• বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৭:১৩ পূর্বাহ্ন |

খোকাকে জেলে রেখেই নতুন কমিটি !

Sadek-Hosen-Khokaনিউজ ডেস্ক: বর্তমান আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকাকে জেলে রেখেই ঢাকা মহানগরের নতুন কমিটি দিতে যাচ্ছে বিএনপি। চলতি সপ্তাহের যে কোনো দিন এ কমিটি ঘোষণা হতে পারে। নতুন কমিটিকে দ্রুত ওয়ার্ড, থানা ও মহানগরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেওয়ার নির্দেশনা দেবেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

কমিটি পুনর্গঠন নিয়ে এরই মধ্যে নগর নেতাদের সোমবার রাতে গুলশান কার্যালয়ে ডেকেছেন তিনি। ওইদিন নেতাদের বক্তব্য শুনবেন খালেদা জিয়া। সারাদেশে আন্দোলন চূড়ান্ত রূপ নিলেও ঢাকা মহানগরের ব্যর্থতার জন্য কৈফিয়তও চাইবেন তিনি। বিষয়টি স্বীকার করেছেন নগর বিএনপির সদস্যসচিব আবদুস সালাম। তিনি জানান, নেতাদের বক্তব্য শুনে বেগম জিয়া দলের নতুন কোনো সিদ্ধান্ত থাকলে জানাতে পারেন। তবে নতুন কমিটির বিষয়ে কিছুই জানেন না বলেই তাঁর দাবি।

জানা গেছে, ঢাকা মহানগরের বর্তমান আহ্বায়ক কমিটি ২০১১ সালের ১৪ মে অনুমোদন পায়। কমিটি দেওয়ার সময় নিজের হাতের লেখা নির্দেশনায় খালেদা জিয়া বলেন, এ আহ্বায়ক কমিটি আগামী ছয় মাসের মধ্যে সর্বস্তরের কাউন্সিল অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ঢাকা মহানগর শাখার পূর্ণাঙ্গ কমিটি নির্বাচন করবে। কিন্তু প্রায় দুই বছরেও তাঁর এ নির্দেশনা বাস্তবায়ন করা হয়নি। তার উপর রয়েছে, আন্দোলনে নগর নেতাদের ‘প্রশ্নবিদ্ধ’ ভূমিকা। গত বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব বিষয় উঠে আসে। স্থায়ী কমিটির সদস্যরা ২৯ ডিসেম্বর ঢাকায় নগর নেতাদের আত্মগোপনের তীব্র সমালোচনাও করেন বলে বৈঠকসূত্র জানিয়েছে। ওই বৈঠকেই রাজপথের আন্দোলনে ব্যর্থ ও স্থবির সাংগঠনিক কার্যক্রমে গতি আনতে চলতি সপ্তাহের যে কোনো দিন ঢাকা মহানগরের নতুন কমিটির সিদ্ধান্ত হয়। জানা গেছে, একমাস মেয়াদী এই কমিটির সদস্যসংখা হতে পারে ২১। দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের ওয়ার্ড, থানা ও মহানগরে পূর্ণাঙ্গ কমিটি দেওয়ার নির্দেশনা থাকবে। সোমবার রাতে বৈঠকের পর পরই বর্তমান কমিটি ভেঙে দেওয়া হতে পারে। পর দিন নতুন কমিটির ঘোষণা আসতে পারে।

নতুন আহ্বায়ক কমিটির প্রধান কে হবেন তা এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে শনিবার এক প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রতিদিন জানিয়েছে, নগরপ্রধান হিসেবে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, আ স ম হান্নান শাহ ও ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়ার নাম শোনা যাচ্ছে। তবে শারীরিক অসুস্থতার কারণে হান্নান শাহ ঘনিষ্ঠজনদের কাছে তাঁর অসম্মতির কথা জানিয়েছেন। ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া জানিয়েছেন, এই বয়সে তিনি এ ধরনের দায়িত্বের কথা ভাবছেন না। আর মির্জা আব্বাস এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

জানা গেছে, বর্তমান কমিটির আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকা ও সদস্য সচিব আবদুস সালামের ভূমিকা নিয়ে দলের নেতিবাচক সমালোচনা রয়েছে। সূত্র জানায়, তাঁদেরকে বাদ দিয়েই কমিটি করার পক্ষে জোরালো দাবি রয়েছে তৃণমূল থেকে। সাদেক হোসেন খোকাকে কারাগারে রেখে কমিটি গঠনের বিরোধিতা করছেন দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতা । অবশ্য কেউ কেউ বলছেন, খোকার কারাগার থেকে বের হতে দেরি হবে। সে পর্যন্ত অপেক্ষা করতে গেলে কমিটি গঠন শেষ পর্যন্ত নাও হতে পারে।

এসব নিয়েই বিএনপিতে চলছে নানা হিসেব নিকেশ। জানা গেছে, সিদ্ধান্তে আসতে না পারলে কমিটি ভেঙে দিয়ে দলের এক স্থায়ী কমিটির সদস্যের নেতৃত্বে আবার আহ্বায়ক কমিটি করা হতে পারে। এছাড়া মহানগরকে উত্তর দক্ষিণে দুই ভাগে ভাগ করে দুইটি কমিটি করা হতে পারে। তবে সার্বিক দিক বিবেচনায় একজন ক্লিন ইমেজের সাংগঠনিক দক্ষতাসম্পন্ন নেতার নেতৃত্বে মহানগর কমিটি ঢেলে সাজানোর ব্যাপারে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা একমত হয়েছেন।

মহানগরের পর পরই ছাত্রদল, যুবদলসহ অন্যান্য অঙ্গ সহযোগী সংগঠনেরও নতুন কমিটি দেওয়ার চিন্তা-ভাবনাও বিএনপির নীতিনির্ধারক পর্যায়ে চলছে বলে বাংলাদেশ প্রতিদিনের খবরে বলা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ