• রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০১:১২ পূর্বাহ্ন |

কী করবে বুঝে উঠতে পারছে না বিএনপি

BNP Flagনিউজ ডেস্ক: নির্বাচন বর্জনের পর বিএনপি এখন কী করবে? আবারো আন্দোলনে যাবে, না বিদেশীদের সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টির অপেক্ষায় থাকবে, ঠিক বুঝে উঠতে পারছে না৷ সব মিলিয়ে পরবর্তী করণীয় নিয়ে বিএনপি এখন অনেকটা দ্বিধাগ্রস্ত৷
গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বর্জনের পর খালেদা জিয়ার বড় ছেলে বিএনপি-র সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মত ছিল লাগাতার হরতাল-অবরোধ চালিয়ে যাওয়া৷ আর এর মধ্য দিয়েই সরকারের ওপর ব্যাপক চাপ সৃষ্টি করে সরকারকে সরিয়ে সব দলের অংশগ্রহণে আরেকটি নির্বাচনে বাধ্য করা৷ তবে এই রকম আন্দোলনে ১৯৯৬ সালের ১৫ ফ্রেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ সফল হলেও শেষ পর্যন্ত এবার বিএনপি সে পথে হাঁটেনি বা হাঁটতে পারেনি৷
তারেক রহমানের পরামর্শ অনুযায়ী নির্বাচনের পর লাগাতার কোনো আন্দোলন কর্মসূচিতে যায়নি, বরং আন্দোলন থেকে সরে এসেছে৷ এমনকি নতুন আন্দোলন কবে শুরু করতে পারবে তাও নিশ্চিত নয়৷ বরং বিএনপি-র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া এখন দল গোছানোর কথা বলছেন৷ বলছেন, আগে দল গুছিয়ে তারপর আন্দোলনে যাবেন৷ আর সংসদ নির্বাচন বর্জন করলেও এখন উপজেলা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তারা৷
বিএনপি-র চেয়ানপার্সনের উপদেষ্টা আহমেদ আজম অবশ্য বলেন, করণীয় নিয়ে দলের মধ্যে কোনো দ্বিধা-দ্বন্দ্ব নেই৷ তারা আন্দোলনে আছেন এবং আন্দোলনেই থাকবেন৷ আন্দোলনে দেশের সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করতে তারা একটু সময় নিচ্ছেন৷ আর দল গোছানো হচ্ছে আন্দোলনকে শক্তিশালী করার জন্যই৷ তারা এখন সভা-সমাবেশসহ নানা ধরনের কর্মসূচির মাধ্যমে সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করবেন৷ দল গোছানো হলেই চূড়ান্ত কর্মসূচি দেবেন৷
তার কথা, সাধারণ মানুষ এই সরকারকে চায় না৷ এটি একটি ‘অবৈধ’ সরকার৷ এই সরকারকে বিদায় করা হবেই৷ তিনি দাবি করেন, এ জন্য বিএনপি তেমন বেশি সময় নেবেনা৷ দেশের মানুষকে আরেকটু অপেক্ষা করতে হবে৷
বিএনপি-র চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বৃহস্পতিবার রাতে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্যদের নিয়ে বৈঠক করেছেন৷ জেল থেকে ছাড়া পাওয়া ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদসহ আরো কয়েকজন মুক্ত নেতা সেই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন৷ বৈঠকের বিষয় নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ কথা না বললেও দলের পরবর্তী করণীয় নিয়ে বৈঠকে কথা হয়েছে বলে জানা গেছে৷
জানা গেছে, বিএনপি তাদের পরবর্তী করণীয় নিয়ে মাঠ পর্যায়ের নেতাদের মতামত জানতে চায়৷ আর নির্বাচন বর্জন কতটুকু সঠিক হয়েছে,, সে নিয়ে মতামত সংগ্রহ করা হচ্ছে৷ তবে শেষ পর্যন্ত জামায়াতকে ত্যাগ করার পক্ষে নয় নয় বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব৷ বরং বিএনপি-র মধ্যে যারা জামায়াত বিরোধী আখেরে তাদের বিপাকেই পড়তে হবে৷
আর জামায়াতও ‘ধরি মাছ নাই ছুঁই পানি’-র মধ্যে থাকবে না বলে জানা গেছে৷ হয় তাদের পুরোপুরি কাছে রাখতে হবে, নয় তাদের ব্যাপারে নতুন কোনো অবস্থান থাকলে তা স্পষ্ট করতে হবে বিএনপিকে৷ সূত্র: ডিডব্লিউ
উৎসঃ   নতুনবার্তা


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ