• সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১১:৩৮ অপরাহ্ন |

ফেলু এখন ঘরে বসে কাঁদে : প্রধানমন্ত্রী

Hasinaনিউজ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ‘ফেলু’ আখ্যায়িত করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যে ফেলু সে ফেলুই। এখন ফেলু ঘরে বসে কাঁদে।’ শনিবার বিকেলে রাজশাহীর সারদা সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি এমন মন্তব্য করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি নিজে বিএনপি নেত্রীকে টেলিফোন করেছিলাম। বলেছিলাম- জ্বালাও-পোড়াও এবং ধ্বংসের রাজনীতি বন্ধ করে দিয়ে আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে আসেন সমাধান করি।’
‘উনি আমার ফোন ধরলেনই না প্রথমে। ছয়-সাত ঘণ্টা পরে উনি ফোন ধরলেন, ফোন ধরার পর উনি যে বকাবাজি-ঝগড়া করলেন। সে ঝগড়া নিয়ে কী বলবো, এ ধরনের ঝগড়া শুনতে আমরা অভ্যস্থ না’ যোগ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি উনাকে অনুরোধ করেছিলাম- আপনি অন্তত পরীক্ষার সময় হরতাল দিয়েন না, ছেলে-মেয়েদের পরীক্ষা নষ্ট করবেন না। উনি উত্তর দিয়েছিলেন- উনি হরতাল করবেনই করবেন। হরতাল উনি ছাড়বেন না।’
তিনি দাবি করেন, ‘ছেলে-মেয়ে পড়াশোনা করুক উনি চান না। কারণ উনি মেট্রিক পরীক্ষা দিয়ে কেবল অংক আর উর্দুতে পাস করেছিলেন, বাকি সব বিষয়ে ফেল। উনি হয়তো ভাবেন- উনি যখন ফেল করেছেন, আপনাদের ছেলে-মেয়ে কেন পাস করবে। উনি ফেল, সবাই ফেল।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘উনি আন্দোলনেও ফেল, মেট্রিক পরীক্ষায়ও ফেল। যে ফেলু সে ফেলুই। এখন ফেলু ঘরে বসে কাঁদে। এখন ফেলু কাঁদে আর বলে- কী করলাম, হায় কী হলো!’
তিনি বলেন, ‘উনি ইলেকশনে আসলেন না, কেন? ইলেকশন বন্ধ করবেন। বাংলাদেশের মানুষকে ডাক দিলেন ইলেকশন বন্ধ করার জন্য। বাংলাদেশের মানুষতো উনার ডাকে সাড়া দেয়নি।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘হরতাল, অবরোধ ও বোমাবাজিসহ সব ধরনের বাধা উপেক্ষা করে ৪০ ভাগের ওপরে মানুষ ভোট দিয়েছে। যেখানে যেখানে ভোট হয়েছে, আপনার বাধা উপেক্ষা করে আপনাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করেছেন। আর ফেলু-কে উচিত শিক্ষা দিয়েছেন। এখন লজ্জা থাকলে উনি আর মানুষ পুড়িয়ে মারবেন না, আন্দোলনের নামে অরাজকতা সৃষ্টি করবেন না।’
তিনি বলেন, ‘২০০৬ সালে বিএনপি নেত্রী ঢাকায় একটি বক্তৃতায় বলেছিলেন- আমি নাকি আর কোনোদিন বিরোধীদলীয় নেত্রীও হতে পারবো না আর আওয়ামী লীগ একশ’ বছর ঘুরে বেড়ালেও ৩০টির বেশি সিট পাবে না।’
‘আল্লাহর কী কাজ দেখেন- ২০০৮ সালে উনি ২৯টি সিট পেলেন, উনিই ৩০টির বেশি সিট পাননি। আর আমি উনার বদ-দোয়ার গুণে তখন প্রধানমন্ত্রী হলাম। এবার যখন বোমাবাজি করে নির্বাচন বন্ধ করতে পারেননি, আমি আবারো প্রধানমন্ত্রী হলাম আর উনি বিরোধীদলীয় নেত্রীও হতে পারেননি’ যোগ করেন শেখ হাসিনা।
বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আপনি এ সমস্ত ফালতু কথা বলা বন্ধ করে দিন। আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মানুষ মারা বন্ধ করে দিন। হরতাল-অবরোধ দেয়া বন্ধ করেন। মানুষের জীবনে অশান্তি সৃষ্টি করবেন না।’
তিনি বলেন, ‘মিথ্যা কথা বলা বন্ধ করেন। ৪০ ভাগের ওপরে ভোট হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের রিপোর্ট এবং আন্তর্জাতিক রিপোর্টেও আছে। উনি (খালেদা জিয়া) এরপরেও ভাঙ্গা-রেকর্ডের মতো বলেই যাচ্ছেন- মানুষ নাকি ভোট দেয়নি। উনি চোখেই দেখেন না ভোট দেয়া।’
আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘উনি (খালেদা জিয়া) গালমন্দ করেন, গালমন্দ করতে উনি পছন্দ করেন। এটাই আমরা উনার মধ্যে লক্ষ্য করি।’
তিনি অভিযোগ করেন, ‘গোপালগঞ্জের নাম শুনলে আমাদের বিএনপি নেত্রীর মেজাজ খুব খারাপ হয়ে যায়। তাই তিনি গোপালগঞ্জের মানুষকে গোপালী বলে গালি দেন। আমি জবাবে বলেছি- গোপালীরা কপালী হয়।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘উনি গোলাপী, উনি যে গোলাপী রঙে শাড়ি পরে গোলাপী সেজে ঘুরে বেড়ান। গোলাপী এখন কই? নির্বাচনের ট্রেন উনি মিস করেছেন। জাতীয় নির্বাচনের ট্রেন মিস করে উনি এখন উপজেলা নির্বাচনের ট্রেনে চড়ে বসেছেন।’
এ সময় খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, ‘কথায় বলে- সেই নথ খসালি, তবে কেন লোক হাসালি।’
উৎসঃ   আরটিএনএন


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Red Chilli Saidpur

আর্কাইভ