর আলম রানাকে পুলিশ জেলহাজতে পাঠায়।

এন.জহুর শপিং ও সিটি সেন্টারের সত্ত্বাধিকারী সরোয়ার মোর্শেদ বলেন, ‘উভয়ের সামাজিক অবস্থান বিবেচনা করে সামাজিক ভাবে দুজন দুজনকে বিয়ে করার জন্য প্রস্তাবও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আলম রানার প্রথম স্ত্রী ও ছেলের বাঁধার মুখে তা সম্ভব হয়নি।’

সূচনার বাবা সিরাজ মিস্ত্রি জানান, মামলা না করার জন্য বিবাদীর পক্ষ থেকে একাধিকবার তাদেরকে মোটা অংকের টাকা দেয়ার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। এতে বাদী রাজি না হয়ে ধর্ষকের যথাযথ বিচার হওয়া উচিত ভেবে নিজ ইচ্ছায় মামলা করেন বলেও তিনি জানান।

হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘এ ব্যাপারে মেডিকেল টেষ্টের রিপোর্ট পাওয়ার পরে পুরোপৃরি আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে ইতিমধ্যে ভিকটিমের পিতা বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ (সংশোধন)/৩ এ একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ৯(১)।

এদিকে স্থাণীয় সাধারন জনগন অভিযোগ করে ক্ষোভের সাথে বলেন, বর্তমানে হাটহাজারী বাজারে বিভিন্ন মার্কেটে গড়ে উঠা লেডিস টেইলাসগুলোর চিত্র প্রায় এক, কিছু কিছু ঘটনা প্রকাশ হলেও এভাবেই ধর্ষক আলমের মতো লম্পটদের মিথ্যা আশায় পা দিয়ে প্রতারনার ও লালসার শিকার হচ্ছে অনেক সহজ সরল অসহায় মেয়েরা।

এ ব্যাপারে প্রতিটা অবিভাবককে তাদের নিজ নিজ ছেলে মেয়ের প্রতি সতর্ক দৃষ্টি রাখতে পরামর্শ দিয়েছেন স্থাণীয় সচেতন মহল। তবেই সমাজ থেকে আলম রানার মতো লম্পটদের থাবা থেকে প্রতিটি অসহায় কিশোরীকে নিরাপদে কর্মস্থলে কাজ করার নিশ্চয়তা দেয়া সম্ভব হবে।

লাইভ ডটকম


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ