• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন |

উপজেলায় আ.লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী আ.লীগ

ECসিসি ডেস্ক: আর মাত্র ১১ দিনের অপেক্ষা। ১৯ ফেব্রুয়ারি প্রথম দফায় ৯৮টি উপজেলা পরিষদে নির্বাচন। জাতীয় নির্বাচন বর্জন করলেও বিএনপিসহ বিরোধী দল এই নির্বাচনে অংশ নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।
এতে করে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা। দিনভর ভোটের মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। ভোটারদের কাছে গিয়ে নিজের পক্ষে ভোট টানছেন, দিচ্ছেন নানা প্রতিশ্রুতি।
আসন্ন উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের সঙ্গে বিএনপি সমর্থিতদের লড়াই হবে এটাই স্বাভাবিক। তবে মাঠের চিত্র কিছুটা হলেও ভিন্ন। বেশিরভাগ উপজেলায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বী তাদের প্রার্থী
মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময়সীমা পার হলেও অনেক উপজেলায় আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী রয়েছেন। এ সংখ্যা সত্তরের অধিক। এজন্য কেন্দ্র থেকে সাত বিভাগে সাতটি টিম গেলেও কোনো কাজে আসেনি।
প্রায় দুই সপ্তাহ সাংগঠনিক সফর শেষে কেন্দ্রীয় নেতারা ব্যর্থ মিশনে নিয়ে ফিরে এসেছে। ৯৮টি উপজেলার মধ্যে মাত্র ২১টিতে একক প্রার্থী দিতে সক্ষম হয়েছেন তারা। বাকি উপজেলাগুলোতে চেয়ারম্যান ও দুই ভাইস চেয়ারম্যান পদেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নিজেদের একাধিক প্রার্থী সামলাতে শিমশিম খাচ্ছে।
এর আগে বিদ্রোহী প্রার্থী ঠেকাতে দলের সভানেত্রী শেখ হসিনা এবং সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফ স্বাক্ষরিত একটি চিঠি পাঠানো হয় তৃণমূলে। এতে দলের কেউ বিদ্রোহী হলে বহিষ্কারসহ তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়।
কিন্তু এতেও কাজ না হওয়ায় সাত বিভাগে কেন্দ্র থেকে সাতটি সাংগঠনিক টিম পাঠানো হয়। রংপুর বিভাগে মতিয়া চৌধুরী, রাজশাহী বিভাগে মোহাম্মদ নাসিম, ঢাকা বিভাগে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী, চট্টগ্রামে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, বরিশালে আমির হোসেন আমু, খুলনায় আবদুল লতিফ সিদ্দিকী এবং সিলেট বিভাগে ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে বিদ্রোহী প্রার্থীকে নিবৃত্ত করতে সফর করা হয়।
ইসি সূত্র জানায়, ‘প্রথম ধাপের উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সুযোগ শেষ হয়েছে গত মঙ্গলবার। যাচাই-বাছাই শেষে সারা দেশে উপজেলা চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী রয়েছে মোট ৪৩২ জন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে ৫১৩ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে ৩২৯ জন প্রার্থী।’
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রথম দফায় ৯৮টি উপজেলার মধ্যে চেয়ারম্যান পদের ৪৩২ জনের ২৬৯ জন আওয়ামী লীগ, এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতারা প্রার্থী হয়েছেন।
ঢাকা বিভাগের নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নয়জন প্রার্থী রয়েছেন। এই বিভাগের দায়িত্বে থাকা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও ঢাকা বিভাগের সমন্বয়ক আহমদ হোসেন আরটিএনএন- কে বলেন, ‘পলাশে একজনকে দলীয় সমর্থন দেওয়া হয়েছে। অন্যরা না সরলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’
খুলনা বিভাগের নড়াইলের কালিয়া উপজেলাতেও দলটির আট প্রার্থী নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন। তবে সেখানে মাত্র ৩ জনকে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করাতে সক্ষম হয়েছে। বাকি ৫ জন এখনো ভোটযুদ্ধে রয়ে গেছেন।
এছাড়া খুলনার দীঘলিয়া উপজেলায় দুজন এবং কয়রা উপজেলায় আওয়ামী লীগের পাঁচজন দলীয় প্রার্থী রয়েছেন।
এই বিভাগের সমন্বয়ক বিএম মোজাম্মেল হক আরটিএনএন- কে বলেন, ‘নড়াইলে ৫ জন ছিল। সেখানে আমরা একজনকে সমর্থন দিয়েছি। অন্যরাও আশা করি নিজেদের প্রত্যাহার করে নিবেন।’
উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ